একজন ডাক্তার,৩ জন নার্সসহ উপজেলায় মোট আক্রান্ত ১১ জন! তবে কি চৌগাছা করোনা ভাইরাসের হট স্পটে পরিনত হচ্ছে ?

0
733

জিয়াউর রহমান রিন্টুঃ

যশোরের চৌগাছা উপজেলা কি করোনা ভাইরাসের হটস্পটে পরিনত হচ্ছে ??
গত ২২ এপ্রিল থেকে ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত চৌগাছাতেই ১১ জন করোনা পজিটিভ হিসেবে চিহিৃত হয়েছেন।
২৮ এপ্রিল যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের জিনোম সেন্টারের পরীক্ষায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের তিন জন নার্স ও পৌরসদরের কয়ারপাড়ার একজন মহিলা (ডিভাইন গার্মেন্টস সুইং কর্মী) করোনা পজিটিভ হিসেবে চিহিৃত হয়েছেন। ২৭ এপ্রিল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একজন চিকিৎসক নমুনা পরীক্ষায় করোনা পজিটিভ হয়েছিলেন।
উপজেলাতে গত ২২ এপ্রিল প্রথম এক স্কুল ছাত্র ও একজন মহিলা করোনা পজিটিভ হয়েছিলেন। ২৫ এপ্রিল পাশাপোল ইউনিয়নরে আরো এক গর্ভবতী মহিলা করোনা পজেটিভ হয়েছেন।   
২৬ এপ্রিল ওই মহিলার স্বামী করোনা পজিটিভ হিসেবে চিহিৃত হয়েছেন।২৬ এপ্রিল ওই কিশোরকে চিকিৎসা দেয়া চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের মেডিকেল অফিসার করোনা পজেটিভ হয়েছেন।  
২৭ এপ্রিল সোমবার সেই স্কুল ছাত্রের নানা ও নানী যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের জিনোম সেন্টারের পরীক্ষায় করোনা পজিটিভ হিসেবে চিহিৃত হয়েছেন।
২৮ এপ্রিল চৌগাছা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রসূতি বিভাগের ৩ জন নার্স ও পৌরসদরের কারিকর পাড়ার একজন গৃহবধূ করোনা পজিটিভ হিসেবে সনাক্ত হয়েছেন।
মঙ্গলবার সকাল দশটায় উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা.লুৎফুন্নাহার বিষয়গুলো নিশ্চিত করেছেন। তিনি হতাশ হয়ে বলেন,আমার হাসপাতালেই একজন ডাক্তারসহ তিনজন নার্স আক্রান্ত। তাহলে বুঝে দেখেন অবস্থা।
উপজেলাবাসীর মনে এখন প্রশ্ন তাহলে চৌগাছাতেও কি করোনা ভাইরাসের “কমিউনিটি ট্রান্সমিশন” শুরু হয়েছে?  চৌগাছা কি করোনা ভাইরাসের হটস্পটে পরিনত হল?
প্রশ্ন করলে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ড.লুৎফুন্নাহার বলেন,“কমিউনিটি ট্রান্সমিশন বেশ আগেই শুরু হয়েছে।” কেনো যে চৌগাছা করোনার হটস্পটে পরিনত হচ্ছে সেটাইতো বুঝতে পারছি না। ২৬ এপ্রিল যে আঠারো জনের নমুনা পাঠিয়েছিলাম তাদের মধ্যে ৪ জনের ফলাফল পেয়েছি। এবং তারা চার জনই পজেটিভ হয়েছেন। বাকি আরো ১৪ জনের রিপোর্ট এখনো আসেনি। তবে আতঙ্কিত হওয়ার মতো ঘটনা হচ্ছে যেহেতু নার্সগুলো সকলেই প্রসূতি বিভাগের কাজেই প্রসূতি বিভাগের ডাক্তার,রুগী,দর্শনার্থী সকলকেই এখন পরীক্ষা করাতে হবে।
এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, প্রথম আক্রান্ত সেই কিশোর বা তার পরিবারের কেউই ঢাকাতে বা এমন কোন স্থানে যাননি, যেখানে করোনার বিস্তার ব্যাপক। তাহলে তাদের কথাই যদি সত্যি হয়,তবে ওই কিশোর ছাত্র কোথা থেকে আক্রান্ত হলো ?? আর প্রথম দিনের ওই মহিলাই বা কিভাবে আক্রান্ত হয়েছেন? পাশাপোল ইউনিয়নের সেই গর্ভবতী মহিলার কথাই ধরুন,কিভাবে তারা আক্রান্ত হলেন??
