ইউএনও ওয়াহিদা কি ত্রিমুখী আক্রোশের শিকার?

0
95

দিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার ওয়াহিদা খানম ‘ত্রিমুখী আক্রোশের শিকার হয়ে’ ঢাকার ন্যাশনাল ইনষ্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স ও হাসপাতালে সংকটাপন্ন অবস্থায় রয়েছেন। ঘোড়াঘাটের ইউএনও হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকেই অন্যায়ের বিরুদ্ধে আপোষ করেননি তিনি। আর অন্যায়ের সাথে আপোষ না করাই হলো তার জীবনের কাল!

সীমান্তবর্তী ও স্থলবন্দর হিলির সাথে ঘোড়াঘাট উপজেলার বিভিন্ন রুট সরাসরি সংযুক্ত। এ কারণে মাদকের একটি নিরাপদ স্থান হিসাবে ঘোড়াঘাট উপজেলার রাস্তাঘাট ব্যবহার হতো। এই ইউএনও’র কারণে ঘোড়াঘাটের সেই মাদক ব্যবসায়ীরা বর্তমানে ব্যবসায় সুবিধা করতে পারছিলো না। এ কারণে চাপা ক্ষোভ রয়েছে মাদক ব্যবসায়ীদের মধ্যে।

অন্যদিকে, করোনাকালীন সময়ে কিছু স্থানীয় অসাধু জনপ্রতিনিধিদের ত্রাণ আত্মসাতের ঘটনায় বিভিন্ন গোডাউনে অভিযান চালান ইউএনও ওয়াহিদা। সরকারি ত্রাণ উদ্ধার করাসহ সেইসব জনপ্রতিনিধিদের বরখাস্তা করায় তার বিরুদ্ধে ক্ষুব্ধ হয় একটি মহল।

তাছাড়া স্থানীয় প্রভাবশালীদের অন্যায় আবদার ও সরকারি সম্পদ ভোগদখল করতে না দেয়ায় প্রভাবশালীদের ক্ষোভ ছিলো ইউএনওর ওপর।

এই ত্রিমুখী ক্ষোভের সাথে যুক্ত ব্যক্তিরা একত্রিত হয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ওয়াহিদা খানমকে হত্যার ষড়যন্ত্র করেছে বলে স্থানীদের ধারণা।

ঘোড়াঘাটের সাধারণ মানুষজন বলেছে, ঘোড়াঘাটে উপজেলায় ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে রাজনৈতিক কোন্দল রয়েছে। স্থানীয় সাংসদ এর অনুসারী কিছু নেতাকর্মীরা তাদের মতো করে উপজেলা প্রশাসনকে নির্দেশনা দেয়ার চেষ্টা করতো। আবার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের অনুসারীরা তারা তাদের মতো প্রশাসনকে নির্দেশনা প্রদানের জন্য চেষ্টা করতো।

ঘোড়াঘাট উপজেলায় গুটি কয়েক ব্যক্তির কারণেই আইনশৃঙ্খলার অবনতি ঘটেছে বলে স্থানীয়দের মত।

স্থানীয় সংবাদকর্মীরা মনে করেন, উপজেলায় ভূমি দখল, বাড়িঘর ভাঙচুর, দোকান থেকে চাঁদা আদায়, সরকারি খাস জায়গা দখল, উপজেলার বিভিন্ন নদী পয়েন্ট থেকে অবৈধভাবে বালু উদ্ধোলন, মাদক ব্যবসা পরিচালনা করার কাজ চিহ্নিত কয়েকজন ব্যক্তির মাধ্যমেই হয়ে থাকে।

এই কয়েকজনই একত্রিত হয়ে বিভিন্ন সময় উপজেলা কার্যালয়ে গিয়ে ইউএনওকে বিভিন্ন হুমকি-ধামকি দিতো। উপজেলার এই চিহ্নিত ব্যক্তিরা ক্ষমতাসীন দলের তথা অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মী হওয়ার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও তেমন কিছু বলতে পারত না বলেও অভিযোগ রয়েছে।

চিহ্নিত মাদকসেবী ও বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িত ক্ষমতাসীন দলের অঙ্গসংগঠনের নেতাদের স্থানীয় এক প্রভাবশালী জনপ্রতিনিধি আশ্রয় প্রশ্রয় প্রদান করেন বলে জানান অনেকেই।

