ইসলামের গৌরব ও সভ্যতার পুনঃনির্মাতা ইমাম খোমেনী (র)

0
295

ম্যাগপাই নিউজ ডেক্স : ১৯৮৯ সালের চৌঠা জুন ইসলামী আদর্শবাদী এবং মুক্তিকামী জাগরণের কাছে এক গভীর শোকের দিন।

কারণ এই দিনে ইন্তেকাল করেছেন আধুনিক বিশ্বে কিংবদন্তীতুল্য ইসলামী বিপ্লব ও ইসলামী রাষ্ট্রের রূপকার এবং ইরানের অবিসম্বাদিত নেতা ও মুক্তিকামী জাতিগুলোর আদর্শ প্রবাদ-পুরুষ আয়াতুল্লাহিল উজমা ইমাম খোমেনী (র)। মরহুম ইমাম খোমেনী ইসলামী সভ্যতার পুনঃনির্মাতাদের মধ্যে শীর্ষস্থানীয় ব্যক্তিত্ব হিসেবে ইতিহাসে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবেন।

এই মহান নেতার মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে সবাইকে জানাচ্ছি গভীর শোক ও সমবেদনা।

ইসলামী বিপ্লবের সফল নেতা হিসেবে ইমাম খোমেনী (র.)‘র আবির্ভাব আধুনিক বিশ্ব-ইতিহাসে ও বিশ্ব রাজনীতিতে এক বড় ভূমিকম্প। তিনিই আধুনিক যুগে প্রথমবারের মত ধর্মনিরপেক্ষ পশ্চিমা সংস্কৃতির কর্তৃত্ব ও আধিপত্যকে চ্যালেঞ্জ করেছেন। খোদা-বিমুখ প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যের কথিত পরাশক্তিগুলোর আধিপত্যকে অবজ্ঞা করে তিনি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ইসলামকে তুলে ধরেছেন সমসাময়িক যুগের সবচেয়ে প্রভাবশালী ও চ্যালেঞ্জিং শক্তি হিসেবে। বিশেষ করে তাঁর নেতৃত্বে মার্কিন সাম্রাজ্যবাদী শক্তির প্রতি ইরানি জাতির প্রবল চপেটাঘাত বিশ্ব-সাম্রাজ্যবাদী শক্তি-বলয় তথা ইবলিসি শক্তিগুলোর একাধিপত্যকে নড়বড়ে করে দিয়েছে। বিগত হাজার বছরের ইতিহাসে ইসলামী শক্তির এমন প্রবল উত্থান এবং ইসলামের গৌরবময় পতাকার এত উচ্চতর অবস্থান আর কখনও ঘটেনি।

“ইসলাম ধর্ম মেনেই স্বাধীনতা অর্জন” ছিল ইরানের ইসলামি বিপ্লবের আন্তর্জাতিক বার্তা। অথচ সমাজবাদী ও লিবারেল রাষ্ট্র ব্যবস্থার কর্তৃত্বাধীন আধুনিক বিশ্ব-ব্যবস্থায় ধর্মীয় আইন-ভিত্তিক সমাজ-ব্যবস্থার কথা কেউ কল্পনাও করেনি।

প্রখ্যাত ব্রিটিশ সমাজ বিজ্ঞানী এন্টোনি গিডেনস বলেছেন,” কার্ল মার্কস, দুরখিইম ও ভেবেরের মত বিখ্যাত সমাজবিজ্ঞানীরা বলতেন মানব জীবন থেকে ধর্ম আস্তে আস্তে বাদ পড়ে যাচ্ছে এবং সেক্যুলারজিম বা ধর্মহীনতা ধর্মের যায়গাটি দখল করে নিচ্ছে। কিন্তু আশির দশকে ইরানের ইসলামী বিপ্লবের বিজয়ের পর আমরা ঐসব চিন্তাবিদের ভবিষ্যদ্বাণীর বিপরীত স্রোতধারা লক্ষ্য করেছি।

ইরানের ইসলামী বিপ্লবের নেতা ইমাম খোমেনী (র.) ছিলেন প্রজ্ঞাবান, সাহসী ও অকুতোভয়। এ ছিল এই বিপ্লবের এক বিরল সৌভাগ্য। নবী-বংশের রক্তধারী এই ইমাম ছিলেন সময়ের গতি-প্রকৃতি অনুধাবনে সক্ষম। সাধারণ মানুষের প্রতি তাঁর সহমর্মিতা ও আকুতি ইসলামী জাগরণকে করেছে বেগবান। তাঁর নেতৃত্বের কারণেই ইরানি জাতি পরাশক্তিগুলোর প্রভাব এবং অবসাদ ও হতাশার মত শয়তানী শক্তিগুলোকে পরাজিত করতে সক্ষম হয়েছে। ইমাম ছিলেন দ্বিধাহীন ও নিঃশঙ্ক আত্মত্যাগের এক প্রোজ্জ্বল দৃষ্টান্ত।

