ইবির ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনায় শিক্ষকসহ বহিষ্কার ৪, পরীক্ষা বাতিল

0
286

ইবি প্রতিনিধি : ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) ভর্তি পরীক্ষা ফাঁসের ঘটনায় তদন্ত সাপেক্ষ ঘটনার সাথে জড়িত এক শিক্ষকসহ ৮জনকে বহিস্কার করা হয়েছে। সেই সাথে অনুষ্ঠিত সংশ্লিষ্ঠ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে। মঙ্গলবার বিশ^বিদ্যালয়ের ২৩৩তম সিন্ডিকেট সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয় বলে ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এস এম আব্দুল লতিফ নিশ্চিত করেছেন।

বহিস্কৃতরা হলেন গনিত বিভাগের সভাপতি, সহকারী অধ্যাপক ও ‘এফ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার সমন্বয়ক নূরুল ইসলাম, হিসাব শাখার সিনিয়র অডিটর সাইফুল ইসলাম, লাইব্রেরির কর্মচারী আলাউদ্দিন ও গনিত বিভাগের ২০০৯-১০ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী ও ক্যাম্পাসে ফটোস্ট্যাট দোকানের মালিক মনোজৎ মন্ডল।

জানা গেছে, ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষায় বিজ্ঞান অনুষদভূক্ত ‘এফ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা চলাকালে প্রশ্নফাঁসের গুঞ্জন ওঠে। পরবর্তীতে বিশ^বিদ্যালয়ের প্রশাসন বিষয়টি আমলে নিয়ে গত ২৫ জানুয়ারী প্রফেসর ড. মোস্তফা কামালকে আহব্বায়ক করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে।

তদন্তের প্রেক্ষিতে বেরিয়ে আসে চাঞ্চল্যকর তথ্য। পরে তদন্ত কমিটি গত শনিবার ভিসির কাছে তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন জমা দেয়।

প্রতিবেদনে ওই ইউনিটের সমন্বয়কারী ও গনিত বিভাগের সভাপতি মোঃ নুরুল ইসলাম প্রশ্ন ফাঁসের প্রধান হোতা বলে উল্লেখ করা হয়। এছাড়াও বিশ^বিদ্যালয়ের পাশ^বর্তী এলাকার শল্য চিকিৎসক মিজানুর রহমান লাল্টুসহ বাকি তিনজন এই প্রশ্ন ফাঁসের সাথে জড়িত। জানা গেছে তারা ফাঁস করা প্রশ্নে প্রায় কোটি টাকার ভর্তি বানিজ্য করেছে।

তদন্তে জানা যায়, পরীক্ষার একমাস আগে থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শিক্ষার্থী ও বাইরের কয়েকজন মিলে প্রশ্নফাঁসের তৎপরতা শুরু করে। এমন কি তাদের মাঝে আর্থিক লেনদেন শুরু হয়।

পরীক্ষার আগে ক্যাম্পাস পার্শ্ববর্তী মিজানুর রহমান (লাল্টু ডাক্তার) তার মেয়ে জান্নাতুল ফেরদৌস শিপ্রাকে দিয়ে কুষ্টিয়ায় আন্তরিক কোচিং সেন্টার নামের একটি প্রতিষ্ঠানে তার সহপাঠী ও ভর্তিচ্ছুদের অবৈধ ভাবে ভর্তির জন্য প্রলোভন দেখায়।

বাপ ও মেয়ের প্রলোভনে কোমলমতি ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা টাকার বিনিময়ে তাদের কাছে দ্বারস্থ হয় পরীক্ষার প্রশ্ন নেওয়ার জন্য।

পরীক্ষার আগের রাতে ইউনিটের সমন্বয়কারী নুরুল ইসলাম তার ছাত্র ও ফটোকপি দোকানদার মনোজিৎ এর কাছে প্রশ্ন ও উত্তরপত্র সরবরাহ করেন। পরে সে হিসাব শাখার সিনিয়র অডিটর সাইফুল ইসলাম ও লাইব্রেরির কর্মচারী আলাউদ্দিন ও লাল্ট ডাক্তরের কাছে তা পৌছে দেয়।

বিভিন্ন স্থান থেকে আসা শিক্ষার্থীদের ভর্তির প্রলোভন দেখিয়ে তারা পরীক্ষার দিন সকালে দেড় থেকে দুই লাখ টাকার বিনিময়ে উত্তরপত্র বিক্রি করে। এমনকি মনোজিতেরে এলকায় তার ভাই সহ বেশ কিছু পরীক্ষার্থী তার থেকে উত্তর পত্র কিনে নেয়।

শুরু হয় ভর্তি পরীক্ষা। জান্নাতুল ফেরদৌস শিপ্রাও এই পরীক্ষায় অংশ নিয়ে চান্স পায়। পরীক্ষায় মনোজিতের ছোট ভাই হেরামন মন্ডল ৪র্থ হয়। পরে ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে অভিযোগ উঠলে তদন্তে নামে প্রশাসন।

এমনকি মেধায় প্রথম হওয়া কয়েকজন শিক্ষার্থীর ভর্তির সাক্ষাৎকারে তাদের সন্দেহজনক উত্তর ও তাদের এসএসসি ও এইচএসসির নম্বর পত্রে গনিতে কারোই ভালো রেজাল্ট লক্ষ করা যায় নি। এরপর তাদের ভর্তি পরীতক্ষায় আসা কয়েকটি সহজ প্রশ্ন করলেও তারা উত্তর দিতে পারে নি। তারপর সন্দেহ আরে বেড়ে যায়। অভিযোগের ভিত্তিতে ভর্তি পরীক্ষার একই প্রশ্নে গত ১৪ ফেব্রুয়ারী নেওয়া হয় পূন:পরীক্ষা। তাতে সবাই ফেল করে বলে জানা গেছে।

মঙ্গলবার সিন্ডিকেটে সকল তথ্য প্রমানের ভিত্তিতে এফ ইউনিটের সমন্বয়কারী ও গনিত বিভাগের সভাপতি ও সহকারী অধ্যাপক মোঃ নুরুল ইসলামকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। একই সাথে তাকে কেন চূড়ান্তভাবে বহিষ্কার করা হবে না সে মর্মে শোকাজ করা হয়।

উত্তরপত্র ফাঁসের অভিযোগে মনোজিত মন্ডলের ছাত্রত্ব ও তার বিশ^বিদ্যালয়ে সকল সাটিফিকেট বাতিল করা হয়েছে। অপর দুই কর্মকর্তা ও কর্মচারীকেও সাময়িক বহিস্কার করা হয়েছে। এছাড়াও পাশর্^বর্তী এলাকার ডাক্তার মিজানুর রহমান লাল্টুকে প্রচলিত আইনের আওতায় এনে বিচার করা হবে। সেই সাথে ওই ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা বাতিল করে পূনরায় ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

এব্যাপারে ভিসি প্রফেসর ড. হারুন উর রশিদ আশকরী বলেন,“বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষার ভাবমূর্তি অক্ষুন্ন রাখতে আমরা যুগান্তকারী সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছি। এই সিদ্ধান্তের মাধ্যমে প্রশ্নপত্র ফাঁসের কফিনে শেষ পেরেক ঢুকে দেওয়া হয়েছে। যা সারা দেশে একটি নজীর স্থাপন হলো।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here