ইউএনও’র সেই হাতকড়ার ছবি ভাইরাল, বাদীকে প্রধানমন্ত্রীর তিরস্কার ।। প্রশাসনের অভ্যন্তরে ক্ষোভ

0
565

নিজস্ব প্রতিবেদক : বরিশালে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি ‘বিকৃতি’র অভিযোগে দায়ের করা মামলায় ইউএনও (বর্তমানে বরগুনা সদর উপজেলায় কর্মরত) গাজী তারিক সালমনকে হাতকড়া পড়িয়ে আদালতের গারদখানায় নিয়ে যাওয়ার সেই ছবি এখন ভাইরাল। গত বুধবার বরিশাল আদালত অঙ্গনে ওই ঘটনার ছবি সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশের পর থেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শুরু হয় সমালোচনার ঢল। প্রভাবশালী আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম বিবিসিও এই ঘটনায় গুরুত্বের সাথে সমালোচনামুলক সংবাদ প্রকাশ করেছে। এর পরেই বিষয়টি একে একে নজরে আসে উর্দ্ধতন মহলের।

অপরদিকে গত বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সিভিল অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ সার্ভিস অ্যাসোেিয়শনের জরুরী সভায় রাষ্ট্রের একজন গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তাকে জামিনযোগ্য ধারার মামলায় হাজতে প্রেরণ এবং পুলিশ বাহিনীর অসৌজন্যসুলভ আচরনের তীব্র সমালোচনা করা হয়।

যদিও আদালতে জামিন না মঞ্জুর হওয়ার পর ইউএনও তারিক সালমনের হাতে হাতকড়া পড়ানো হয়নি বলে দাবি করেছেন বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার এসএম রুহুল আমীন। তিনি বলেন, দায়িত্বরত পুলিশ সদস্য যদি মনে করেন, আসামি পালিয়ে যেতে পারে কিংবা পালিয়ে যাওয়ার সামর্থ তার আছে, তাহলে তিনি আসামিকে হাতকড়া পড়াতে পারেন। একজন দায়িত্বশীল সরকারী কর্মকর্তা হওয়ায় এবং পালিয়ে যাওয়ার ভয় না থাকায় ইউএনও তারিক সালমনকে হাতকড়া পড়ানো হয়নি। এ প্রতিবেদকের কাছে তারিক সালমনের হাতে হাতকড়া পড়ানোর ছবি আছে জানালে পুলিশ কমিশনার বলেন, তিনি নিজে ওই ইউএনও’র সাথে কথা বলেছেন। ইউএনও তাকে জানিয়েছেন, তার হাতে হাতকড়া পড়ানো হয়নি।

বরিশালের জেলা প্রশাসক ড. গাজী মো. সাইফুজ্জামান বলেন, জামিনযোগ্য ধারার মামলা। আবেদন করলে দুই মিনিটের মধ্যে জামিন হয়ে যাওয়ার কথা। সেখানে সরকারের একজন গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তাকে ২ ঘণ্টা হাজতবাস করানো হয়েছে। অভিযোগ যাই থাক না কেন, সেটা আদালতের রায়ে প্রমাণিত হবে। তার আগে জামিন প্রক্রিয়ায় বিলম্ব করা, বিচার বাঁধাগ্রস্থ করা এবং হাতকড়া পড়ানো চরম আইনের লংঘন হয়েছে। তিনি এর তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

বরিশাল চিফ মেট্রোপলিটন আদালতের সেরেস্তাদার মো. শওকত হোসেন জানান, আসামি পক্ষের আইনজীবী শুনানীর সময় বক্তব্যের স্বপক্ষে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ও প্রমাণাদী আদালতে উপস্থাপন করতে পারেন নি। এ কারণে কিছু সময়ের জন্য আদালত তার জামিন না মঞ্জুর করেন। পরে উপযুক্ত প্রমানাদী উপস্থান করায় আদালত তার জামিন আবেদন মঞ্জুর করে পরবর্তী বিচারের জন্য মামলাটি অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন আদালতে প্রেরণের নির্দেশন দেন। একই সাথে আদালতের বিচার মো. আলী হোসাইন ২০৫ ধারায় আসামিকে ব্যক্তিগত হাজিরা থেকে অব্যহতি দেন। পরবর্তী ধার্য্য তারিখে আসামির অনুপস্থিতিতে তার আইনজীবী মামলা পরিচালনা করবেন।

