ঈদ মোবারক আস-সালাম

0
361
আজ ২৯ রমজান সন্ধ্যায় শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা দিলে আগামীকাল সোমবার সারাদেশে উদযাপিত হইবে পবিত্র ঈদুল ফিতর। নতুবা মুসলমানদের অন্যতম বড় ধর্মীয় এই উত্সব উদযাপিত হইবে পরের দিন মঙ্গলবার। দীর্ঘ এক মাস রমজানের সিয়াম সাধনার পর নূতন মাসের এই নূতন চাঁদ নিয়া আসে অনাবিল সুখ ও আনন্দ। চারিদিকে ধ্বনিত হয় ঈদের আগমনী বার্তা ‘ঈদ মোবারক’।
মহানবী (স) মক্কা হইতে মদীনায় হিজরত করিয়া দেখিতে পাইলেন, মদীনাবাসী নাচ, গান, খেলাধুলা ইত্যাদির মাধ্যমে ‘নওরোজ’ ও ‘মিহিরজান’ নামে দুইটি উত্সব পালন করিতেছে। নবীজী (স) এই লক্ষ্যহীন আনন্দ উত্সবের পরিবর্তে মুসলমানদের জন্য আত্মশুদ্ধির পবিত্র স্পর্শমণ্ডিত ও বহুবিধ কল্যাণধর্মী ঈদুল ফিতরের ঘোষণা দিলেন। বলিলেন, লিকুল্লি কওমিন ঈদ। হা-জা ঈদুনা। অর্থাত্ প্রত্যেক জাতির বাত্সরিক আনন্দ উত্সব আছে। এই ঈদ হইতেছে আমাদের জন্য সেই আনন্দ উত্সবের দিন। এভাবে হিজরি দ্বিতীয় বর্ষে মুসলিম জীবনে প্রবর্তিত হয় ঈদ। আরবি এই ‘ঈদ’ শব্দটির শব্দমূল ‘আউদ’, অর্থ এমন উত্সব যাহা বারবার ফিরিয়া আসে। ইহার ব্যবহারিক অর্থ খুশি-আনন্দ। অন্যদিকে ‘ফিতর’ শব্দের অর্থ ভাঙিয়া দেওয়া। এই দৃষ্টিতে ঈদুল ফিতর অর্থ রোজা ভাঙার আনন্দ উত্সব। ফিতরের আরেক অর্থ বিজয়। এক মাস রোজা রাখিয়া ধর্মপ্রাণ মানুষ তাহার ষড়রিপুকে দমন করিবার মাধ্যমে এক রকমের বিজয় অর্জন করেন।  এইভাবে দেখিলে ঈদুল ফিতরকে বলা যায় বিজয় উত্সবও।
মুসলিম সমাজে এই ঈদুল ফিতরের আধ্যাত্মিক ও সামাজিক গুরুত্ব অপরিসীম। এক মাস রোজা পালন ও তারাবিহ-তাহাজ্জুদ নামাজ আদায়, কোরআন তিলাওয়াত, তাসবিহ-তাহলিল, যাকাত-ফিতরা প্রদান প্রভৃতি ইবাদত-বন্দেগি করার ফলে রোজাদারের জীবন পুণ্যে পরিপূর্ণ হইয়া ওঠে। লাইলাতুল কদর, জুমাতুল বিদা ও চাঁদরাতে তথা ঈদের রাত্রেও তিনি ইবাদতে নিয়োজিত থাকেন। এভাবে যখন ঈদের সকাল উপস্থিত হয়, তখন তিনি নব জন্মলাভ করেন। তিনি পরিণত হন মাসুম তথা নিষ্পাপ ব্যক্তিতে। ফলে তাহার মনে যে স্বর্গীয় আনন্দ অনুভূত হয় তাহা তুলনাহীন। এইজন্য ঈদের দিন ফেরেশতারা রাস্তার মোড়ে মোড়ে দাঁড়াইয়া রোজাদারদের অভিনন্দন জানাইতে থাকেন। অন্যদিকে ঈদুল ফিতরের দিন রোজাদারগণ ফিতরা দিতে দিতে ঈদগাহ মাঠে অগ্রসর হন। তাহার দানে গরিব-দুখী মানুষের মুখে হাসি ফুটিয়া ওঠে। ঈদের দিনে ধনী-গরিব, বাদশা-ফকির, মালিক-শ্রমিক নির্বিশেষে সব মুসলমান এক কাতারে ঈদের নামাজ আদায় ও একে অপরের সঙ্গে কোলাকুলি করিয়া ঐক্য ও সাম্যের জয়ধ্বনি করেন। এই ঈদে এক রাস্তা দিয়া ঈদগাহে গিয়া অন্য রাস্তা দিয়া বাড়ি ফিরিয়া আসা সুন্নত যাহাতে সকলের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় ও খোঁজ-খবর নেওয়া সহজ হয়। পবিত্র এই দিনে সকল প্রকার বিবাদ, কলহ্ ও হানাহানি হইতে দূরে থাকিবার অঙ্গীকার করেন রোজাদারগণ। ফলে ভ্রাতৃত্ব, সৌহার্দ্য, ত্যাগ-তিতিক্ষা ও আত্মসংযমের শিক্ষায় মুসলিম সমাজ হয় সুসংহত।
পরিশেষে ঈদুল ফিতর উপলক্ষে আমরা সকলের সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করি। কামনা করি হাসি-খুশি ও ঈদের আনন্দে ভরিয়া উঠুক প্রতিটি প্রাণ। ব্যক্তি, পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রীয় জীবনে সংযম, সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতির পরিবেশ পরিব্যাপ্তি লাভ করুক। আমাদের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ভাষায় সবাইকে জানাই ঈদের শুভেচ্ছা— ‘পথে পথে আজ হাঁকিব, বন্ধু, ঈদ মোবারক আস্-সালাম।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here