উদ্যোগটি সাধুবাদ পাইবার যোগ্য

0
213

কারাগার হইতে বন্দীরা যাহাতে তাহাদের স্বজনদের সহিত মোবাইল ফোনে কথা বলিতে পারেন—এই ব্যাপারে নূতন উদ্যোগ গ্রহণ করা হইতেছে। কারা-কর্তৃপক্ষের নেওয়া এই উদ্যোগ প্রথমে পরীক্ষামূলকভাবে শুরু হইবে টাঙ্গাইল ও গাজীপুরের জেলা কারাগারে। ইহার পর তাহা পর্যায়ক্রমে চালু করা হইবে দেশের সকল কারাগারে। পত্রিকান্তরে প্রকাশিত এই সংক্রান্ত প্রতিবেদন হইতে জানা যায়, কথা বলিবার জন্য বন্দীরা সর্বোচ্চ পাঁচ মিনিট সময় পাইবেন। তবে জঙ্গি, শীর্ষ বা দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসীরা কথা বলিবার সুযোগ পাইবেন না তাহাদের স্বজনদের সহিত। বন্দীদের জন্য জমা থাকা অর্থ হইতে ফোনের খরচ কাটিয়া রাখা হইবে।

ডিজিটাল বাংলাদেশ রূপকল্পে ইহা একটি শুভ উদ্যোগ নিঃসন্দেহে। তথ্যপ্রযুক্তির অতি উত্কর্ষের এই যুগে, পুরাতন নিয়মের যে পরিবর্তন প্রয়োজন—তাহার বার্তা দিয়াছেন প্রধানমন্ত্রী স্বয়ং। গত বত্সর কেরানীগঞ্জে কেন্দ্রীয় কারাগারের উদ্বোধনের সময় বন্দীর স্বজনদের দুর্ভোগ হ্রাস করিতে এবং যাতায়াত ও থাকিবার জন্য অর্থ সাশ্রয়ের বিষয়টি বিবেচনায় আনিতে এমন উদ্যোগের কথা বলেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর এমত ভাবনার পর কারা-কর্তৃপক্ষ প্রত্যেক কারাবন্দীর দুইজন স্বজনের মোবাইল ফোন নম্বর সংগ্রহ করেন। নিরাপত্তা নিশ্চিত করিতে ওই দুই স্বজনের আঙুলের ছাপও নেওয়া হয়। জানা যায়, ব্যক্তিগত, পারিবারিক বা আইনি বিষয়ের বাহিরে কোনো কথা বলিবার সুযোগ থাকিবে না বন্দীদের। তাহা ছাড়া, নির্ধারিত সময়ের পর সংযোগ বিচ্ছিন্ন হইয়া যাইবে স্বয়ংক্রিয়ভাবে। যন্ত্রেও রেকর্ড করা হইবে এই কথোপকথন। অর্থাত্ নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ এবং অন্য যে কোনো অপব্যবহার রোধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করিয়াই চালু হইতেছে বন্দীর সহিত আত্মীয়দের মোবাইল ফোনে কথোপকথনের এই ব্যবস্থা। কারাগারে নানা রকম অনিয়ম ও দুর্নীতির খবর কমবেশি সকলেরই জানা। এই সকল অনিয়মের মধ্যে অন্যতম হইল—কারা অভ্যন্তরেই প্রভাবশালী বন্দীদের নিকট মোবাইল ফোন জব্দের ঘটনা। ইহা ছাড়াও উেকাচের বিনিময়ে নিয়মবহির্ভূতভাবে দুর্ধর্ষ আসামিদের সহিত স্বজনদের দেখা করাইয়া দেওয়া এবং মোবাইল ফোনে কথা বলার সুবিধা প্রদান করার অভিযোগ তো আছেই।

অতঃপর স্বজনদের সহিত বন্দীদের মোবাইল ফোনে কথা বলিবার যে উদ্যোগ গ্রহণ করা হইয়াছে—তাহা হয়রানি ও দুর্নীতি কমাইতে বিশেষ ভূমিকা রাখিবে নিশ্চয়ই। কারা অধিদপ্তর সূত্র হইতে জানা যায়, দেশের ৬৮টি কারাগারে ৭৮ হাজার বন্দী রহিয়াছেন। কারাবিধি অনুযায়ী পাঁচ বত্সরের বেশি সাজা পাওয়া বন্দীকে সংশ্লিষ্ট জেলা কারাগারে পাঠাইয়া দেওয়া হয়। ফলে অনেক বন্দীর নিজ বাড়ি হইতে ওই কারাগারের দূরত্ব বেশি হয়। ইহাতে কারাগারে আসিয়া কথা বলিবার জন্য ভোগান্তিতে পড়িতে হয় বন্দীর স্বজনদের। সুতরাং এই উদ্যোগের ফলে কারাবন্দীদের প্রতি মানবিক দিকটিই সর্বাগ্রে স্পষ্ট হইয়া উঠিয়াছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here