আহলান সাহলান মাহে রমজান

0
69

আহলান সাহলান মাহে রমজান। গতকাল তারাবিহ নামাজ আদায় ও সেহেরি খাইয়া রোজা রাখিবার মাধ্যমে আমাদের দেশে পবিত্র মাহে রমজান শুরু হইয়াছে। এই মাহে রমজান আত্মসংযম, অনুকম্পা ও ক্ষমা লাভের মাস। এই মাসে ত্যাগ স্বীকারের মাধ্যমে আত্মার পরিশুদ্ধি ঘটে ও সর্বশক্তিমান আল্লাহর নৈকট্য লাভের সুযোগ হয়। তাই উম্মতে মোহাম্মদীর জন্য এই মাস আল্লাহতায়ালার দেওয়া এক বিরাট নিয়ামত। মূলত ‘রম্দ’ শব্দমূল হইতে উদ্ভূত আরবি ‘রমাদান’-এর আভিধানিক অর্থ দহন করা বা পোড়াইয়া ভস্ম করিয়া ফেলা। আর ফারসি ‘রোজা’ শব্দের আরবি হইল সাওম যাহার বহুবচন সিয়াম। সাওমের অর্থ বিরত থাকা, পরিত্যাগ করা। আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে সুবহে সাদিক হইতে সূর্যাস্ত পর্যন্ত নিয়তসহকারে পানাহার ও জৈবিক চাহিদা হইতে বিরত থাকিবার নামই সাওম বা রোজা। এই ব্যাপারে সুরা বাকারার ১৮৫ নং আয়াতে স্পষ্ট করিয়া বলা হইয়াছে, ‘তোমাদের মধ্যে যে ব্যক্তি এই মাসটি পাইবে, সে অবশ্যই রোজা রাখিবে। তবে যে অসুস্থ অথবা মুসাফির, সে পরবর্তী সময় তাহা পূরণ করিয়া লইবে।’

উল্লেখ্য, দ্বিতীয় হিজরি সালে রমজানের রোজা ফরজ করা হয়। আল্লাহর বাণী ‘কামা কুতিবা আলাল্লাজিনা মিন কবলিকুম’ (বাকারা : ১৮৩) দ্বারা বুঝা যায় যে, রোজা বা উপবাসব্রত পালন অন্যান্য ধর্ম ও সভ্যতায়ও ছিল। এখনও কোনো না কোনোভাবে ইহার অস্তিত্ব রহিয়াছে। যদিও সংখ্যা, নিয়মকানুন, সময় ও পদ্ধতিগত পার্থক্য বিদ্যমান। আল্লাহ তায়ালা সূরা বাকারার ১৮৪ নং আয়াতে বলেন, ‘ওয়া আন তাসুউমু খয়রুল লাকুম ইন কুনতুম তা’লামুন।’ অর্থাত্ তোমরা যদি রোজা রাখ, তবে তাহাতেই রহিয়াছে তোমাদের জন্য কল্যাণ, যদি তোমরা তাহা উপলব্ধি করিতে পার। সত্তরের দশকে প্রখ্যাত জার্মান চিকিত্সাবিদ ড. হেলমুট লুটজানার রচিত দ্য সিক্রেট অব সাকসেসফুল ফাসটিং (সফল রোজার গোপন রহস্য) গ্রন্থে মানুষের শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের গঠন ও কার্যপ্রণালী বিশ্লেষণ করিয়া নীরোগ, দীর্ঘজীবী ও কর্মক্ষম স্বাস্থ্যের অধিকারী হইতে বত্সরের কতিপয় দিন রোজা বা উপবাসব্রত পালনের পরামর্শ দেওয়া হয়। ইবনে সিনাও তাহার রোগীদের রোজা পালনের কথা বলিতেন। এখন অনেক চিকিত্সকই প্রেসক্রিপশনে রোজা বা উপবাসব্রত পালনের কথা লিখিতেছেন।

রোজার স্বাস্থ্যগত উপকারিতা আমাদের জন্য বাড়তি লাভ নিঃসন্দেহে। তবে আমরা মূলত আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য তাহার মহান বিধান হিসাবে রোজা পালন করিয়া থাকি। মাহে রমজানকে বলা হয় রহমত, মাগফিরাত ও নাজাতের মাস। এই মাসে সব ইবাদতেই সওয়াব বেশি। এমনকি অন্যকে ইফতার করানোর মধ্যেও আছে অশেষ পুণ্য। এই মাস গরিব-দুঃখীর ক্ষুধার জ্বালা ও অভাব-অনটনকে বুঝিতে সহায়তা করে বলিয়া ইসলাম এই মাসে সাদকাতুল ফিতরের ব্যবস্থা করিয়াছে। অতএব, সেহেরি, ইফতার, তারাবিহ, পবিত্র কোরআন তিলাওয়াত, ইতিকাফ, তাহাজ্জুদ, যাকাত ও সাদকাতুল ফিতর ইত্যাদি ইবাদতের মাধ্যমে এই মাসটিকে আমরা উদযাপন করিব যথার্থরূপে। রমজান উপলক্ষে দেশবাসী ও মুসলিম উম্মাহর প্রতি আমরা জানাই আন্তরিক মোবারকবাদ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here