স্থানীয়রা ধারনা করছেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বাসায় হামলা ঘটনায় অনেকেই জড়িত থাকতে পারে।

কারণ হিসাবে উল্লেখ স্থানীয়রা করেন- ইউএনও’র বাসায় ভেন্টিলেটর ভেঙে প্রবেশ করার আগেই নৈশ্যপ্রহরী পলাশ রায়কে একটি ঘরের মধ্যে আটকে রাখা হয়। তখনও বিদ্যুতের আলো ছিলো। আর বিদ্যুতের আলোতে পলাশ রায় স্থানীয় মানুষ হিসাবে স্থানীয় ব্যক্তিদের চিনতে পারবে। আর যদি নৈশ্যপ্রহরীকে আন্ধকার ঘরের মধ্যে আটকে রাখা হয়ে থাকে, তাহলে সেই স্থানে সে নাও থাকতে পারতো।

দুস্কৃতিকারীরা ইউএনও’র বাসায় প্রবেশের আগেই বিদ্যুত চলে যাওয়া, আবার ইউএনওকে আঘাত করার পর দুস্কৃতিকারীদের নিরাপদে চলে যাওয়ার পর আবার বিদ্যুৎ চলে আসা- বিষয়গুলো ভাববার বিষয়।

উল্লেখ্য, দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটের ইউএনও ওয়াহিদা খানম ও তার বাবা ওমর আলীর ওপর সরকারি বাসভনের ভেন্টিলেটর ভেঙে রাত ৩টার দিকে একদল দুস্কৃতিকারী হামলা চালিয়ে হাতুরী দিয়ে পিটিয়ে শরীরের বিভিন্ন অংশ থেতলিয়ে দিয়েছে।

বৃহস্পতিবার ভোরে ইউএনও ও তার বাবাকে গুরুতর আহত অবস্থায় প্রথমে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখান থেকে ইউএনও ওয়াহিদা খানমকে রংপুর কমিউনিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) নেয়া হয়। সেখানে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স অ্যান্ড হসপিটালে ভর্তি করা হয়।

নিউরোসায়েন্স হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. কাজী দীন মোহাম্মদ জানান, ওয়াহিদা খানমের অবস্থা সংকটাপন্ন। রাত ৯টায় তার মাথায় অস্ত্রোপচার করার প্রস্তুতি চলছে।

তিনি বলেন, ‘ইউএনও ওয়াহিদা খানমের মাথায় আঘাতের কারণে হাড় ভেঙে সেটা ব্রেনে ঢুকে গেছে। তার এক সাইড অবশ হয়ে আছে। তাকে আইসিইউতে রাখা হয়েছে। আমরা একটি অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। রাত ৯টার দিকে এটা করা হতে পারে।’

এ বিষয়ে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেছেন, দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানমের ওপর হামলাকারীদের গ্রেপ্তারে কাজ করছে পুলিশ।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বাসায় সিসিটিভি ক্যামেরা ছিল কিন্তু তারা মুখোশ পরা ছিল। যে দুজন দুর্বৃত্ত, তাদের মুখে মুখোশ ছিল এবং সেগুলো দেখে পর্যালোচনা চলছে, ওখানে হাই পাওয়ার টিম কাজ করছে। পুলিশের চৌকশ একটি টিম কাজ করছে। তারা আশাবাদী যে খুব দ্রুত আমাদের জানাতে পারবেন কারা এই ঘটনাটা ঘটিয়েছে। আমরা অপেক্ষা করছি।’

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়াদিহা খানমকে সবথেকে ভালো চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করা যেন যায় সে চেষ্টা করছি, এক্ষেত্রে নিউরোসায়েন্স হাসপাতাল সবথেকে ভালো। যা যা করা প্রয়োজন আমাদের পক্ষ থেকে আমরা সেটি করছি। একটু অপেক্ষা করতে হবে দুর্বৃত্তরা করা। তারা কি ডাকাতির উদ্দেশ্যে এসেছিল নাকি উদ্দেশ্যমূলকভাবে কোনো কারণে শত্রুতা তৈরি হয়ে এরকম কিছু হয়েছিল কি-না।

রংপুর বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয় থেকে ৭ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। এদিকে পুলিশ ও র‌্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা বিভিন্ন প্রযুক্তি ব্যবহার করে প্রকৃত অপরাধীকে গ্রেপ্তারের জোড় চেষ্টা চালাচ্ছেন।