 তাই আপনি নিশ্চিত হয়েই লিখতে পারেন চৌগাছা উপজেলাতে করোনার কমিউনিটি ট্রান্সমিশন বেশ আগেই শুরু হয়েছে।
এখন প্রথম আক্রান্তদের আরো কাছের মানুষকে পরীক্ষা করালে হয়তো তাদেরকেও করোনা পজিটিভ পাওয়া যাবে। এভাবেই বলছিলেন যশোরের চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা.লুৎফুন্নাহার।
উপজেলাবাসীর একটি বড় অংশ সরকার ঘোষিত স্বাস্থ্যবিধি মোটেও মানেননি। সেই সাথে স্থানীয় প্রশাসনের কোন নিষেধাজ্ঞায় তারা আমলে আনেননি। ঢাকা এমনকি নারায়নগঞ্জ থেকেও অনেক মানুষের উপজেলাতে আসা এবং সরকারি স্বাস্থ্যবিধি অগ্রাহ্য করে এবং সামাজিক দূরত্ব না মেনে অবাধ বিচরনের কারনেই এই কমিউনিটি ট্রান্সমিশন হয়েছে বলেই মনে করছেন চৌগাছার পৌর মেয়র নুর উদ্দিন আল মামুন হিমেল। মেয়র হিমেল বলেন,আপনারা খেয়াল করলে দেখবেন এখনো অনেক মানুষ রোগের তথ্য গোপন করছেন। এক শ্রেনীর অসাধু ব্যবসায়ি শুরু থেকেই চোর পুলিশ খেলছেন। তারা জনপ্রতিনিধি এবং প্রশাসনের গতিবিধি খেয়াল রাখছেন এবং নিজেদের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। এই সকল ব্যবসায়িদের কাছে মানুষের জীবনের চাইতে মুনাফাটাই যেন জরুরি। তাহলে কিভাবে করোনার কমিউনিটি ট্রান্সমিশন রুখবেন পাল্টা জানতে চাইলেন চৌগাছার পৌর মেয়র নূর উদ্দিন আল মামুন হিমেল ।
করোনা মহামারির এই সময় পৌরবাসীর সকল সমস্যায় এবং খাদ্য সামগ্রী বিতরনসহ জানাজাতেও দেখা যাচ্ছে চৌগাছার মেয়র হিমেলকে। গত দুদিন আগে একজন ট্রাক চালক ও একজন আদিবাসী বিশাক্ত মদ পানে নিহত হলে করোনা আতঙ্কে মৃতের আপন ভাইসহ কেউই কাছে যাচ্ছিল না। শুধুমাত্র বৃদ্ধ মা তার ছেলের লাশ নিয়ে বসেছিলেন। সে সময়ও মেয়র হিমেল ও পুলিশের একটি দল সেখানে উপস্থিত ছিলেন। এমনকি মেয়র হিমেলের তত্বাবধায়নেই সেই ট্রাক চালকের জানাজা হয়।
চৌগাছা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম বলেন, মানুষ কোনভাবেই শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখছেন না। মাঠে ঘাটে এমনকি বাড়িতেও কেউই সামাজিক বা শারীরিক দূরত্ব মানছে না। তিনি আক্ষেপ করে বলেন আনেকে স্বাস্থ্যবিধি তো মানছেই না এমনকি বাইরে যখন আসছেন মুখে মাস্কটাও ব্যবহার করছেন না। গত বুধবার উপজেলাতে যখন প্রথম করোনা রুগী সনাক্ত হলো সেদিনই প্রথমে পৌরসভা এবং পরবর্তীতে সমস্ত উপজেলাকে লকডাউন করা হয়েছিল। কিন্তু তারপরেও উপজেলাবাসীর একটি বড় অংশই তা ঠিকমতো মানছেন না। যেকারনে কমিউনিটি ট্রান্সমিশন শুরু হয়েছে। তবে ভীত না হয়ে মহান সৃষ্টিকর্তা আর্লাহর উপর ভরসা রেখে সরকারি স্বাস্থ্যবিধিসহ সকল নির্দেশনা মেনে চলার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান চৌগাছা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম।