ইকবাল গ্রেফতার রহস্য

0
70

নিজস্ব প্রতিবেদক : সম্প্রতি অনার্স পরীক্ষা শেষ করে কক্সবাজার ট্যুরে গিয়েছিলেন তিন বন্ধু। তারা তিন জনই নোয়াখালীর চৌমুহনী এস এ কলেজের ছাত্র। ঘুরতে বেরিয়ে তারা যে রকিব হাসানের তিন গোয়েন্দার মতো তারকা বনে যাবেন, সেটা হয়তো কল্পনাতেও ছিল না।
যেভাবে ধরা পড়লেন ইকবাল

গত বুধবার (২০ অক্টোবর) কক্সবাজারের কলাতলী সমুদ্র সৈকতে ঘুরতে গিয়েছিলেন তারা। সেখানেই দেখা পান কুমিল্লার পূজামণ্ডপে কোরআন রাখার ঘটনায় সম্পৃক্ত বহুল আলোচিত ইকবাল হোসেনের। তবে, প্রথমে তারা ঠাওরাতে পারেনি। তবে, ইকবালের উদভ্রান্ত, আচার-আচরণে সন্দেহ হয় তাদের। চেনা চেনাও লাগলেও প্রথমে পাত্তা না দিয়ে, মেতে ওঠেন পড়েন সমুদ্র জলকেলিতে। এমনকি তারা ওই ব্যক্তির কথা ভুলেও যান।

পরদিন বৃহস্পতিবার (২২ অক্টোবর) আবারও ওই ব্যক্তির দেখা পান সুগন্ধা সমুদ্র সৈকতে। এদিন লোকটির অদ্ভুত আচরণ, ঘোরাঘুরির কারণে সন্দেহ ঘণীভূত হয়। একপর্যায়ে তিন বন্ধুর একবন্ধু সাজেদুর রহমানের (অনিক) কাছে লোকটিকে চেনা চেনা মনে হয়। রহস্যভেদের চেষ্টা পেয়ে বসে তাদের। পরে তাদের সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত ভিডিও এবং ছবি দেখে কুমিল্লার পূজামণ্ডপে কোরআন রাখায় শনাক্তকারী ইকবাল হোসেনের মতো মনে হয়। তবে শিওর হতে পারছিলেন না।

সাজেদুর রহমান সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, তাদের কাছে মনে হচ্ছিল কুমিল্লার পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন শরিফ রেখে আসা ব্যক্তিটিই (ইকবাল হোসেন) এই ব্যক্তি। কিন্তু পুরোপুরি নিশ্চিত হতে পারছিলাম না। এরপর নোয়াখালীর সহকারী পুলিশ সুপারের (এএসপি) নম্বরে ফোন করি। তিনি ফোন ধরলে পুরো বিষয়টি তাকে জানাই। তিনি আমাদের ফোন নম্বর রাখেন এবং পরবর্তীতে যোগাযোগ করবেন বলে জানানো হয়।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, তাদের (তিন বন্ধু) ফোনের পরে নোয়াখালীর এসপি পুরো বিষয়টি কুমিল্লার পুলিশ সুপারকে জানান। তিনি পুলিশ সুপারকে বলেন, কক্সবাজার থেকে কয়েকজন ছেলে বিষয়টি তাকে জানিয়েছেন। তবে ছেলেরা নিশ্চিত না, ইনিই ইকবাল কিনা। কিন্তু ছেলেরা জানিয়েছেন, সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত ছবির সঙ্গে এই ব্যক্তির চেহারায় অনেক মিল রয়েছে।

কুমিল্লা জেলার পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ সংবাদমাধ্যম বলেন, নোয়াখালী জেলার পুলিশ সুপার আমাকে জানান, কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত থেকে তাকে ফোন করে বলা হয়েছে ইকবালের মতো একজনকে ঘোরাফেরা করতে দেখতে পেয়েছে। তাদের (তিন বন্ধু) আমরা পুলিশ ঘটনাস্থলে না পৌঁছানো পর্যন্ত নজরদারিতে রাখতে বলি। পরে কক্সবাজার জেলার পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ইকবালকে আটক করে।

