আড়াই কোটি টাকার চেক জালিয়াতির রহস্য উদঘাটন

0
84

যশোর শিক্ষাবোর্ডের দূর্নীতির সাতকাহন -২

স্টাফ রিপোর্টার: যশোর শিক্ষাবোর্ডে চেক জালিয়াতির মাধ্যমে আড়াই কোটি টাকা আত্মসাতের রহস্য উদঘাটন করেছে দৈনিক যশোর। গতকাল শুক্রবার দিনভর দৈনিক যশোরের একটি অনুসন্ধানী টিম এই বিষয়ে সরেজমিন খোঁজ খবর নিয়ে এই চেক জালিয়াতির সাথে বোর্ডের কারা কারা জড়িত, কিভাবে নাম সর্বস্ব প্রতিষ্ঠানের নামে লাখ লাখ টাকার চেক ইস্যু করা হয়েছে, কিভাবে ওই নাম সর্বস্ব প্রতিষ্ঠানের ব্যাংক হিসাবে চেক গুলো জমা হয়েছে, কি প্রক্রিয়ায় জমাকৃত চেকের টাকা ফের ওই নাম সর্বস্ব প্রতিষ্ঠানের ব্যাংক হিসাব থেকে উত্তোলন করা হয়েছে, কে কিভাবে ওই টাকা উত্তোলন করেছে এবং উত্তোলনের পর ওই বিপুল পরিমান টাকা বোর্ডের কোন কোন কর্মকর্তা কর্মচারীর মধ্যে ভাগবাটোয়ারা হয়েছে তার বিস্তারিত তথ্য উঠে এসেছে দৈনিক যশোরের অনুসন্ধানে ।
বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, বোর্ডের হিসাব বিভাগ থেকে চলতি ও গত অর্থ বছরের বিভিন্ন কাজের উপর ভ্যাট ও আয়কর বাবাদ সরকারি কোষাগারে ১১১৪১০০৫৫০১১১ আয়কর কোডে জমা দেওয়ার জন্য ভিন্ন ভিন্ন তারিখে ভিন্ন ভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নামে সোনালী ব্যাংক যশোর শিক্ষা বোর্ড শাখার বোর্ডের ২৩২৩২৪০০০০০২৪ নম্বর হিসাবের ১০ হাজার ছত্রিশ টাকার ৯টি চেক ইস্যু করা হয়। কিন্তু মজার বিষয় হচ্ছে এই ৯টি চেকের বামপাশের গ্রাহকের অংশ বা মুড়ি বইয়ে গ্রাহকের নাম ও টাকার অংকের সাথে ডানপাশের মুল চেকের টাকার অংকের ও গ্রাহকের নামের কোন মিল নেই। বোর্ডের হিসাব শাখায় সংরক্ষিত ০৫১৬৫২৩ নম্বর চেকের মুড়ি বইয়ে দেখা যাচ্ছে বোর্ডের সেকশন অফিসার হারুন অর রশিদকে ২০১৯-২০ ও ২০২০-২১ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেট প্রস্তুত কমিটির সদস্য হিসেবে ২৫ হাজার টাকা প্রদান করা হয়। এই বিল বাবদ হারুন অর রশিদের কাছ থেকে বোর্ড আয়কর কাটে ২৫শ’ টাকা। যা ২০২০ সালের ৮ জুলাই সরকারের সংশ্লিষ্ট হিসাবে জমা দেওয়ার জন্য ০৫১৬৫২৩ নম্বর চেকের মাধ্যমে ২ হাজার ৫০০ টাকা ইস্যু করে বোর্ড কর্তৃপক্ষ। কিন্তু উক্ত চেকের ডান পাশের মুল অংশে প্রাপক হিসাবে ভেনাস প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং লিখে টাকার স্থানে কথায় ও অংকে কম্পিউটার কম্পোজ করে ২৫ লাখ ৮০ হাজার ১০ টাকা লিখে হিসাবধারী বোর্ডের সচিব ও চেয়ারম্যান যৌথ ভাবে স্বাক্ষর করেন। ২০২০ সালের ১২ আগস্ট ০৫১৬৬৮২ নম্বর চেকের মুড়ি অংশে দেখা যাচ্ছে বোর্ডের অফিসে ব্যবহারের জন্য বাল্ব এবং পানির পাম্পের ৪টি ম্যাগনেট ক্রয় করেন সহকারী সচিব (কমন) আশরাফুল ইসলাম। যার জন্য খরচ হয় ১২ হাজার ৬৮ টাকা। ১০ শতাংশ হারে ভ্যাট