ইমাম খোমেনী (র.)’র ব্যাপক দূরদৃষ্টি ও ইস্পাত-কঠিন খোদায়ী সংকল্প তাঁকে দিয়েছে কিংবদন্তীতুল্য জনপ্রিয়তা। কেবল তাঁর নামই কিংবা তাঁর মুখনিঃসৃত প্রতিটি কথায় টগবগ করে উঠত বিপ্লবী জনতার রক্ত এবং হৃদয়। আর এই সব কিছুরই প্রধান কারণ হল ইমাম তাঁর কর্মতৎপরতা, কর্মকৌশল ও আচার-আচরণে বিশ্বনবী (সা.)’র প্রকৃত সুন্নাত অনুসরণ করেছেন এবং খাঁটি মুহাম্মাদি ইসলামের চেতনায় জাগিয়ে তুলেছিলেন ইরানের আলেম সমাজ ও জনগণকে।

মরহুম ইমাম খোমেনী প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যের সাংস্কৃতিক চিন্তাধারা বা মতাদর্শের মোকাবেলায় ইরানের মুসলিম সমাজে বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.)’র আদর্শকে প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টা করেছেন। ইমামের খোদাভীতি ও একনিষ্ঠতাও ছিল বিশ্বনবী (সা.)’র নুরানি আদর্শের প্রতিফলন। ফলে তাঁর নেতৃত্ব বা দিক-নির্দেশনার সুবাদে ঈমান ও আধ্যাত্মিকতার প্রেরণায় ইরানি জাতি এতটা উজ্জীবিত হয়েছিল যে তাদের সব স্তরে, বিশেষ করে যুব সমাজের মধ্যে জিহাদ ও শাহাদতের সংস্কৃতির বিস্ময়কর প্রভাব বিশ্ববাসীকে অভিভূত করে।

ইরানের ইসলামী বিপ্লবের রূপকার ইমাম খোমেনী (রহ.) একাধারে এমন একটি ঐতিহ্যের উত্তরসূরি ও এই ধারার সফল পরিপূর্ণতাদানকারী যে ধারার আলোকে ইরানের আলেম, জনগণ এবং এমনকি বুদ্ধিজীবী সম্প্রদায়েরও সবাইই মুজতাহিদ ফকিহদের আনুগত্য করতেন।

ইরানের ঐতিহ্যবাহী আলেমগণ সুপ্রাচীন কাল থেকেই জনগণের বাস্তব সমস্যা সমাধানে ভূমিকা রাখতেন ও জনগণকে প্রয়োজনীয় দিক-নির্দেশনা দিতেন।

অবশ্য ইমাম খোমেনী (র.) যোগ্যতা ও অবদানের দিক থেকে সমসাময়িক যুগের সব মুজতাহিদকে ছাড়িয়ে গেছেন, যদিও অতীতের মুজতাহিদদের সংগ্রাম বা আন্দোলনগুলো চূড়ান্ত রূপ লাভ করে ইমামের নেতৃত্বে। এ প্রসঙ্গে ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ডক্টর হামিদ আলগার বলেছেন:
“আয়াতুল্লাহ খোমেনী (র.)’র কাছে যাওয়ার সুযোগ যাদের হয়েছে তারা জানেন যে তিনি মানবাদর্শের এক মূর্ত প্রতীক। তিনি কেবল নৈতিক, বুদ্ধিবৃত্তিক, রাজনৈতিক ও আধ্যাত্মিক যোগ্যতার এক অপূর্ব সমন্বয়ের মাধ্যমে ইরানে এরূপ বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখতে সক্ষম হয়েছেন। তিনি প্রচলিত মারজা-ই-তাকলিদের তথা অনুসরণযোগ্য মারজা’র সীমা ছাড়িয়ে গেছেন। …..একজন মুসলমানকে দেখতে হবে ইমাম খোমেনীর নেতৃত্বের ধরণের প্রতি যার মাধ্যমে তিনি বিপ্লবে নৈতিক ও আধ্যাত্মিক গতি দান করেছেন। ….. ………এটা এখন উল্লেখযোগ্য এক দৃষ্টান্ত যে রাজনৈতিক ক্ষেত্রে বিপ্লব পরিচালনায় তিনি যে অবদান রেখেছেন তা সাম্প্রতিককালের ইতিহাসে অতুলনীয় এবং সে ভূমিকা পণ্ডিত, দার্শনিক ও আধ্যাত্মবাদী হিসেবে তার পরিচিতিকে ছাড়িয়ে গেছে। আধুনিক মুসলিম মানসিকতা-সম্পন্ন লোকেরা মনে করেন, দর্শন ও আধ্যাত্মবাদ বাস্তবতা-বহির্ভূত, সামাজিক ও রাজনৈতিক ভূমিকায় অপ্রযোজ্য এবং তা এমনি এক অবাস্তব জিনিস যার সাথে মুসলিম ও ইসলামী বিশ্বের বিরাজমান সমস্যার কোনো সম্পর্ক নেই। আয়াতুল্লাহ খোমেনী এ ধারণার বিরুদ্ধে এক জীবন্ত উদাহরণ। তাঁর কাজ এ দুটি ধারণার মধ্যে সমন্বয় ঘটিয়েছে। তিনি যে বিপ্লব করেছেন তা শুধু যে রাজনৈতিক ও কৌশলগত ব্যাপার ছিল তা নয়, আধ্যাত্মবাদের এক অন্তর্নিহিত শক্তির মাধ্যমেও তা নিখুঁত-নির্ভুলভাবে পরিচালিত হয়েছে। … …. ১৯৭৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে তিনি দেশে ফিরে আসলেন। কিন্তু তিনি সাথে করে কোনো সম্পদ নিয়ে এলেন না। কোনো রাজনৈতিক দলও তিনি গঠন করেননি। কোনো গেরিলা যুদ্ধও পরিচালনা করেননি। কোনো বিদেশী শক্তির সাহায্যও তিনি নিলেন না। অথচ এর মধ্যেই তিনি ইসলামী আন্দোলনের তর্কাতীত নেতৃত্বে সমাসীন হলেন। ”

