উপকূলীয় জলাবদ্ধতা ও অকেজো স্লুইস গেট

0
355

ভোলার দক্ষিণে বঙ্গোপসাগরসংলগ্ন মেঘনা নদীবেষ্টিত চারটি ইউনিয়ন নিয়া গঠিত মনপুরা উপজেলার চতুর্দিকে রহিয়াছে ৮৯ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ। পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) নির্মিত এইসকল বাঁধসংলগ্ন বিভিন্ন খালের ওপর আছে ১২টি স্লুইস গেট। গত শতকের আশি ও নব্বই দশকে নির্মিত এই স্লুইস গেটগুলি অকেজো হইয়া যাওয়ায় দীর্ঘস্থায়ী জলাবদ্ধতা ও লবণাক্ততার কবলে পড়িয়াছে ভোলার বিচ্ছিন্ন দ্বীপ মনপুরার বাসিন্দারা। এই উপজেলার পানি নিষ্কাশনের জন্য নির্মিত ১২টি স্লুইস গেটের মধ্যে ১০টিই এক যুগেরও অধিক সময় ধরিয়া অকেজো। আর একটি গেট দুই বত্সর আগে নদীগর্ভে বিলীন হইয়া গিয়াছে। সচল আছে মাত্র একটি স্লুইস গেট। কর্তৃপক্ষ গেটগুলি সংস্কারে কোনো উদ্যোগ না নেওয়ায় বেড়িবাঁধের ভিতরে প্রায়ই জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হইতেছে। লবণ পানি ঢুকিয়া ক্ষতিগ্রস্ত হইতেছে বিস্তীর্ণ ফসলের ক্ষেত। বিগত বর্ষায় মনপুরার চারটি ইউনিয়নের প্রায় ৩৫-৪০টি গ্রাম পানিতে তলাইয়া ছিল। শুষ্ক মৌসুমেও সামান্য জোয়ারে বিস্তীর্ণ এলাকা জলমগ্ন হইয়া পড়ে। লবণ পানিতে নষ্ট হইয়া যায় ফসল।

বাংলাদেশের মত ছোট্ট একটি দেশের ২০% অঞ্চল জুড়িয়া উপকূল বিস্তৃত। ইহার মধ্যে ৩০% জমি চাষযোগ্য, ১৭% মাছচাষ সহ অন্যান্য কাজে ব্যবহূত হয় এবং ৫৩% জমি পতিত থাকে কেবল লবণাক্ততার কারণে। ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার চাপে নূতন কৃষিজমি খুঁজিতে গিয়া উপকূলীয় অঞ্চলে লবণাক্ততার বিষয়টি সরকারসহ সকলের নিকট উন্মোচিত হইয়াছে। প্রায় দুই মিলিয়ন হেক্টর জমি ইতোমধ্যেই নানা মাত্রায় লবণাক্ত হইয়া পড়িয়াছে। উপকূলীয় অঞ্চল হইতে অনেক ভিতরের দিকের যশোর, কুষ্টিয়া, ফরিদপুর, কুমিল্লাতেও লবণের উপস্থিতি পাওয়া গিয়াছে। লবণাক্ততা ও জলাবদ্ধতা প্রতিরোধ করিয়া উপকূলীয় বিভিন্ন অঞ্চল আবাদ ও বাসযোগ্য রাখিতেই নির্মিত হইয়াছে বেড়িবাঁধ ও পোল্ডার। পানির প্রবাহ এবং জোয়ার-ভাটা নিয়ন্ত্রণ করিয়া পোল্ডারগুলিকে নিরাপদ রাখিতে বিভিন্ন খাল ও নদীর ওপরে নির্মাণ করা হইয়াছে স্লুইস গেট। কিন্তু সংস্কারের অভাবে বর্তমানে অধিকাংশ পোল্ডারে পলি জমিয়া নদীর জমিন উঁচু হইয়া গিয়াছে এবং স্লুইস গেটগুলি অকেজো হইয়া পড়িয়াছে। যেমন, খুলনার বিভিন্ন পোল্ডার ও প্রকল্পে সাড়ে ৪ শত স্লুইস গেট আছে। কিন্তু প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং খননের অভাবে পলি জমা, স্রোত ও নাব্যতা কমিয়া যাওয়ায় কার্যকারিতা হারাইয়াছে অন্তত সাড়ে তিন শত স্লুইস গেট। একই অবস্থা অন্য অঞ্চলগুলিতেও। ফলে, ওই সকল অঞ্চলে ফসলের উত্পাদন কমিয়াছে, জনগণ বারবার স্থায়ী জলাবদ্ধতার দুর্ভোগে পড়িতেছে।

ভোলার মনপুরা উপজেলায় জলাবদ্ধতা, ফসলহানি ও লবণাক্ততার জন্য আমরা কাহাকে দায়ী করিব? কেন এক যুগ ধরিয়া অকেজো হইয়া থাকা স্লুইস গেটগুলির সংস্কার করা হইল না? কেন খুলনা অঞ্চলে সাড়ে চারশ’র মধ্যে সাড়ে তিন শত স্লুইস গেট অকেজো থাকিবে দিনের পর দিন? আমরা মনে করি, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের দায় সকলের উপরে। বোধগম্য যে, দূরবর্তী ঢাকায় বসিয়া সরকারের পক্ষে সকল কিছু প্রত্যক্ষ করা সম্ভব নহে। সেইক্ষেত্রে অনিবার্যভাবে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি প্রশাসনের ওপরই বর্তায়। কিন্তু কেবল মনপুরা নহে, সমগ্র দেশ জুড়িয়াই দুর্দশা ও অভিযোগের কথা না-শুনিবার এক দীর্ঘ চর্চা চলিয়া আসিতেছে। এই অবস্থার অবসান করা জরুরি হইয়া পড়িয়াছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here