কর্তন করা হয় ১২শ’ ৭ টাকা। ওই টাকা ১১১৩৩০০০৫০৩৩১ নম্বর ভ্যাট কোডে সরকারী কোষাগারে জমা হওয়ার কথা। কিন্তু ওই ০৫১৬৬৮২ নম্বর চেকের ডান পাশের গ্রাহকের অংশে দেখা যাচ্ছে প্রাপক হিসেবে ভেনাস প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং প্রতিষ্ঠানের নাম ও কথায় ও অংকে ১৫ লাখ ৪২ হাজার টাকা। ২০২০ সালের ২৪ আগস্ট ০৫১৬৭৮৭ নম্বর চেকের মুড়িতে দেখা যাচ্ছে যশোর শহরের ডাঃ আব্দুর রাজ্জাক কলেজের প্রভাষক আব্দুল গফুরকে পরীক্ষার বিল বাবদ ৬০০০ টাকা প্রদান করা হয়। তার থেকে আয়কর বাবদ বোর্ড ৬০০ টাকা কর্তন করে সরকারের াায়কর কোর্ডে জমা দিতে চেক ইস্যু করে। কিন্তু ওই ০৫১৬৭৮৭ নম্বর চেকের ডান পাশের অংশে প্রাপক হিসেবে শাহী লাল স্টোরের নাম লেখা ও টাকার ঘরে অংকে এবং কথায় ৩৫ লাখ ৯০ হাজার টাকা লেখা ছিল।
২০২০ সালের ১৬ নভেম্বর ০৫১৭২৪৩ নম্বর চেকের মুড়িতে দেখা যাচ্ছে খুলনারর কয়রা উপজেলার চান্নিরচক মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক অজিত কুমার বৈরাগীকে পরীক্ষার বিল বাবদ৬ হাজার ৭শত ৭৫ টাকা প্রদান করে বোর্ড কর্তৃপক্ষ ৭৬৮ টাকার আয়কর কাটে। যা সরকারের আয়কর কোডে পরিশোধের জন্য কর্তৃপক্ষ ০৫১৭২৪৩ নম্বর চেক ইস্যু করে। কিন্তু ওই ০৫১৭২৪৩ নম্বর চেকের ডান পাশের অংশে প্রাপক হিসেবে শাহী লাল স্টোর লেখা ও টাকার ঘরে অংকে এবং কথায় ২৫ লাখ ৪২ হাজার টাকা লেখা ছিল। চেয়ারম্যান মহোদয়ের বাংলোর অফিস কক্ষে এসি মেরামত বাবদ যশোর স্টেডিয়াম মার্কেটের ( আসাদ গেটের সামনে) জননী ইলেকট্রিক এন্ড রেফ্রিজারেশন প্রতিষ্ঠানকে ৬ হাজার টাকা প্রদান করে বোর্ড কর্তৃপক্ষ। ওই খরচ থেকে ভ্যাট বাবদ ৬০০ টাকা কর্তন করে তা সরকারের ভ্যাড কোডে সরকারী কোষাগারে জমা দেওয়ার জন্য একই বছরের ১৯ নভেম্বর ০৫১৭২৫৪ নম্বর চেক বোর্ড কর্তৃপক্ষ ইস্যু করে। কিন্তু ওই একই তারিখের ০৫১৭২৫৪ নম্বর চেকের ডান পাশের অংশে প্রাপক হিসেবে ভেনাস প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং এর নাম লেখা হয়। টাকার ঘরে কথায় ও অংকে খো হয় ১৫ লাখ ৯৮ হাজার টাকা। বোর্ডের যশোর – ঘ- ১১- ০০৮৬ নম্বর গাড়ীর ১২ ভোলেটর ব্যাটারী ক্রয়ের বিল বাবদ ৯ হাজার ৯ শ’ ৫৫ টাকা যশোর আর এন রোডের মেসার্স ন্যাশনাল মোটরসকে পরিশোধ করা হয়। ওই খরচ থেকে ৯৯৬ টাকার ভ্যাট কর্তন করে বোর্ড কর্তৃপক্ষ । যা ২০২১ সালের ৬ মে সরকারের ভ্যাট কোর্ডে পরিশোধের জন্য ০৫১৮৫৫৫ নম্বর চেক ইস্যু করা হয়। কিন্তু ০৫১৮৫৫৫ নম্বর চেকের ডান পাশের অংশে প্রাপক হিসেবে ভেনাস প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং এর নাম লেখা হয়। টাকার ঘরে কথায় ও অংকে লেখা হয় ৩৫ লাখ ৯৮ হাজার টাকা। ২০ ২১ সালে বোর্ডের সহকারী সচিব (কমন) আশরাফুল ইসলাম কে সনদ যাচাই করার