ইমাম খোমেনীর ছিল অত্যন্ত শক্তিশালী ইচ্ছাশক্তি। ফলে তিনি ছিলেন আপোষহীন। সবাই তাকে কিছুটা নমনীয় ও কম উচ্চকিত হওয়ার পরামর্শ দিলেও তিনি কখনও আপোষ করতেন না।

সবাই যখন মরহুম ইমাম খোমেনীকে পরামর্শ দিচ্ছিলেন ইহুদিবাদী ইসরাইলের সঙ্গে ইরানের রাষ্ট্রীয় ও কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন না করার তখন তিনি তাদের এই উপদেশে কান দেননি। অনেক ইরানিও এ পরামর্শ দিয়েছিলেন তাকে। তাদের যুক্তি ছিল এটা যে যখন বিশ্বের বৃহত্তম অনারব সুন্নি রাষ্ট্র তুরস্ক ইহুদিবাদী ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক রাখছে এবং এই দখলদার ও বর্ণবাদী শাসকগোষ্ঠীর সঙ্গে সম্পর্ক রাখছে বিশ্বের বৃহত্তম আরব রাষ্ট্র মিশরও তখন আমরা কেন আমাদের দেশকে বিপদের দিকে ঠেলে দেব? কিন্তু ইমাম খোমেনী তাদের এ পরামর্শে কান না দিয়ে ইসরাইলের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করলেন। .. আর এটাই হল ইসলামের ইচ্ছাশক্তি যা আপোষহীন ও অদম্য। আর এই মহান ব্যক্তিকেই উপহার দিয়েছে ইসলাম ও মুসলমানরা বিশ্বের কাছে।

হযরত ইমাম হুসাইন (আ.)’র নেতৃত্বে সংঘটিত মহান কারবালা বিপ্লবের অনন্য আত্মত্যাগের দর্শন ও শিক্ষার পুনরুজ্জীবন ইমাম খোমেনীর সাফল্যের আরেকটি বড় কারণ।

ইমাম খোমেনী (র.) নারীর মর্যাদা পুনঃপ্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে বিশ্বনবী (সা.)’র আদর্শকে তুলে ধরতেন। তিনি বলেছেন,“ নারীর গৃহস্থালি ভূমিকাকে ছোট মনে করবেন না, সন্তানকে সুশিক্ষিত করা সমাজের জন্য বড় ধরনের খেদমত। নারীর ভালবাসা অন্যদের চেয়ে বেশি এবং তাদের স্নেহ ও ভালবাসাই পরিবারকে জোরদার ও স্থায়ী করে।

শিশুদেরকে স্নেহ করা ও তাদের ব্যক্তিত্বকে সম্মান দেয়ার ক্ষেত্রেও ইমাম খোমেনী (র) ছিলেন বিশ্বনবী (সা)’র আদর্শের অনুসারী।

মরহুম ইমাম খোমেনী (র.) ছিলেন অনাড়ম্বর জীবন-যাপনে অভ্যস্ত। ছাত্র জীবনে, কিংবা বিশ্বের মুসলমানদের বিশিষ্ট নেতা হওয়ার সময় এবং রাষ্ট্রের কর্ণধার থাকাকালে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি বিশ্বনবী (সা.)’র এই সুন্নাত মেনে চলেছেন। বিশ্বের বড় বড় দেশের নেতা ও রাষ্ট্রীয় প্রতিনিধিরা ইমামের বাসভবনের অতি সাধারণ অবস্থা দেখে বিস্মিত হতেন।

