উত্তাপ্ত হয়ে উঠছে মনিরামপুর

0
400

মণিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি : যশোরের মণিরামপুরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে উত্তম চক্রবর্তীর নেতৃত্বে মণিরামপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আমজাদ হোসেন লাভলুর ওপর বোমা হামলা করা হয়েছে। এসময় লাভলুর গাড়ি ও পূবালী ব্যংকের এসি-গ্লাস ভাঙচুর করা হয়।

রবিবার বেলা ২টার দিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক ফারুক হোসেনের ব্যক্তিগত অফিসের সামনে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে উভয় পক্ষকে সরিয়ে দিলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। এতে মণিরামপুরে টান টান উত্তেজনা বিরাজ করছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক ফারুক হোসেন জানান, ঘটনার সময় আমজাদ হোসেন লাভলু সাংগঠনিক বিষয় নিয়ে আলাপ করতে তার অফিসের সামনে গাড়ি থেকে নামতেই প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্যের ভাগ্নে উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চুর নেতৃত্বে একদল উচ্ছৃংখল যুবক ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এসময় তিনি অফিস থেকে বেরিয়ে এলে তাদের লক্ষ্য করে পরপর দুইটি বোমা নিক্ষেপ করা হয়। যার একটি বিস্ফোরিত হয়। এসময় চেয়ারম্যানের গাড়িটি ভাঙচুর করে তারা।

উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চু বলেন, গাড়ি ভাঙচুরের ঘটনা লাভলুর সমর্থকরা ঘটিয়েছে। সকালে একটি ট্রেগার স্ট্যান্ডে দায়িত্বরত গৌতম নামে তার এক কর্মীকে লাভলুর সমর্থকরা মারপিট করে। দুপুরের পর লাভলু দলবল নিয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের অফিসে আসেন। এসময় তার (বাচ্চু) কর্মী সমর্থকরা এগিয়ে গেলে লাভলু সমর্থকরা ইটপাটকেল, বোমা নিক্ষেপ করে এবং লাভলুর শর্টগান থেকে পরপর তিনটি গুলি ছোড়েন।

আমজাদ হোসেন লাভলু বলেন, তিনি গাড়ি থেকেই নামতেই প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টচাচার্যের ভাগ্নে বাচ্চুর সন্ত্রাসী বাহিনী রাম দা, লোহার রডসহ দেশী অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে তাকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ও বোমা নিক্ষেপ করে তাকে ঘিরে ফেলে। তিনি আত্মরক্ষার্থে তার লাইসেন্সকৃত শর্টগান থেকে গুলি ছোড়েন।

পূবালী ব্যাংক মনিরামপুর শাখার ব্যবস্থাপক ইমরুল ইসলাম জানান, ঘটনার সময় ব্যাংকের গ্লাস ও এসি ক্ষতিগ্রস্থ হয়।

থানার ওসি রফিকুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। এ ঘটনায় কোন পক্ষ অভিযোগ করেনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here