কাজের জন্য ১১হাজার ৫শ’ টাকার বিল প্রদান করা হয়। ওই বিল থেকে ১৭শ’ ২৫ টাকার ভ্যাট কর্তন করা হয়। যা চলতি বছরের ২৯ জুন সরকারের ভ্যাট কোডে জমা দেওয়ার জন্য ০৫১৮৭৫৫ নম্বর চেক ইস্যু করা হয় বলে মুড়িতে উল্লেখ আছে। কিন্তু ০৫১৮৭৫৫ নম্বর চেকের ডান পাশের অংশে প্রাপক হিসেবে ভেনাস প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং এর নাম লেখা হয় এবং টাকার ঘরে কথায় ও অংকে ৪২ লাখ ৯৮ হাজার টাকা লেখা হয়। একই বছরের ৩০ জুন বোর্ডের প্রাক্তন নিরাপত্তা অফিসার গাজী জুলফিকার আলীকে ৫টি অকি টকি নগদ টাকায় ক্রয় বাবাদ ২১ হাজার ৬০ টাকার বিল প্রদান করা হয়। যা থেকে ১৫শ’ ৮০ টাকার ভ্যাট কর্তন করা হয়। এই টাকা সরকারের সংশ্লিষ্ট ভ্যাট একাউন্টে জমার দেওয়ার জন্য ০৫১৮৭৭৫ নম্বর চেক ইস্যু করা হয়। কিন্তু এই চেকের ডান পাশের অংশে প্রাপক হিসেবে ভেনাস প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং নাম লেখা হয়। টাকার ঘরে কথায় ও অংকে ৩৫ লাখ ৯৮ হাজার টাকা লেখা হয়। একই বছরের ১৩ সেপ্টেম্বর একটি কাজের বিল পরিশোধের পর ওই বিল থেকে আয়কর বাবদ বোর্ড কর্তৃপক্ষ ৬৫০ টাকা কর্তন করে। ওই টাকা সরকারের আয়কর হিসাবের কোর্ডে পরিশোধ করার জন্য ০৫১৯০০৮ নম্বর চেক ইস্যু করে। কিন্তু ওই চেকের ডান পাশের অংশে প্রাপক হিসেবে ভেনাস প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং নাম লেখা হয়। টাকার ঘরে কথায় ও অংকে ১৬ লাখ ৯৮ হাজার টাকা লেখা হয়। ফলে দেখা যাচ্ছে রাজার হাটের ভেনাস প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং এর নামে ৭টি চেকে মোট ১ কোটি ৮৯ লাখ ১২ হাজার ১০ টাকা এবং শেখ হাটি জামরুল তলা রোডস্থ শাহী সুপার মাকেটের শাহী লাল স্টোরের নামে ২টি চেকে ৬১ লাখ ৩২ হাজার টাকা ইস্যু করা হয়েছে। চেক ইস্যুর পর পরই ভেনাস প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক বাবু ইসলাম তার নামীয় ফাস্ট সিকিউরিটি ইসলাম ব্যাংকের যশোর শাখার ৫৫২৯ নম্বর হিসাবে ভিন্ন ভিন্ন সময়ে ৭টি চেক জমা দিয়ে সমুদয় টাকা উত্তোলন করে নিয়েছেন। অপর দিকে শাহী লাল স্টোরের মালিক আশরাফুল আলম ইসলামী ব্যাংক যশোর শাখায় তার নামীয় ৩০৪৮ নম্বর হিসাবে দুটি চেক জমা দিয়ে সমুদয় টাকা উত্তোলন করে নিয়েছেন। চেক গুলি সোনালী ব্যাংক যশোর শিক্ষা বোর্ড শাখার অনুকুলে থাকায় এই ব্যাংক কর্তৃপক্ষ তার ক্লিয়ারেন্স প্রদানের মাধ্যমে ক্যাশ করতে সহায়তা করেন। যা সম্প্রতি বোর্ডের হিসাব এন্ড নিরীক্ষা দপ্তরের উপ পরিচালক ইমদাদুল হক ও অডিট অফিসার আব্দুস সালাম আজাদ অভ্যান্তরীণ অডিট করার সময় ধরে ফেলেন। তারা সোনালী ব্যাংক শিক্ষা বোর্ড শাখাসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে খোঁজ খবর নেওয়ার পর চেক জালিয়াতির মাধ্যমে আড়াই কোটি টাকা আতœসাতের বিষয়টি নিশ্চিত হন। এদিকে চেক জালিয়াতির মাধ্যমে আত্মসাতের ঘটনা প্রকাশ পাওয়ায় তোলপাড় সৃষ্টি হয় যশোর শিক্ষা বোর্ডসহ যশোরের মিডিয়াপাড়ায়। এদিকে গতকাল শুক্রবার দিনভর দৈনিক যশোরের অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে এক চেক জালিয়াতি চক্রের হোতাদের নাম পরিচয়।