তিনি আরও জানান, সমুদ্র সৈকতে যে ছেলেরা খবরটি দিয়েছিল তাদের সঙ্গে তিনি বার বার কথা বলেছেন। ইকবালকে নজরদারিতে রাখতে বলেছেন। এরপর ছেলেরা ইকবালের সঙ্গে কথা বলেছেন।

ফারুক আহমেদ বলেন, আমি ওদের (তিন বন্ধু) কাছে জানতে চেয়েছিলাম ইকবাল কি চায়, কি করতে চায়। ওরা জানালো খেতে চায়। তখন ওদের বলেছি, খাওয়ান, যা চায় তাই দেন, পুলিশ না পৌঁছানো পর্যন্ত আটকে রাখেন। সম্ভব হলে ইকবালে ছবি ও ভিডিও পাঠাতে বলি।

ওরা ছবি ও ভিডিও পাঠালে সেই ছবি ও ভিডিও ইকবালের পরিবারের সদস্যদের দেখানো হয়। তারা নিশ্চিত করেন ছবির ব্যক্তিই ইকবাল হোসেন।

ইকবাল কোনো মোবাইল ব্যবহার করেন না। তাকে শনাক্ত করতে পুরোপুরি ‘ম্যানুয়াল’ সূত্রের ওপর নির্ভর করতে হয়েছে। ছবিই ছিল ভরসা।

ফারুক আহমেদ বলেন, ঘটনাস্থল থেকে পাওয়া ছবি পুলিশ ইকবালের পরিবারের সদস্যদের দেখায়। তারপর ই তারা মোটামুটি নিশ্চিত হয়ে যান এই সেই ইকবাল, যাকে প্রায় এক সপ্তাহ ধরে তারা হন্যে হয়ে খুঁজছেন। এরপর কক্সবাজার পুলিশ সুপারের সঙ্গে যোগাযোগ করে সেখানে ফোর্স পাঠানো হয়। ধরা পড়ে ইকবাল।

সম্প্রতি হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় পূজায় কুমিল্লার নানুয়ার দীঘিরপাড়ের অস্থায়ী একটি পূজামণ্ডপে মুসলিম সম্প্রদায়ের পবিত্র কোরআন শরিফ পাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার জেরে দেশের বিভিন্ন স্থানে সহিংসতা সৃষ্টি হয়। অনেক স্থানে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের মন্দির, ঘরবাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা ও অগ্নিসংযোগ করা হয়। কুমিল্লার পূজামণ্ডপে কোরআন রাখার ঘটনাটি তদন্ত করতে গিয়ে কয়েকট স্থানের সিসিটিভি’র ভিডিও ফুটেজ পুলিশের হাতে আসে। পরবর্তীতে সিসিটিভি’র ভিডিও ফুটেজ বিশ্লেষণের মাধ্যমে এ ঘটনায় সম্পৃক্ত ইকবাল হোসেন নামে এক যুবককে শনাক্ত করে পুলিশ।

পুলিশ তাকে আটকের সকল প্রচেষ্টা ব্যর্থ হচ্ছিলো। এমনকি কক্সবাজার থেকে গ্রেপ্তারের আগ পর্যন্ত ছোট ছোট দলে পুলিশ ৩৫ থেকে ৪০টি অভিযান করেছে। কিন্তু ইকবালকে ধরা যায়নি বলে জানিয়েছে অভিযানে সম্পৃক্ত এক পুলিশ কর্মকর্তা।

পূজামণ্ডপে ঘটনা ঘটানোর পরও ইকবাল বেশ কয়েক দিন কুমিল্লায় ছিলেন। তিনি কক্সবাজার কবে গেলেন সে সম্পর্কে পুলিশ এখনও নিশ্চিত নয়।
গতকাল রাতে কক্সবাজার থেকে তাকে আটকের পর আজ শুক্রবার দুপুরের দিকে মাইক্রোবাসে করে কুমিল্লার পুলিশ লাইনে নিয়ে এসে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি কোরআন রাখার কথা ‘স্বীকার করেছেন’ বলে জানিয়েছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক পুলিশ কর্মকর্তা জানান।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কর্মকর্তারা মনে করছেন, ইকবাল গ্রেপ্তার হওয়ায় এখন এই চক্রের সঙ্গে জড়িত সবাইকে চিহ্নিত এবং আইনের আওতায় আনা সম্ভব হবে।