এই দিন বার বার ফিরে ফিরে আসুক

0
289

জাজাফী : কথায় কথায় মানুষ না পাওয়ার আক্ষেপ নিয়ে বলে, ‘ছেলের হাতের মোয়া’ না যে, চাইলাম আর পাইলাম। ক্রিকেট খেলায় জয় যেন এখন বাংলাদেশের কাছে ছেলের হাতের মোয়ার চেয়েও সহজলভ্য। একটা সময় ছিল যখন বাংলাদেশের গুটিকয়েক মানুষ ক্রিকেট বুঝত এবং ক্রিকেট সম্পর্কে ধারণা রাখত। আর এখন ছেলেবুড়ো সবাই ক্রিকেট খেলা হলে সেটা নিয়ে মেতে থাকে। যখন বাংলাদেশ মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি খেললো তখন যারা একটু আধটু ক্রিকেট নিয়ে থাকত তারা জানে কী উদ্দামতা আর কী আকাঙ্ক্ষা ছিল আমাদের মনে। ‘কেউ আমাদের দাবায়ে রাখতে’ পারেনি।

আগে আমরাই কামনা করতাম যেন কোনোমতে ওয়ান ডেতে একশো রান করতে পারি কিংবা যেন টেনেটুনে পঞ্চাশ ওভার খেলতে পারি, আর টেস্ট খেলা তো ছিল অনেকটা স্বপ্নের মতো। আর আজকে? যুগ পাল্টে গেছে। আজকে বরং বাংলাদেশ না জিতলে সবাই বলে, আহ্ এরকমতো কথা ছিল না! আমরা জেগে উঠেছি এবং আমাদের জাগরণটা হয়েছে বীরের মতো। বিশ্বকাপ থেকে শুরু হলো আমাদের নতুনরূপে পদযাত্রা। সে যাত্রা এখন ক্রমাগতভাবে সাফল্যের স্বর্ণ শিখর অবধি পৌঁছাতে প্রস্তুত। যে দেশের ক্রিকেটবোর্ড মনে করত বাংলাদেশকে তাদের দেশে ডেকে নিয়ে সিরিজ খেলালে তাদের টিকেট বিক্রি হবে না সেই দেশকে দেখিয়ে দিয়েছি বাংলাদেশ ক্রিকেট বানের জলে ভেসে আসা কোনো খড়কুটো নয়। এর ভিত্তি অনেক শক্ত। যুগের পর যুগ ক্রিকেট খেলে তারা শচীনের মতো প্রতিভাবান খেলোয়াড় তৈরি করেছে ঠিকই কিন্তু আমাদের মতো কেউ একই সময়ে সব ধরনের ক্রিকেটে বিশ্বসেরা হতে পারেনি।

বিশ্বের অগণিত ক্রিকেট প্রেমী জানে, কাদের মনোভাব কেমন। কিন্তু আমরা যখন জেগেছি তখন আমাদের কেউ দাবিয়ে রাখতে পারবে না। পাকিস্তান, ইন্ডিয়ার পর দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে সিরিজ জিতে আমরা দেখিয়ে দিয়েছিলাম দিন পাল্টে গেছে। ক্রিকেটের তিন পরাশক্তির দুজনকে ঘায়েল করেছি বাকি থাকল অস্ট্রেলিয়া। ঠিক জানি না তারা হয়ত তখন থেকেই রোজ দুবেলা প্রার্থনা করতে শুরু করেছিল যেন বাংলাদেশের সঙ্গে তাদের কোনো সিরিজ না থাকে। কারণ এটাতো নিশ্চিত যে, সিরিজ থাকলেই সেটা বাংলাদেশ জিতে নেবে, বিশেষ করে বাংলাদেশের মাটিতে হলে। অবশেষে সত্যি সত্যি অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশ সফরের ঘোষণা আসলো। আমরা আপামর বাঙালি অপেক্ষায় ছিলাম পাকিস্তান ইন্ডিয়া আর সাউথ আফ্রিকার পর অস্ট্রেলিয়াকেও ধরাশায়ী করব। কিন্তু বিধি বাম। তাই যখন একান্তই বাংলাদেশে সফরে আসতেই হবে এরকম অবস্থা তখন অজুহাত তৈরি করল অস্ট্রেলিয়া। বাংলাদেশে নাকি নিরাপত্তার অভাব! কিন্তু বাঙালিরা অতটা বোকা নয় যতটা অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেট বোর্ড ভেবেছে।

টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের বেশ দুবর্লতা ছিল। ওয়ান ডেতে ধারাবাহিক সাফল্য পাওয়া দলটি ক্রমাগতভাবে টেস্টে নিজেদেরকেই হারিয়ে ফেলছিল। কিন্তু কঠোর অনুশীলন আর যোগ্য নেতৃত্বের পাশাপাশি দূরদর্শী কোচদের সমন্বয়ে এমন এক টিম আমরা পেয়েছি যারা টেস্টেও সাফল্য পেতে শুরু করেছে। তারই ধারাবাহিকতায় শ্রীলঙ্কার মতো শক্ত প্রতিপক্ষকে অনায়াসে ঘায়েল করে দেখিয়ে দিয়েছে ওয়ানডের মতো টেস্টেও বাংলাদেশ ক্রিকেট স্বর্ণযুগে প্রবেশ করছে। বাংলাদেশ ক্রিকেট দল শততম টেস্টে ৪ উইকেটের যে অসাধারণ জয় ছিনিয়ে নিয়ে স্বাধীনতার মাসে গোটা দেশকে আনন্দের বন্যায় ভাসিয়ে দিয়েছে তার জন্য বাংলাদেশ দলকে অভিনন্দন। আমরা বিশ্বাস করি তাদের এই জয়ের ধারা ধারাবাহিকতা পাবে। বিশ্ব ক্রিকেট দেখবে এক কালে তলাবিহীন ঝুড়ি বলে যাকে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করা হয়েছিল সেই দেশটি যোগ্য নেতৃত্বে শিল্প, অর্থনীতি, খেলাধুলা সব কিছুতে গোটা পৃথিবীর কাছে রোল মডেল হয়ে উঠছে। অভিনন্দন টাইগার বাহিনীকে। এই দিন বার বার ফিরে ফিরে আসুক।

nলেখক : শিক্ষার্থী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here