ভেনাস প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিংএর স্বত্বাধিকারী বাবু ইসলাম মোবাইল ফোনে সাংবাদিকদের জানান, তিনি যে ৭টি চেক তার ব্যাংক একাউন্টে জমা দিয়ে ক্যাশ করিয়েছেন তার কোন কাজই তিনি করেননি । বোর্ডের হিসাব সহকারী সালাম ও কামাল নামে বোর্ডের একজন স্টাফ তার ফার্মের নাম ব্যবহার করে ওই চেক গুলো তৈরী করে। তারপর সেগুলোতে কৌশলে বোর্ডের সচিব ও চেয়ারম্যানের স্বাক্ষর সংগ্রহ করেন। বিভিন্ন সময়ে সালাম ও কামাল এই চেক গুলো তার নামীয় ফাস্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক এম কে রোডস্থ শাখায় ৫৫২৯ নম্বর হিসাবে জমা করেন । আমি প্রথম প্রথম এর প্রতিবাদ করেছি। কিন্তু যেহেতু আমি বোর্ডে ঠিকাদারি করি। বিভিন্ন সময় বিল ভাউচারের জন্য এই সালাম ও কামালের কাছে ধর্ণা দিতে হয়। তাদের কাছে বিল ভাউচারের পেমেন্টের কাজ থাকে। তাছাড়া সালাম ও কামাল বোর্ডের শীর্ষ একজন কর্মকর্তার আর্শিবাদপুষ্ট। যার কারনে আমি এই ধরনের চেক আমার একাউন্টে জমা দেওয়ার জন্য সালামকে অনুমতি দিই। তাছাড়া সালাম বলেন, বিষয়টি বোর্ডের ওই শৗর্ষ কর্মকতৃা অবগত আছেন। প্রতিটি চেক সোনালি ব্যাংক বোর্ড শাখার ক্লিয়ারেন্স পাওয়ার পর আমি সালামের নামে আমার নিজস্ব চেক ইস্যুর মাধ্যমে সমুদয় টাকা সালামকে পরিশোধ করেছি। সালাম ওই বিপুল পরিমান টাকা কি করেছে তা তিনিই বলতে পারবেন। ফলে এই চেক জালিয়াতির সাথে আমি বা আমার প্রতিষ্ঠানের কোন সম্পর্ক নেই। যা করার বোর্ডের শীর্ষ কর্মকর্তার নির্দেশে তার অধিনস্তরাই করেছে।
শেখহাটি হাইকোর্ট মোড়স্থ জামরুল তলা রোডস্থ শাহী সুপার মার্কেটের শাহী লাল স্টোরের স্বত্বাধিকারী আশরাফুল আলম বলেন, আজ (গতকাল) শুক্রবার সকালে পত্রিকার পাতায় দেখি আমার প্রতিষ্ঠানের নামে শিক্ষা বোর্ডের চেক জালিয়াতির খবর বের হয়েছে। পরে খোঁজ খবর নিয়ে বিস্তারিত জানতে পারি। তিনি বলেন, বোর্ডের হিসাব সহকারী সালাম আমার দোকান থেকে নিয়মিত ফটোকপি করতো। এক পর্যায়ে প্রায় ৬ হাজার টাকা বাকি পড়ে। আমি টাকার জন্য সালামকে চাপ দিলে সে একদিন বলে এতো টাকা চেয়ারম্যান স্রার নগদ দিবে না। তোমার ব্যাংক একাউন্ট দাও। আমরা একাউন্ট পে চেকের মাধ্যমে তোমার সমুদয় টাকা পরিশোধ করবো। সরল বিশ্বাসে আমি আমার ইসলামী ব্যাংক যশোর শাখার ৩০৪৮ নম্বর হিসাব নম্বরটি ও একটি প্যাডের কাগজ সালামকে প্রদান