ঈদ উপলক্ষে টিপটাপ বৃষ্টি উপেক্ষা করে রাজগঞ্জে দুইটি ভাসমান সেতু দেখতে দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড়

0
47

উত্তম চক্রবর্তী,মণিরামপুর(যশোর)অফিস : যশোর জেলার মণিরামপুর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী এলাকা রাজগঞ্জের অপরূপ সুন্দরয্যের দর্শনীয় স্থান ঝাঁপা বাঁওড়ের উপর নির্মিত দেশের সর্ববৃহৎ ভাসমান সেতু দেখতে দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড় দেখা গেছে। রাজাগঞ্জ বাজার সংলগ্ন ঝাঁপা বাঁওড়ের উপর নির্মিত জেলা প্রশাসক ভাসমান সেতু এবং অপরটি মোবারকপুরে ঝাঁপা গুরুচরণ খেয়াঘাটের ঝাঁপা বাঁওড়ের উপর নির্মিত বঙ্গবন্ধু ভাসমান সেতু। ঈদুল আযহার ছুটিতে ভাসমান সেতু দুইটি দেখতে দূরদূরান্ত থেকে ছোট বড় বৃদ্ধ সব বয়সের নারী-পুরুষ বিভিন্ন যানবহন যোগে এসে ভিড় করছে এই সেতু দুটি দেখার জন্য।
ঈদের তৃতীয় দিন বুধবার সরেজমিনে দেখাগেছে, দুইটি সেতুতে শত শত বিনোদন প্রেমীরা ভিড় করেছে। বৃষ্টিও দর্শনার্থীদের আটকাতে পারেনি। টিপটাপ বৃষ্টিতে ভিজে অনেকে সেতু দেখছেন। অনেকেই সেতুর উপর সেলফি তুলতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। উঠতি বয়সী যুবকেরা মোটর সাইকেল নিয়ে সেতুতে ছবি তুলছেন। অনেক সময় মোটরসাইকেলের ভিড়ে সেতুতে জ্যাম লেগে যাচ্ছে। ভাসমান সেতুকে কেন্দ্র করে দর্শনার্থীদের আকর্ষণ করতে ঝাঁপায় সেতুর পশ্চিমপ্রান্তে গড়ে তুলেছে পার্কসহ মিনি চিড়িয়াখানা। ঝাঁপা বাঁওড়ের তীরে কেউ কেউ তৈরি করেছেন মিনি রেস্টুরেন্ট। তবে সেতুতে যাওয়ার রাস্তা সরু হওয়ায় অনেক সময় রাস্তায় যানজট সৃষ্টি হয়।
ঝাঁপা গ্রামের ছোট ছোট শিশুরা অনেকেই এই ভাসমান সেতু এলাকাকে পার্ক বলেও অভিহিত করছেন। বঙ্গবন্ধু ভাসমান সেতুর উপর দিয়ে অনায়াসে এ্যাম্বুলেন্স, মাইক্রো, প্রাইভেট, মোটরসাইকেল, ইজিবাইক ও লেগুনা পারাপার করা যায়। যশোর জেলার মণিরামপুর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী এলাকা রাজগঞ্জে এই ভাসমান সেতুকে কেন্দ্র করে হতে চলেছে একটি অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র। এজন্য সরকার প্রয়োজনীয় পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। সেতু দেখতে আসা পর্যটকদের সার্বিক সহযোগিতায় রয়েছে স্থানীয় প্রশাসনের নজরদারি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here