ইলিশ লইয়া সতর্কবার্তা

0
214

আষাঢ় মাস শেষ হইয়া শ্রাবণ মাস শুরু হইলেও জেলেদের জালে কাঙ্ক্ষিত পরিমাণে ইলিশ ধরা পড়িতেছে না। একটি সহযোগী সংবাদপত্রে প্রকাশিত এই সংক্রান্ত প্রতিবেদন হইতে জানা যায়, ভরা মৌসুমে পদ্মা ও মেঘনা নদীতে ইলিশের আকাল দেখা দিয়াছে। ইলিশের দুষ্প্রাপ্যতার পিছনে জলবায়ুগত পরিবর্তন, নদী ভরাট, পরিবেশ দূষণ, যত্রতত্র ডুবোচর, কারেন্ট জাল, সাগরে মাছের খাদ্য সংকট এবং প্রযুক্তির নানান অপব্যবহারকেই বিশেষজ্ঞরা মূলত দায়ী করিতেছেন।

ইলিশের ওপর পরিচালিত বিশ্বখাদ্য ও কৃষি সংস্থার পুরাতন একটি সমীক্ষা হইতে জানা যায়, পৃথিবীর মোট ইলিশের ৫০ হইতে ৬০ শতাংশ বাংলাদেশের ভূখণ্ডের জলসীমায় বিচরণ করে। তাহা ছাড়া লক্ষ্মীপুরের রামগতি হইতে শুরু করিয়া ভোলা পর্যন্ত মেঘনার বিস্তৃৃত অববাহিকায় প্রতিবত্সর মা ইলিশ ডিম ছাড়ে এবং বাচ্চা-ইলিশ সেইখানেই বাড়িয়া ওঠে। প্রাণিজ ও উদ্ভিদকণার বিপুল সমাহার ও বিচরণের জন্য উন্মুক্ত থাকায় এই এলাকাকে ইলিশের খণ্ডকালীন আবাস স্থল হিসাবেও বিবেচনা করা হয়। উপরন্তু বৃষ্টিপাত শুরু হইলে প্রচুর ইলিশ এই এলাকায় আসে। কিন্তু চলতি মাসে প্রায় প্রতিদিনই বৃষ্টি হইলেও এইসব এলাকায় ইলিশের দেখা মিলিতেছে না। নদীর প্রবাহ, দূষণ ও সাগরে মাছের খাদ্যসংকট, তাপমাত্রার আধিক্য ও লবণাক্ততা বৃদ্ধি, নদীর স্রোত কমিয়া যাওয়া, নদীতে বাঁধ নির্মাণ এবং পানির গভীরতা কমিয়া যাইবার ফলে মাছের আবাসস্থল পরিবর্তন হইয়া যাওয়াকেই ইহার মুখ্য কারণ হিসাবে ভাবা হইতেছে। অন্যদিকে এখনো মেঘনার ইলিশ অভয়াশ্রমের কিছু কিছু স্থানে স্থানীয় জেলেরা নিষিদ্ধ কারেন্ট জাল ব্যবহার করিয়া প্রতিবত্সর বিপুল পরিমাণ জাটকা ধরিয়া থাকে। ইহাতে নদীতে পানি প্রবাহে বাধা সৃষ্টি হওয়াসহ যত্রতত্র পলি জমিয়া অনেক ডুবোচরেরও সৃষ্টি হইতেছে। আশঙ্কা করা হইতেছে, এই ব্যাপারে যদি দ্রুত কোনো কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা না হয়, তাহা হইলে আগামী ১০ বত্সর পর ইলিশের উত্পাদন ব্যাপক হারে হ্রাস পাইতে পারে।

ইলিশ আমাদের জাতীয় জীবনে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। পাঁচ লক্ষের অধিক মানুষ ইলিশ আহরণে সরাসরি এবং ২০ হইতে ২৫ লক্ষ মানুষ পরোক্ষভাবে জড়িত। পরিসংখ্যান মতে, দেশের মোট মত্স্য উত্পাদনে এককভাবে ইলিশের অবদান প্রায় ১৩ শতাংশ। জিডিপিতেও মাছটির অবদান প্রায় এক শতাংশের মতো। তাই ইলিশ রক্ষায় অনতিবিলম্বে যথোপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করা জরুরি। নিষিদ্ধ কারেন্ট জাল অপব্যবহার রোধে আরো কঠোর হইতে হইবে। তাহা ছাড়া যেইসব নদীতে মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন হয়, সেইসব স্থান হইতে দূষণ সৃষ্টিকারী কলকারখানা সরাইয়া ফেলিতে হইবে।

আমরা জানি, ইলিশ রক্ষায় সরকার যথেষ্ট আন্তরিক। সরকারের গৃহীত পদক্ষেপের সুফল ইতোমধ্যে দৃশ্যমান হইয়া উঠিয়াছে। তাহার পরও, ইলিশের দুষপ্রাপ্যতা লইয়া বিশেষজ্ঞরা যেসব আশঙ্কার কথা বলিয়াছেন, তাহা যাচাই করিয়া দেখা প্রয়োজন। জাটকা ও প্রজননকালীন সময়ে মা ইলিশ নিধন বন্ধ করিবার ফলে গত দেড় দশকে দেশে ইলিশের উত্পাদন বৃদ্ধি পাইয়াছে দুই লক্ষ টনেরও অধিক। ভবিষ্যতে এই অর্জনকে আরো বেগবান করিতে ইলিশ রক্ষায় নদীর নাব্যতা ফিরাইয়া আনিবার লক্ষ্যে ড্রেজিং করাসহ যাবতীয় অবৈধ ও অপরিকল্পিত স্থাপনার উচ্ছেদও অপরিহার্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here