বিশ্ব ইতিহাসের গতি পরিবর্তনকারী এক অসাধারণ, বরেণ্য ও শক্তিশালী নেতা হওয়া সত্ত্বেও ইমাম ছিলেন সদালাপী, অত্যন্ত বিনয়ী ও নিরহংকার। তিনি কখনও ক্ষিপ্ত হতেন না। বরং মানুষের সঙ্গে রসিকতাও করতেন। তিনি বলতেন, আমি জনগণের একজন সেবক মাত্র, আমাকে নেতা না বলে সেবক বলাই ভাল হবে।

বৃদ্ধ হওয়ার কারণে সরাসরি জিহাদে অংশ নিতে না পারার জন্য তিনি মুজাহিদদের কাছে নিজের গভীর লজ্জার কথা উল্লেখ করতেন। ইমাম কিশোর মুজাহিদ ও শহীদ হোসাইন ফাহমিদের প্রশংসা করে নিজের বিনয় প্রকাশ করেছিলেন এভাবে:

“১২ বছরের এই কিশোর আমাদের নেতা, তার ক্ষুদ্র হৃদয়টির দাম আমাদের শত শত বক্তব্য ও কলমের চেয়ে মূল্যবান; সে তার ক্ষুদ্র বুকে গ্রেনেড পেতে শত্রুর ট্যাংকের নীচে শুয়ে ট্যাংকটি ধ্বংস করে শাহাদতের শরবত পান করেছে।”

আল্লাহর প্রতি ইমাম খোমেনী (র.)’র সুগভীর নির্ভরতা থেকে উদ্ভূত তাঁর নানা বক্তব্য এবং এই গভীর আস্থার ফলে সৃষ্ট তাঁর সদা-প্রশান্ত চিত্ত পরিদর্শকদের মুগ্ধ করত। তাই বাহ্যিক দৃষ্টিতে ইমামের অনেক কথা খুব সাধারণ মনে হলেও শ্রোতাদের মধ্যে তা গভীর প্রভাব ফেলত।

ইমাম খোমেনীর ডাকে সাড়া দিয়েই ইরানি জাতি ৮ বছরের পবিত্র প্রতিরক্ষার এক অনন্য নজির গড়ে তোলে যা ইরানকে দিয়েছে অনন্য বিজয়, মর্যাদা এবং সামরিক স্বনির্ভরতা ও সাম্রাজ্যবাদীদের বুকে কাঁপন-ধরানো জিহাদের অমর গৌরব।

ইমাম খোমেনী (র) সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে মুসলিম জাতিগুলোকে জাগিয়ে তোলার জন্য সক্রিয় ছিলেন। আধুনিক যুগে ইসলামী ঐক্যের প্রধান রূপকার হিসেবে তিনি ভূমিকা রেখেছেন। মুসলিম বিশ্বের প্রধান সংকট সমাধানের লক্ষ্যে তথা মুসলমানদের প্রথম কিবলা আল-আকসাকে পুনরুদ্ধারের জন্য তিনি প্রবর্তন করেন বিশ্ব-কুদস দিবস যা পালন করা হয় প্রতি বছর রমজানের শেষ শুক্রবারে। তাঁরই আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে গড়ে উঠেছে ইসরাইল বিরোধী অদম্য বিজয়ী শক্তি লেবাননের হিজবুল্লাহ এবং ফিলিস্তিনের ইসলামী জিহাদ ও হামাস।

পবিত্র কুরআন ও বিশ্বনবী (সা)’র প্রতি অবমাননাকারী কুখ্যাত মুরতাদ সালমান রুশদির বিরুদ্ধে মৃত্যুদণ্ডের ঐতিহাসিক ফতোয়া দিয়ে ইমাম পাশ্চাত্যের সাংস্কৃতিক ক্রুসেডের দাঁতভাঙ্গা জবাব দিয়েছিলেন। বিশ্বনবীর (সা) সুন্নাত অনুসরণ করেই ইমাম তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের শেষ নেতা গর্বাচেভের কাছে ইসলামের দাওয়াত পাঠিয়েছিলেন এবং সমাজতন্ত্র জাদুঘরে স্থান পাবে বলে ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন। ইমামের ওই ভবিষ্যদ্বাণী কয়েক বছরের মধ্যেই সফল হয়েছিল। এভাবে ইমাম খোমেনী হয়ে আছেন ইসলামের ইতিহাস ও মুসলিম বিশ্বের এক অমর নেতা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here