উদীয়মান নারী ফুটবল তারকাদের অভিনন্দন

0
389
বিজয়ের মাসে দেশের ফুটবলের জন্য বড় একটি সুসংবাদ উপহার দিল বাংলাদেশের দুরন্ত কিশোরীরা। দুর্দান্ত ফুটবল খেলিয়া গত রবিবার সাফ অনূর্ধ্ব ১৫ নারী চ্যাম্পিয়নশিপের প্রথম আসরের শিরোপা জিতেছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। ইহার ফলে দক্ষিণ এশিয়ার সেরা ফুটবল শক্তির খেতাবটিও এখন দলটির দখলে। মেয়েদের এই বিজয়ে প্রধানমন্ত্রীও তত্ক্ষণাত্ তাহাদের শুভেচ্ছা জানাইয়াছেন। উল্লেখ্য যে, কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে আয়োজিত ফাইনাল ম্যাচে বাংলাদেশের কিশোরীরা ১-০ গোলে শক্তিশালী ভারতকে হারায়। ম্যাচের ৪১ মিনিটে বাংলাদেশের পক্ষে জয়সূচক গোলটি করেন শামসুন্নাহার। শুধু ফাইনালেই নহে, পুরো টুর্নামেন্ট জুড়িয়াই ছিল তাহাদের দাপুটে ফুটবল নৈপুণ্যের প্রদর্শনী। বিপক্ষ দলের জালে তাহারা সর্বমোট ১৩ বার বল পাঠাইতে সক্ষম হইলেও পুরো প্রতিযোগিতায়ই বাংলাদেশ দলকে কোনো গোল হজম করিতে হয় নাই। টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচে নেপালকে ৬-০ গোলে উড়াইয়া দিয়া শুরু হয় এই যাত্রা। তাহারপর লিগের দ্বিতীয় ম্যাচে ভুটানের বিপক্ষে জয় আসে ৩-০ ব্যবধানে। এমনকি ফাইনালের পূর্বে লিগের শেষ ম্যাচেও তাহারা ভারতকে ৩-০ গোলে হারায়। টুর্নামেন্ট সেরাও হইয়াছেন বাংলাদেশের ডিফেন্ডার আঁখি খাতুন।
যদিও সাফ গেমসের ফুটবলে আমাদের জাতীয় দলের চ্যাম্পিয়ন হইবার গৌরবজনক অধ্যায় রহিয়াছে, তথাপি তাহাদের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স খুবই হতাশাজনক। গত বত্সর অক্টোবরে এশিয়ান কাপের প্লে-অফে স্বাগতিক ভুটানের বিপক্ষে ৩-১ গোলে পরাজিত হয় বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল। ইহার ফলে ফিফা র্যাংকিংয়ের ক্ষেত্রেও তাহাদের অবনমন ঘটে। বর্তমানে ২১১টি দলের মধ্যে তাহাদের অবস্থান ১৯৭তম। এমনকি আন্তর্জাতিক ফুটবলের অন্যান্য আসরেও তাহারা একের পর এক ব্যর্থতার গল্পই লিখিয়া যাইতেছেন বলা যায়। তাহার বিপরীতে বয়সভিত্তিক জুনিয়র পুরুষ বা নারী দলের সাফল্য প্রশংসনীয়। এইখানেই আমরা আশাবাদী। তাহা ছাড়া অনূর্ধ্ব ১৪, ১৫ ও ১৬ নারী দল যেই দুর্বার গতিতে আগাইয়া যাইতেছে, তাহাতে ২০২২ সালের অনূর্ধ্ব ১৭ বা অনূর্ধ্ব ২০ নারী ফুটবল বিশ্বকাপের যেই কোনো একটিতে আমাদের মেয়েদের অংশগ্রহণের স্বপ্নও অসম্ভব কিছু নহে। গত বত্সর এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশন অনূর্ধ্ব ১৬ ফুটবলে কিরগিজস্তানকে ১০-০ গোলে হারাইয়াছে বাংলাদেশের প্রতিশ্রুতিশীল মেয়েরা। ইহা বাংলাদেশের যেকোনো পর্যায়ের ফুটবল দলের জন্য সর্বোচ্চ ব্যবধানে জয়ের রেকর্ডও বটে। ইতিপূর্বে অনূর্ধ্ব ১৪ দল ২০১৫ ও ২০১৬ সালে পরপর দুইবার এএফসির আঞ্চলিক চ্যাম্পিয়নশিপও নিজেদের করায়ত্ত করিয়াছে।
প্রায় এক দশক আগে আমাদের দেশে শুরু হয় নারী ফুটবলের পথচলা। এই অল্প সময়ের মধ্যে তাহাদের ফুটবল শৈলীর যে বিচ্ছুরণ ঘটিয়াছে, তাহাতে ইহাকে ফুটবলে নারী জাগরণও বলা যায়। উপরন্তু তাহাদের এই বিজয়গাথা জাতীয় ফুটবল দলসহ যেই কোনো ক্ষেত্রেই হইতে পারে অনুপ্রেরণার উত্স। অতএব, এই নবীন ফুটবলারদের ব্যাপারে আমাদের আরো যত্নবান হইতে হইবে। বাড়াইতে হইবে তাহাদের নানা সুযোগ-সুবিধা। ক্রিকেটের পাশাপাশি ফুটবলেও আমরা দেখিতে চাই সাফল্যের ধারাবাহিকতা। উদীয়মান এই ফুটবল তারকাদের জানাই প্রাণঢালা অভিনন্দন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here