ঈদের টানা চারদিন ছুটি শেষে বেনাপোল বন্দরে আবারো ফিরেছে কর্মব্যস্ততা

0
38

আরিফুজ্জামান আরিফ।।টানা চারদিন ঈদ ছুটি শেষে বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারতের পেট্রাপোল বন্দরের মধ্যে আবারো শুরু হয়েছে আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম।

শনিবার (২৪ জুলাই) সকাল থেকে দুই দেশের মধ্যে এ বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু হয়। এতে নিস্তেজ হয়ে পড়া বন্দরে আবারো কর্মব্যস্ততা ফিরেছে।বেনাপোল বন্দরে ফিরেছে কর্মব্যস্ততা।এর আগে গত মঙ্গলবার থেকে শুক্রবার পর্যন্ত ৪ দিন ঈদ ছুটিতে বন্দর বন্ধ ছিল।

বেনাপোল বন্দরের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক আব্দুল জলিল জানান, ঈদ ছুটিতে বেনাপোল বন্দরে বাণিজ্য বন্ধ ছিল। এ সময় অক্সিজেন ছাড়া অন্য কোনো পণ্য আমদানি হয়নি। শনিবার ছুটি শেষে আবারো দুই দেশের মধ্যে আমদানি-রপ্তানি শুরু হয়েছে।

বন্দরের কর্মকর্তা-কর্মচারী যারা ছুটিতে গিয়েছিলেন সবাই কর্মস্থলে যোগ দিয়েছে। ব্যবসায়ীরা যাতে বন্দর থেকে আমদানি-রপ্তানি পণ্য দ্রুত খালাস নিতে পারেন সংশ্লি
ষ্ট সবাইকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

বেনাপোল কাস্টমস কমিশনার আজিজুর রহমান জানান, ঈদের ছুটির মধ্যেও জরুরি আক্সিজেন আমদানি হয়েছে। শনিবার সকাল থেকে সব ধরনের পণ্যের আমদানি শুরু হয়েছে। যথাযথ নিয়মে সরকারের রাজস্ব আদায়ের মাধ্যমে কাস্টমস সদস্যরা পণ্য খালাস কার্যক্রম সম্পাদন করছেন।

তিনি আরও জানান, করোনাকালে দেশের অর্থনীতি সচল ও পণ্য সরবরাহের ক্ষেত্রে আমদানি-রপ্তানি পণ্য ছাড় করাতে কাস্টমস হাউজ যথাযথ স্বাস্থ্য বিধি মেনে নিরলস ভাবে কাজ করে আসছে।

জানা গেছে, প্রতিদিন বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারত থেকে প্রায় সাড়ে ৪শ ট্রাকে বিভিন্ন ধরনের পণ্য বেনাপোল বন্দরে প্রবেশ করে। যা থেকে সরকারের ২০ থেকে ৪০ কোটি পর্যন্ত রাজস্ব আসে।

প্রতিবছর ভারত থেকে আমদানির পরিমাণ প্রায় ৪০ হাজার মে.টন বিভিন্ন ধরনের পণ্য। বছরে রাজস্ব আয়ের পরিমাণ প্রায় ৫ হাজার কোটি টাকা।

এ ছাড়া প্রতিদিন বাংলাদেশি প্রায় দেড়শ ট্রাক পণ্য রপ্তানি হয় ভারতে। বছরে রপ্তানির পরিমাণ প্রায় ৮ হাজার মে.টন। বর্তমানে সরকারি আর সপ্তাহিক ছুটির দিন ছাড়া অনান্য দিনে ২৪ ঘণ্টা চলে বন্দর ও কাস্টমসে বাণিজ্যিক কার্যক্রম। আমদানি পণ্যের মধ্যে গার্মেন্টস, কেমিকাল, তুলা, মাছ, মেশিনারিজ ও শিশু খাদ্য উল্লেখ যোগ্য। রপ্তানি পণ্যের মধ্যে বেশির ভাগ পাট ও পাটজাত দ্রব্য।