আসছে শীত আর বাড়ছে মাক্স ও হ্যান্ড স্যানিটাইজারের দাম, নকলে সয়লাব যশোরের বাজার

0
206

ডি এইচ দিলসান : শীত সামনে রেখে দেশ এখন করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় প্রস্তুত। এরই মধ্যে আবার শুরু হয়েছে মাস্কসহ সুরক্ষা সামগ্রী নিয়ে কারসাজি। সরকার ঘোষণা করেছে ‘নো মাস্ক নো সার্ভিস’। শীত আসতে না আসতে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি এবং সরকার মাস্ক ব্যবহারে যখন বাধ্যতামূলক করেছে তখন অসাধু ব্যবসায়ীরা একদিকে নকল মাক্সে সয়লাম করে দিয়েছে যশোরের বাজার অন্যদিকে সিন্ডিকেট করে বাড়িয়ে দিয়েছি দামও। যদিও কিছুদিন আগেও সাধারণের নাগালে থাকা সার্জিক্যাল মাস্ক ইতিমধ্যে আগের চেয়ে দ্বিগুণ দামে কিনতে হচ্ছে মানুষকে।
যশোরের বাজার ঘুরে দেখা গেছে নানান ধরনের নামের মাক্স বিক্রী করছেন দোকানীরা। এর মধ্যে ডিসপোসএবল মেডিকেল ফেস মাক্স, এর প্যােেকট ছিলেঅনা কোন ব্যাচ নাম্বার, ছিলোনা কোন উৎপাদনের তারিখ এমনকি ছিলোনা কোন এমএফজি নাম্বারও, এমনি প্রায় ১০-১২ টা মাক্স কোম্পানির প্যাকেটে পাওয়া যায়নি কোন তখ্য। তবে হেল্থ কেয়ারের মাক্সে ছিলো কিছু তথ্য, যেটাকে অনেক দোকানীরা বলছে এটা কিছুটা ভালো।
যশোর আদ্বদীন হাসপাতালের পাশে ক্লাসিক মেডিকেল পয়েন্টের আজম বলেন বলছেন, সপ্তাহ খানেক আগে তারা মানভেদে ৫০ পিসের এক বক্স মাস্ক ৬০ থেকে সর্বোচ্চ ৮০ টাকায় কিনেছেন। এখন তা ১৩০ থেকে ১৫০ টাকা দিয়ে কিনতে হচ্ছে তাদের। তিনি বলেন, শীত বাড়লে মাস্কের দাম আরও বাড়তে পারে বলে পাইকারি ব্যবসায়ীরা আগাম জানিয়ে দিয়েছেন বলেও জানান খুচরা বিক্রেতারা। কী কারণে দাম বাড়ছে বলে মনে করেন- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘শীতে করোনা বাড়বে, তাই অনেকে স্টক করে রাখতেছে। মাল (মাস্ক) কম ছাড়তেছে।’
মাস্ক ব্যবসার সঙ্গে জড়িতদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, শীতে করোনার সংক্রমণ বাড়বে এটা ধরে রেখে পরিকল্পিতভাবে কৃত্রিম সংকট তৈরি করছেন বড় ব্যবসায়ীরা। এ ছাড়া এত দিন বড় ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে নতুন করে মাস্ক তৈরি এবং আমদানিতে যুক্তরা সুযোগের অপেক্ষায় ছিলেন। সরকার মাস্ক ব্যবহারে কড়াকড়ি আরোপ করায় এবং সংক্রমণ বাড়ায় চাহিদা বেড়ে গেছে, তাই দাম বাড়ানো হচ্ছে।
এ ব্যাপারে যশোর হেলথ কেয়ারের ডিপো ইনচার্জ আব্দুস সাত্তার বলেন, আমাদের কোম্পানির মাক্স সরকার অনুমোদিত, গত সপ্তাহের চেয়ে এ সপ্তাহে তাদের মাক্সের দাম বাড়ার কারন জানতে চাইলে তিনি বলেন, কোম্পানি যে দাম ধরে দেয় আমার সেই দামেই মার্কেটে ছাড়তে হয়।
এ ব্যাপারে রিয়াজ ফার্মার ফরহাদ বলেন, আর এফ এল এর গেল উইল মাক্স অনেকটা ভালো। তিনি বলেন এই মাক্সের দাম একটু বেশি হলেও মান অনেক ভালো।