জেলা আইনজীবী সমিতি ও প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট মানবেন্দ্র বটব্যাল বলেন, জামিন দেয়া না দেয়া আদালতের বিষয়। কিন্তু একবার জামিন নামঞ্জুর করে পুনরায় জামিন আবেদন মঞ্জুর করার কোন বিধান নেই। সিনিয়র আইনজীবী মানবেন্দ্র বটব্যাল বলেন, আসামিকে হাতকড়া পড়ানোর ক্ষেত্রে কোন বিধি নিষেধ নেই। তবে কোন সন্মানীত কিংবা দায়িত্বশীল ব্যক্তি, যিনি পালিয়ে যাবেন না বা পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করবেন না তাকে পুলিশ হাতকড়া না পড়ালেও পারে। আসামিদের সাথে অসৌজন্যমুলক ব্যবহার করার কোন এখতিয়ার পুলিশের নেই বলেও তিনি জানান।

গত বছর ১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে আগৈলঝাড়ায় শিশুদের চিত্রাংকন প্রতিযোগীতার আয়োজন করা হয়েছিলো। চিত্রাংকনের বিষয় ছিল ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ’। সিদ্ধান্ত ছিল ওই প্রতিযোগীতায় আঁকা যে ছবি প্রথম হবে, সেই ছবি স্বাধীনতা দিবসের কার্ডের পেছনে ছাপা হবে। সেটাই করা হয়েছে। এতে বঙ্গবন্ধুর ছবি কিভাবে বিকৃত করা হলো বুঝতে পারছেন না ইউএনও তারিক সালমন।

আমন্ত্রণপত্রের পেছনের পাতায় বঙ্গবন্ধুর ‘বিকৃত’ ছবি ছাপানোয় জাতীর মানহানী হয়েছে অভিযোগে গত ৭ জুন আগৈলঝাড়ার তৎকালীন ইউএনও গাজী তারেক সালমনের বিরুদ্ধে বরিশাল চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ৫ কোটি টাকার মানহানী মামলা করেন জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি জেলা আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট ওবায়েদ উল্লাহ সাজু। ওই মামলায় গত বুধবার (১৯ জুলাই) বরিশাল চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির হয়ে আইনজীবীর মাধ্যমে জামিনের আবেদন করেন গাজী তারিক সালমন।

ওই দিন সকাল সাড়ে ১১টায় প্রকাশ্য আদালতে বিচারক মো. আলী হোসাইন আসামির জামিন আবেদন নামঞ্জুরের মৌখিক আদেশ দেন। এরপর পরই আদালতে দায়িত্বরত পুলিশের এটিএসআই শচিনসহ কয়েকজন সদস্য ইউএনও তারিক সালমনকে হাতধরে টেনে আদালতের হাজতখানায় নিয়ে যান। ওই সময় তোলা ছবিতে দেখা যায়, এটিএসআই শচিন তার দুই হাত দিয়ে ইউএনও সালমনের ডান হাত ধরে আদালতের গারদখানায় নিয়ে যায়। ছবিতে এটিএসআই শচিনের ডান হাতে হাতকড়ার একাংশ এবং বাকী অংশ তার বাম হাত দিয়ে ইউএনও সালমনের ডান হাতে চেপে ধরেছে দেখা যায়। তার পেছনে সহ চারপাশে পুলিশ বেস্টনী দিয়ে তাকে গারদে নিতে দেখা যায়। যদিও ইউএনও’কে হাতকড়া পড়ানো হয়নি বলে দাবি মেট্রো পুলিশ কমিশনারের।

বতর্মানে বরগুনা সদরে কর্মরত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা গাজী তারিক সালমন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, আদালতের কাঠকড়া থেকে নামানোর পর পুলিশ সদস্যরা তার হাতে হাতকড়া পড়াতে উদ্যত হয়েছিলো। তখন তিনি তাদের হাতকড়া না পড়ানোর অনুরোধ করেন। তখন পুলিশের এক সদস্য একটি হাতকড়া সহ তার (সালমন) ডানহাত চেপে ধরে এবং অপরহাত চেপে ধরে পুলিশের আরেক সদস্য। এ সময় ফের তিনি পুলিশ সদস্যদের টানা হেঁচড়া না করতে অনুরোধ করলেও পুলিশ তাকে বলেছে, এটাই নিয়ম। এভাবেই নিতে হয়। বিষয়টি খুবই অপমানজনক ছিলো বলে জানান ইউএনও গাজী তারিক সালমন।

