উত্তর কোরিয়া অভিমুখে রণতরী

0
223

একদিকে যখন ক্ষেপণাস্ত্র হামলা আর রাসায়নিক গ্যাস বোমায় সিরিয়ার বেশ কয়েকটি এলাকা লণ্ডভণ্ড হইতেছে আর পরাশক্তিদের আক্রমণাত্মক ভূমিকায় তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের আশঙ্কায় বিশ্ববাসীর বুক দুরুদুরু করিতেছে, ঠিক তখনই আবার কোরীয় উপসাগর অভিমুখে যুক্তরাষ্ট্রের রণতরী ধাবমান দেখা যাইতেছে। সন্দেহ নাই যে সাম্প্রতিককালে উত্তর কোরিয়ার গৃহীত পারমাণবিক এবং ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচির দরুন যে উদ্বেগ সৃষ্টি হয় উহারই প্রেক্ষাপটে এই শক্তিশালী রণতরী কোরিয়া অভিমুখে প্রেরিত হইয়াছে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তীকালে, বিশেষত দুই পরাশক্তির মধ্যে যে ঠান্ডা লড়াই শুরু হইয়াছিল, উহার জের সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের সঙ্গে সঙ্গেই কাটিয়া গিয়াছে এমনটা মনে করা হইলেও আজিকার বিশ্ব পরিস্থিতি দৃষ্টে সে ভরসা আর নিশ্চয়ই করা যায় না। বরং নূতন আঙ্গিকে নূতন মোড়কে বুঝি-বা সেই শীতল যুদ্ধ পুনরায় ফিরিয়া আসিতেছে বিশ্বমঞ্চে। দুই দুইটি বিশ্বযুদ্ধের বিভীষিকা হইতে মানবজাতি কিছু শিখিয়াছে এমন কথা হলপ করিয়া বলা যায় কি? বরং দেখা যাইবে বিশ্বে আধিপত্য বজায় রাখিতে পরাশক্তিগুলি যুদ্ধ বিগ্রহ সংঘাত হানাহানির পথ অবলম্বন করাকেই শ্রেয় বলিয়া জ্ঞান করে। আর এ ক্ষেত্রে বারবার মানবতা ডুকরাইয়া কাঁদিয়া ফিরিলেও—মানবাত্মা সর্বত্র বিপন্ন হইলেও সোনায় মোড়ানো দেশগুলিকে অত্যাধুনিক ক্ষেপণাস্ত্র ও মারণাস্ত্র প্রয়োগে ধ্বংসলীলায় পরিণত করাতেই যেন তাহাদের অধিক তৃপ্তি। আর তাই আমরা চোখের সামনেই একে একে হাজার হাজার বত্সরের সভ্যতার নির্দশনগুলিকে নিমেষেই ধ্বংসপ্রাপ্ত হইতে দেখিলাম। লেবানন, ইরাক, আফগানিস্তান, লিবিয়া, সিরিয়া—একে একে মধ্যপ্রাচ্যের ইতিহাসপ্রসিদ্ধ ও মানব সভ্যতার গৌরবপতাকাবাহী দেশগুলিকে কী নির্মম নির্দয়তায় পদদলিত করা হইল। বিপন্ন মানবাত্মার ক্রন্দন ধ্বনি আর অগণিত অসহায় নিরপরাধ মানুষের আর্তনাদ তাহাদের চোখের কোনাও ভিজাইতে সক্ষম হইল না।

এমনই এক বিশ্ব পরিস্থিতিতে উত্তর কোরিয়ার দিকে রণতরীর যাত্রা আবার কোন মহাসংকটের জন্ম দিতে চলিয়াছে কে জানে! বিশ্বময় মোড়লিপনা করিবার অভিপ্রায় পরাশক্তিদের মজ্জাগত ব্যাপার হইয়া দাঁড়াইয়াছে। সামরিক বল প্রয়োগে এই ধরনের আধিপত্য বিস্তারের নেশায় মশগুল পরাশক্তিরা ভুলিয়া যায় যে, সব দিন সমান যায় না, যাইবেও না। গত শতাব্দীর পঞ্চাশের দশকের কোরীয় যুদ্ধকালীন কিংবা ষাটের দশকের ভিয়েতনাম যুদ্ধকালীন সম্পৃক্ততার পরিণতি যে সামরিক শক্তির গর্বে গর্বিত পরাশক্তির জন্য ভালো হয় নাই, সেই কথা আজ তাহারা বেমালুম ভুলিয়া বসিয়া আছে। ইহাদের নিজের খাইয়া বনের মহিষ তাড়ানো বা নিজের নাক কাটিয়া অপরের যাত্রা ভঙ্গ করার প্রয়াস-প্রচেষ্টা বিশ্ববাসী বহুকাল যাবত্ই অসহায়ের মতো প্রত্যক্ষ করিতেছে। ইহার অবসানের জন্য নিজেরা কখনো কখনো ক্ষুদ্র প্রয়াসও গ্রহণ করিয়াছে। কিন্তু ইহাতে শক্তি আর প্রভুত্ব কায়েম প্রয়াসী পরাশক্তিদের মন গলানো সম্ভব হয় নাই। নিছক নিজেদের স্বার্থে হত্যাযজ্ঞ চালানো বা ধ্বংস ডাকিয়া আনায় মোড়লিপনা ও মতলবী স্বার্থসিদ্ধি হয় বটে কিন্তু উহা কোনো গৌরব বহিয়া আনে না। উত্তর কোরিয়ায় রণতরীর যাত্রা সেই শক্তি প্রদর্শন বা প্রয়োগের প্রাথমিক রূপ, তবে শক্তিধরদেরও বোঝার দিন সমাগত যে, বিশ্ব এখন বদলাইতেছে, বিশ্ববাসী এখন আগের জায়গায় নাই। তাই পরিবর্তনের হাওয়া অনুভূত হইতেছে বিভিন্ন দিকে। ইহা শেষতক কাহার জন্য কী পরিণতি ডাকিয়া আনে উহাই এখন দেখার পালা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here