ঈদঅর্থনীতি

0
230

পবিত্র রমজান মাসের দশটি দিনও পার হয় নাই। ইহার মধ্যেই জমিয়া উঠিতে শুরু করিয়াছে রাজধানীসহ সারাদেশের ঈদের বাজার। অভিজাত মার্কেট ও শপিংমল হইতে শুরু করিয়া পাড়া-মহল্লার ছোট-বড় বিপণি বিতান ও ফুটপাতের দোকানগুলিতেও ক্রেতাদের ভিড় এখন বাড়িতেছে ক্রমশ। কেহ কেহ রাজধানীর অসহনীয় যানজট এড়াইতে রমজানের কয়েক দিন আগে হইতেই কেনাকাটা শেষ করিয়া ফেলিয়াছেন। পুরাতন ঢাকার পাইকারি মার্কেটগুলিতে শবেবরাতের পর হইতেই শুরু হয় ঈদের আমেজ। ঈদকে সম্মুখে রাখিয়া সাজ সাজ রব এখন বিদেশি ব্র্যান্ড ও আউটলেটগুলিতেও। অনলাইনভিত্তিক পোশাক ও গিফট আইটেম বিক্রির প্রতিষ্ঠান এবং বুটিকসের দোকানগুলিতেও ব্যস্ততার অন্ত নাই। ডিজাইন আর ফ্যাশন হাউজগুলির প্রচারণার জন্য বাড়িয়া গিয়াছে মিডিয়াকেন্দ্রিক যোগাযোগ ও কর্মকাণ্ডও। শশব্যস্ত টেইলার্স ও জুতার দোকানগুলি। এমনকি আতর, টুপি, জায়নামাজ ও তসবিহ কেনার দোকানগুলিও এখন সরগরম।

বেশ আগেভাগেই ঈদের কেনাকাটার ধুম পড়িয়া যাইবার প্রেক্ষিতে প্রমাণিত হয়, এই দেশের মানুষের হাতে রহিয়াছে পর্যাপ্ত অর্থ-কড়ি। কেহ কেহ ঈদের বোনাসের অপেক্ষা না করিয়াই ঈদের মার্কেটগুলিতে ভিড় জমাইতে শুরু করিয়াছেন। বাঙালি মুসলমানদের প্রধান দুইটি ধর্মীয় উত্সব হইল ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহা। তবে ঈদুল ফিতরেই ঈদের এই কেনাকাটার ব্যস্ততা বেশি থাকে। বলিতে গেলে এই মাসটিই এই শ্রেণির ব্যবসায়ীদের আয়ের প্রধান মৌসুম। প্রতি বত্সরই পোশাক-আশাকের ক্ষেত্রে আসে নূতন কালেকশন। এইসব কালেকশন যেমন বাহারি, তেমনি চিত্তাকর্ষক। নূতন নূতন ডিজাইনে ক্রেতাগণ মোহিত ও পুলকিত হন। এইজন্য থাকে মূল্যছাড়, বিশেষ ছাড় বা র্যাফেল ড্রয়ের ব্যবস্থাও। ঈদুল ফিতর উপলক্ষে সারাদেশে রমজান মাস ব্যাপী বসে জামদানি ও তাঁত বস্ত্রমেলা। এই উপলক্ষে নারীর সাজ-গোছ, আসবাবপত্র ও গৃহসজ্জার নানা পণ্যের চাহিদা বাড়িয়া যায় বহুগুণ।

ব্যবসায়ীদের হিসাব অনুযায়ী এবার ঈদকে কেন্দ্র করিয়া ৩০ হাজার কোটি টাকার পণ্য বিক্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা গ্রহণ করা হইয়াছে। কেবল রাজধানীর ঈদ বাজারেই বিনিয়োগের পরিমাণ ১৫ হইতে ২০ হাজার কোটি টাকা। তবে সদ্য ঘোষিত বাজেটের কারণে তাহাদের এই লক্ষ্যমাত্রা অর্জন কতটা পূরণ হইবে তাহা নিশ্চিত করিয়া বলা যায় না। কেননা ব্যবসায়ীদের আশঙ্কা, অতিরিক্ত ভ্যাট আরোপের কারণে তাহাদের পণ্যমূল্য বৃদ্ধি পাইলে ঈদের কেনাকাটায় তাহার নেতিবাচক প্রভাব পড়াটা অমূলক নহে। তাহারা চাহেন যানজটমুক্ত শহর ও পর্যাপ্ত নিরাপত্তা। চাহেন দোকান খুলিয়া রাখা নিয়া এবারও যাহাতে অযাচিত হস্তক্ষেপ না হয়। আমরা আশা করি, ঈদের অর্থনীতিতে গতিশীল হইবে আমাদের জাতীয় অর্থনীতি। আর এই ঈদে ক্রেতা ও বিক্রেতা উভয়ের মুখে ফুটুক অনাবিল হাসি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here