উপমহাদেশের প্রথম জেলা ও পৌরসভা যশোর হলেও নেই কোন প্রবেশ দ্বার

0
298

ডি এইচ দিলসান : খ্রিস্টপূর্ব চতুর্দশ শতকে মিশরীয়দের হাতে গড়া উপমহাদেশের প্রথম মহাকুমা তথা দেশের প্রথম পৌর শহর যশোর হলেও প্রাচীন জেলা শহরের নেই কোন প্রবেশ দ্বার। বর্তমানে যশোর পৌরসভা একটি দৃষ্টিনন্দন পৌরসভায় রুপ দিয়েছেন পৌর মেয়র জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টু। পৌর শহরের ভেতরে অনেক দৃষ্টিনন্দন স্থাপনা থাকলেও প্রবেশদ্বারের ব্যাপারে যশোর পৌরসভা বলছে বিভিন্ন সময়ে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু হলেও কোন সিদ্ধান্তে পৌছাতে পারিনি। অন্যদিকে জেলা পরিষদ বলছেনে আমরা জেলার সিমান্তে ৪ টি গেট করবো।
এদেশের অধিকাংশ জেলা, উপজেলা ও পৌর এলাকায় প্রবেশের সময় দৃষ্টিনন্দন প্রবেশ দ্বার চোখে পড়লেও প্রথম এই স্বাধীন জেলায় প্রবেশের সময় চোখে পড়েনা কোন অভ্যার্থন গেট।
দেশের ১৩তম বৃহত্তম এ জেলা ৮টি উপজেলা মিলে ২৫৯৪.৯৫ বর্গমাইল এলাকার এ জেলাটির সাথে সংযোগ রয়েছে খুলনা, নড়াইল, মাগুরা, ঝিনাইদাহ ও সাতক্ষীরা জেলার, তাছাড়া ভারতের সাথে সরাসরি সড়ক পথে যাতায়াতের জন্য রয়েছে দেশের বৃহত্তম স্থল বন্দর বেনাপোল। এছাড়া দেশের রাজধানীসহ উত্তর অঞ্চলে যাতায়াতের জন্য দক্ষীন অঞ্চলের মানুষকে এই পৌরসভাপর উপর দিয়েই যেতে হয়। এশিয়ান হায়ওয়েও গেছে এই পৌর এলাকার উপর দিয়ে। পেীর এলাকার প্রবেশ দ্বার গুলোর মধ্যে মুড়লি মোড় সংযোগ করেছে খুলনা, মোংলা, বাগেরহাট, সাতক্ষীরাসহ গোটা দক্ষীনাঞ্চল। এদিকে চাচড়া এবং পালবাড়ি মোড় সংযোগ করেছে, প্রতিবেশি দেশ ভারত, বেনাপোল, ঝিনাইদাহ, কুষ্টিয়া, রাজশাহীসহ গোটা উত্তরাঞ্চল। পৌর এলাকার নিউমার্কেট মোড় সংযোগ করেছে দেশের রাজধানীসহ মাগুরা, ফরিদপুরসহ পদ্মা পাড়ের এলাকা। নড়াইল স্টান্ড এলাকা সংযোগ করছে নড়াইল, গুপালগঞ্জসহ পদ্মা সেতুকে। এতবেশি গুরুত্বপূর্ণ এই জেলা শহরে কোন প্রবেশ দ্বার না থাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে জেলার প্রবিন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সচেতন মহল।
আশার বিষয় হলো বেনাপোল পেীরসভার মেয়র আশরাফুল ইসলাম লিটন বেনাপোল পৌরসভায় প্রবেশের জন্য নির্মান করছেন দৃষ্টিনন্দন একটি প্রবেশ দ্বার।
এ ব্যাপারে প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন বলেন, আমি বিভিন্ন মিটিং-এ এই দাবি তুলে আসছি, আমি পেীর মেয়র ও জেলা পরিষদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই দেশের প্রথম জেলা, প্রথম স্বাধীন জেলা, প্রথম ডিজিট্যাল জেলাসহ অনেক কিছুতে প্রথম এই জেলা এবং পৌর এলাকার প্রবেশ দ্বার নির্মান করতে হবে। তিনি বলেন, চাচড়া মোড় দিয়ে মিত্র বাহিনী দেশে প্রবেশ করে, সেখানে একটি স্বাধীনতার স্বারক প্রবেশ দ্বার তৈরি করা যেতে পারে, এছাড়া মুড়লি মোড়ে মাইকেল মধুসূদনের নামে একটি প্রবেশ দ্বার করার জোর দাবি জানান তিনি।
এ ব্যাপারে যশোর জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারন সম্পাদক, ম্যাগপাই নিউজের সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা ইয়াকুব কবির বলেন, দেশর প্রায় সকল জেলা, উপজেলা ও পেীর সভার প্রবেশ দ্বার চোখে পড়লেও যশোর জেলা ও যশোর পৌরসভার কোন প্রবেশ দ্বার চোখে পড়ে না। তিনি বলেন জেলা পরিষদ ও পৌরসভার উচিৎ সবার আগে এই কাজটি করা। তিনি বলেন, যেহেতু যশোর জেলা একটি ঐতিহ্যবাহী জেলা, উপমহাদেশের প্রথম মহাকুমা এবং দেশের প্রথম পৌরসভা, শুধু তাই নয় দেশের প্রথম স্বাধীন এ জেলায় অবশ্যয় চোখে পড়ার মত দৃষ্টি নন্দন প্রবেশ দ্বার তৈরি করা উচিৎ।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে যশোর জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম মিলন বলেন, আমরা বাগআচড়ার যশোর-সাতক্ষীরা সিমান্ত, যশোর খুলনা সিমান্ত, যশোর মাগুড়া সিমান্ত এবং যশোর মাগুরা সিমান্তে ৪টি প্রবেশ দ্বার করার জন্য মন্ত্রনলায়ে প্রস্তাব পাঠিয়েছে।
যশোর পৌরসভার চিফ একাউন্টার রবীন্দ্রনাথ রাহা বলেন, বিবিন্ন সময়ে যশোর পৌরসভার প্রবেশদ্বার তৈরি করার কথা উঠলেও শেষ পর্যন্ত তা আর বাস্তবায়ন হয়নি। তিনি বলেন এমন পরিকল্পনাও নেই।