ইউরোপ-আমেরিকা সম্পর্কে বিচ্ছেদের সুর

0
291

ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারাভিযানের সময় হইতেই ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন (ইইউ) নেতৃবৃন্দের মধ্যে অস্বস্তি দানা বাঁধিতেছিল। ট্রাম্প হোয়াইট হাউসে ঢুকিবার পরে সেই অস্বস্তি ক্রমশ প্রকট হইয়াছে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী সময়ে কমিউনিজম বিরোধিতাকে কেন্দ্র করিয়া অতলান্তিক মহাসাগরের দুই পাড়ের মধ্যে যেই সামরিক, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক মহামেলবন্ধন গড়িয়া উঠিয়াছিল, ট্রাম্প আমলে আসিয়া তাহার খোলনলচে অনেকখানিই পাল্টাইয়া যাইবে বলিয়া মনে হইতেছে। কয়েকদিন পূর্বে ট্রাম্পের ইউরোপ সফরকালে ন্যাটোর শীর্ষ বৈঠক ও জি ৭-এর সভাতে এই বাস্তবতা প্রকট হইয়াছে।

মূলত গোটা চারেক বিষয়ে ইউরোপ ও আমেরিকার দূরত্ব অনতিক্রম্য হইয়া পড়িয়াছে। এইগুলি হইতেছে ন্যাটো, রাশিয়া, বাণিজ্য ও জলবায়ু পরিবর্তন। ‘সর্বাগ্রে আমেরিকা’ এই হইতেছে ট্রাম্পের নীতি। এই ক্ষেত্রে জাতীয়তাবাদ, সংরক্ষণবাদ, সন্দেহবাদ হইতেছে মূল উপাদান। ট্রাম্প স্নায়ুযুদ্ধের আমলে গঠিত ন্যাটোর জন্য এন্তার খরচ করিবার মধ্যে আমেরিকার স্বার্থ খুঁজিয়া বাহির করিতে অক্ষম। তাঁহার কথা হইতেছে রাশিয়া হইতে সুরক্ষিত থাকিতে হইলে ইউরোপকে ইহার জন্য উপযুক্ত বিনিয়োগ করিতে হইবে। অর্থাত্ ন্যাটোর ব্যয়ভার বহনের ক্ষেত্রে একটি ভারসাম্য আনিতে হইবে। জলবায়ু পরিবর্তনজনিত আশঙ্কাকে তিনি নিতান্ত ফালতু বাতচিত মনে করেন। পক্ষান্তরে, জলবায়ু পরিবর্তন হইতেছে ইউরোপীয় নেতৃবৃন্দের অন্যতম আশঙ্কার জায়গা। জোট-মিত্র যাহাই হোক না কেন, ট্রাম্প দেখিতে চাহেন বাণিজ্য ক্ষেত্রে আমেরিকাই জিতিয়াছে। এইবারের সফরেও আমেরিকার সহিত বাণিজ্য-উদ্বৃত্ত অবস্থায় থাকিবার জন্য জার্মানিকে কটাক্ষ করিয়াছেন তিনি। আমেরিকার রাস্তায় মিলিয়নকে-মিলিয়ন জার্মান গাড়ি চলিবার ব্যাপারে ক্ষোভ প্রকাশ করিয়া এই অবস্থান পাল্টাইয়া দেওয়ার ঘোষণা দেন ট্রাম্প। ২০১৪ সালে ইউক্রেন হইতে ছলে-বলে ক্রিমিয়াকে রাশিয়ার অংশে পরিণত করিবার পর হইতে স্বৈরশাসক ভ্লাদিমির পুতিনকে লইয়া ইউরোপের আশঙ্কা তুঙ্গে উঠিয়াছে। কিন্তু পুতিনের আগ্রাসী নীতি লইয়া গোটা ইউরোপের শঙ্কার ব্যাপারে ট্রাম্পের কোনো মাথাব্যথা নেই। তিনি বরং সুযোগ পাইলেই পুতিনের প্রশস্তি করিয়া থাকেন।

ডোনাল্ড ট্রাম্পের সফর শেষে আমেরিকার ব্যাপারে ইউরোপের অনেকখানি মোহমুক্তি ঘটিয়াছে বলিয়া মনে হইতেছে। প্রধান শক্তি জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মার্কেল স্পষ্টতই জানাইয়া দিয়াছেন যে আমেরিকার উপরে নির্ভর করিয়া থাকিবার দিন এক্ষণে সমাপ্ত হইয়াছে। ইউরোপের দায়িত্ব ইউরোপকেই হাতে তুলিয়া লইতে হইবে বলিয়াও উল্লেখ করিয়াছেন তিনি। এইক্ষেত্রে জার্মানির একটি বড় আশার স্থল হইতেছে ফ্রান্স। উগ্র জাতীয়তাবাদী ও ইউরোপবিদ্বেষী মারি লা পেনকে হারাইয়া মধ্যপন্থি ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর নির্বাচিত হওয়াটা সকল অর্থেই ইইউ-এর আশা জিয়াইয়া দিয়াছে। বিশেষ করিয়া, ব্রিটেন ইইউ ছাড়িয়া চলিয়া গেলেও, ইইউতে অন্তত একটি পরমাণু শক্তিধর দেশ থাকিয়া যাইতেছে। উল্লেখ্য, নির্বাচনে জিতিলে ইইউ ছাড়িবার অঙ্গীকার করিয়াছিলেন লা পেন। ইতিহাস এই সাক্ষী দেয় যে, ইউরোপের প্রধান দুই শক্তি অর্থাত্ জার্মানি ও ফ্রান্স একযোগে কাজ করিতে পারিলে গোটা মহাদেশ লাভবান হয়। আশা করা যায় যে আমেরিকা ও ব্রিটেনকে বাদ দিয়া ইউরোপ নিজের মতো করিয়া অগ্রসর হইতে সক্ষম হইবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here