করি। একদিন হঠাৎ দেখি আমার মোবাইলে ইসলামী ব্যাংকের ম্যাসেজ। ওই ম্যাসেজে আমার হিসাবে ৩৫ লাখ ৯০ হাাজর টাকা ক্যাশ জমা হয়েছে । একটু পরেই সালাম আমার দোকানে আসে এবং বিষয়টি আমাকে অবহিত করে। আমি এই বিপুল পরিমান টাকার বিষয়ে জানতে চাইলে সে বলে কোন অসুবিধা নেই। বোর্ড চেয়ারম্যান স্যার সব জানেন। পরে সালাম আমার কাছ থেকে ওই টাকার চেক লিখে নিয়ে ব্যাংক থেকে সব টাকা তুলে নেন। এর প্রায় ৩ মাস পর আবার আমার একাউন্টে ২৫ লাখ ৪২ হাজার টাকা ডোকে। ওই ম্যাসেজ আসার পর পরই সালাম দোকানে এসে আমাকে তার নামে চেক দিতে বলে। আমি তিনটি চেকের মাধ্যমে সালামকে ওই টাকা দিয়ে দিই। আশরাফুল জানান, তিনি সালামকে যতগুলো চেক দিয়েছেন তার সবকটির মুড়িতে সালামের সাক্ষর আছে। ফলে এই বিষয়ে আমি সব রকমের পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে প্রস্তুত আছি। গতকালের ঘটনার পর বোর্ডের অনেকেই আমাকে পালিয়ে যেতে পরামর্শ দিয়েছে। কিন্তু আমি পালাবো না। কারণ আমি নির্দোশ। আমি দোকানেই আছি।
এই বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে শিক্ষা বোর্ডের সচিব এএসএম আলী আর রেজা দৈনিক যশোরকে বলেন, আমাদের কম্পিউটারে একই সাথে চেকের দুই অংশ প্রিন্ট হয়। এটা কি করে সম্ভব যে মুড়িতে এক রকম আর ডান পাশের অংশে অন্য রকম। এটা বোধগম্য হচ্ছে না। তারপরও যেহেতু চেকের স্বাক্ষরকারী আমি। ফলে এই দায় অস্বীকার করা যাচ্ছে না। আমরা বিষয়টি তদন্তের জন্য কলেজ ইন্সপেক্টরকে প্রধান করে ৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করেছি। ৭ কর্ম দিবসের মধ্যে কমিটি তদন্ত করে রিপোর্ট দিলেই পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর আমির হোসেন মোল্যার কাছে এই বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এই জাল জালিয়াতির সাথে যারাই জড়িত তাদের কে বিচারের মুখোমুখি করতে আমরা উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। ইতিমধ্যে তদন্ত কমিটি গঠন করেছি। আমার বোর্ডের হিসাব সহকারী আব্দুস সালাম ঘটনার দিন দুপুরের পর থেকে নিখোঁজ। তার মোবাইল ফোনও বন্ধ। তাকে খবর দিয়েও পাওয়া যাচ্ছে না। বিষয়টি রহস্যজনক বলেই মনে হচ্ছে। এই বিষয়ে আগামীকাল ( আজ) শনিবার আমরা থানায় মামলা করবো। তিনি বলেন, আমি যশোর বোর্ডকে ডিজিটাইজলড করেছি। এখন সবাই ঘরে বসেই সেবা পাচ্ছেন। বোর্ডে কাউকে আসা লাগছে না। বোর্ডের সামনে রাস্তার পাশে একটি সুন্দর বাগান করেছি। এটা অনেকের পছন্দ হচ্ছে না। ফলে যারা এটা সহ্য করতে পারছে না তারাই আমাকে বিপদে ফেলতে এই জালজালিয়াতির আশ্রয় নিয়েছে। এটা কোন একজন লোকের কাজ না। এর সঙ্গে বোর্ডের একটি চক্র জড়িত। কারণ প্রতিটি চেক ইস্যু হওয়ার আগে বহু হাত ঘুরে ফাইলটি আমার কাছে আসে।