যশোরের সিমান্তবর্তী এলঅকার শার্শা উপজেলা হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ও বেনাপোল পোর্টের দায়িত্বরত ডাক্তার ইউসুফ বলেন, বাজারে যে সব নকল মাক্স বিক্রী হচ্ছে এটা স্বাস্থের জন্য ক্ষতিকর। তিনি বলেন নকল মাক্সে বাজার ভর্তি হয়ে গেছে। নানা নামের নানা ডিজাইনের নকল মাক্স বিক্রি হচ্ছে। যেগলো করোনাভাইরাসের মতো ভয়াল ভাইরাসতো দূরের কথা সাধারণ ভাইরাসও ঠেকাতে পারবে না। ধুলোবালি ঠেকানোর উপযোগী মাক্স দিয়ে করোনাভাইরাস ঠেকানো অসম্ভব বলে মন্তব্য করেছেন চিকিৎসক আহসান ফুয়াদ অয়ন। দৈনিক আজাদীর সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, নকল মাক্স খুবই ক্ষতিকর। ব্যবহারকারী বুঝতেও পারছেন না যে, সর্বোচ্চ সচেতনতা গ্রহন করেও তিনি আক্রান্ত হয়ে যাচ্ছেন। বাজারে চড়া দামে বিক্রি হওয়া অধিকাংশ মাক্সই নকল। এর থেকে তিন স্তরের কাপড়ের মাক্স ভালো বলেও তিনি উল্লেখ করেন। শুধু দামি মাক্সই নয়, সার্জিক্যাল মাক্সের মতো গুরুত্বপূর্ণ জিনিসও নকল করে বিক্রি করা হচ্ছে। তিন লেয়ার বিশিষ্ট হবে: এটাতে তিনটে লেয়ার থাকবে দুটি সাদা লেয়ার একটা নীল। সাদা অংশটা ফিল্টার, যা ভেদ করে জীবাণু ঢুকতে পারে না। এছাড়া তিনি বলেন সার্জিক্যাল মাস্ক এর সাদা অংশ আগুন জ্বলবে না, কিন্তু আগুনে গুটিয়ে যাবে, পানি নিলে সেটি এর ভেতর দিয়ে বেদ করবে না, এবয় অবশ্যয় এই মাক্স ২ ঘণ্টার বেশি পরিধান করা স্বাস্থ্যসম্মত নয়।
যশোর বক্ষব্যাধি হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডাক্তার পলাশ বলেন, মাক্সের পাশাপাশি সবচেয়ে বেশি নকল হচ্ছে জীবানুনাশক। করোনা মোকাবেলায় হাত, মুখ জীবাণুমুক্ত রাখার ওপর সর্বোচ্চ গুরত্ব দেয়া হলেও বাজারের জীবাণুনাশক স্যানিটাইজার, হ্যান্ডরাব, ডেটল, স্যাভলন ইত্যাদির ব্যাপকহারে নকল হয়ে গেছে। এসব পণ্যে ৬০ শতাংশের উপরে এ্যালকোহল থাকার পাশাপাশি এ্যাম্ফিফিলস, ক্লোরোহেক্সাডিন, ইথানলসহ বিভিন্ন উপাদানের উপস্থিতি থাকতে হবে। এসব উপাদান যথাযথভাবে না থাকলে এসব পণ্য করোনাভাইরাস কোনভাবেই প্রতিরোধ করতে পারবে না। অথচ বাজারে স্যাভলন ডেটল হ্যাক্সিসলসহ নানা নামি দামি ব্র্যান্ডের জীবানুনাশক নকল করে চড়া দামে বিক্রি করা হচ্ছে। স্যাভলনের নাম নকল করে কত নামের কত জীবানুনাশক যে বাজারে ছাড়া হয়েছে তার কোন ইয়ত্তা নেই। এসব জীবানুনাশকে প্রয়োজনীয় উপাদানের কোনটিই নেই বলেও সূত্র মন্তব্য করেছে। এসব জীবানুনাশক ব্যবহার করে অতি আত্মবিশ্বাস শত শত মানুষের জন্য কাল হয়ে উঠছে। ডাক্তার পলাশ কুমার দাশ করোনার আতংকের মাঝেও হাসপাতালে রোগী দেখা থেকে শুরু করে আনুষাঙ্গিক চিকিৎসা কার্যক্রম প্রদান করছেন। দৈনিক যশোরের সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, নকল জীবানুনাশক মানুষের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে। আপনি মনে করছেন যে, হ্যান্ড স্যানিটাইজার জীবানু মেরে ফেলছে। অথচ সেটি কোন কাজ করছে না। জীবানুনাশক ব্যবহার না করলে আপনি সতর্ক থাকতেন। জীবানুনাশক ব্যবহার করায় আপনার সতর্ক থাকার প্রয়োজন পড়ছে না। অথচ নিজের অৎান্তেই আপনি শরীরে জীবানু প্রবেশ করাচ্ছেন। যা ভয়াবহ পরিণতি ডেকে আনছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।
সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা নকল জীবানুনাশক ব্যবহার থেকে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়ে বলেছেন, এসব জীবানুনাশক থেকে সাধারণ কাপড় কাঁচার সাবান অনেক ভালো। কাপড় কাঁচার সাধারণ সাবানেও এ্যাম্ফিফিলস বা সোডিয়াম লরেথ সালফেট নামের উপাদান রয়েছে। যেগুলো করোনাভাইরাসকে তিরোধ করতে পারে। ক্ষারযুক্ত সাবানগুলো বেশি কার্যকর বলেও তারা উল্লেখ করেছেন।