বুধবারের এই ঘটনার সচিত্র প্রতিবেদন পরদিন বৃহস্পতিবার বিভিন্ন দৈনিকে প্রকাশিত হলে সারা দেশে সিভিল সার্ভিস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি করে। এই ঘটনায় স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও নাখোশ হয়েছেন বলে প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচটি ইমামকে উদ্ধৃত করে জানিয়েছে বিবিসি বাংলা। এইচটি ইমাম বিবিসি বাংলাকে বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর ছবি বিকৃতির অভিযোগে মামলা দায়ের করে ওই ব্যক্তি ঘৃণিত কাজ করেছেন। বিবিসি বাংলার বৃহস্পতিবারের রাতের অধিবেশন পরিক্রমায় মাসুদ হাসান খানকে এইচটি ইমাম বলেন, তারা ইউএনওকে গ্রেফতার করে নিয়ে যাওয়ার ছবি দেখানোর পর প্রধানমন্ত্রী বিস্মিত হয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী তাদের বলেছেন, ক্লাশ ফাইভের ছেলে-মেয়েদের ছবি আকার প্রতিযোগীতা করে ওই অফিসার ভালো কাজ করেছে। ওই ছবি দেখে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, এতে বিকৃত করার মতো কিছু হয়নি বরং এটি পুরস্কার পাওয়ার যোগ্য। ওই অফিসারও পুরস্কার পাওয়ার যোগ্য। সেখানে আমরা তার (ইউএনও) সাথে এই ব্যবহার করছি বলে প্রধানমন্ত্রী তিরস্কার করেন এবং নিন্দা জানান।

এইচটি ইমাম বিবিসি বাংলাকে বলেন, প্রজাতন্ত্রের একজন কর্মর্তাকে এভাবে গ্রেফতার করা যায়না। কোন কর্মকর্তাকে শাস্তি দিতে হলে বা তার বিরুদ্ধে কোন মামলা বা কোন রকম কিছু করতে হলে সরকারের অনুমোদন প্রয়োজন। ইউএনও’র সাথে পুলিশের এমন ব্যবহারের (!) জন্য বরিশালের ডেপুটি কমিশনার এবং পুলিশ সুপারকে (মেট্রোপলিটনের মধ্যে হওয়ায় পুলিশ কমিশনার) দায়ী করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আভাস দিয়েছেন তিনি। এই মামলা গ্রহণ করায় সংশ্লিষ্ট বিচারকেরও সমালোচনা করেন প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক এই উপদেষ্টা।

বিবিসি বাংলাকে তিনি আরো বলেন, ওই ঘটনার পর প্রধানমন্ত্রী মামলা দায়েরকারী ব্যক্তিটি সম্পর্কে জানতে চেয়েছিলেন। খোঁজ নিয়ে তারা জেনেছেন, ওই ব্যক্তি (মামলার বাদী অ্যাডভোকেট ওবায়েদ উল্লাহ সাজু) ৫ বছর আগে আওয়ামী লীগে ছিল না। দলে ঢুকে পড়া (অনুপ্রবেশকারী) এই ‘অতিউৎসাহীরাই’ এই কাণ্ড ঘটিয়েছে। এদের চাটুকার উল্লেখ করে অভিজ্ঞ সাবেক আমলা এইচটি ইমাম বলেন, এরাই (চাটুকার) আওয়ামী লীগের ক্ষতি করছে।

উল্লেখ্য, গত বছর ২৩ ডিসেম্বর শীতের সকালে অ্যাডভোকেট সাজু তার সহযোগীদের নিয়ে বরিশাল-ঢাকা মহাসড়কের পাশে উজিরপুরের জয়শ্রীতে আগেভাগে তৈরী করে রাখা কাঠের অবকাঠামো দিয়ে ১৩টি দোকানঘর অবৈধভাবে স্থাপনের উদ্যোগ নেন। এ সময় অবৈধ দখলের ছবি তুলতে গেলে জহির খান নামের স্থানীয় এক সংবাদকর্মীর ক্যামেরা ভাঙচুর করেন তারা। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে সরকারী জমি অবৈধ দখল এবং সাংবাদিকের ক্যামেরা ভাঙচুরের অভিযোগে অ্যাডভোকেট সাজু, তার সহকারী আইনজীবী সাইফুল এবং স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা সবুজসহ ৭ জনকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। দিনভর নানা নাটকীয়তার পর জেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের চাপে সাজুসহ আটক ৭ জনকে ছেড়ে দেয় পুলিশ। ভেঙ্গে ফেলা ক্যামেরার ক্ষতিপূরণ আজ পর্যন্ত পাননি বলে জানিয়েছেন উজিরপুরের সাংবাদিক জহির খান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here