একজন নির্ভিক সাংবাদিক শামছুর রহমান কেবল

0
406

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : ভিন্ন ধারার সাংবাদিক শামছুর রহমান কেবল ২০০০ সালের ১৬ জুলাই যশোর দড়াটানাস্থ নিজ

অফিসে কমব্রত অবস্থায় নির্মম হত্যার শিকার হন। আজ ১৭ বছর পেরিয়ে এসেও তার পরিবার,

সতীর্থ ও সমবন্ধুদের মনে বিচার নিয়ে ঘুরপাক খাচ্ছে অনেক প্রশ্ন। বিচারে ব্যর্থতার এই

দায়ভার কার? শামছুর রহমান কেবল সাংবাদিকতায় এক নতুন ধারার ¯্রষ্টা। যশোরের শালকোনা থেকে

তার লেখায় হাতেখড়ি। গ্রামীণ জনজীবনই ছিল তার উপজীব্য।

আশির দশকে চারণ সাংবাদিক হিসেবে পরিচিতি পেয়েছিলেন মোনাজাত উদ্দীন। মোনাজাত

উদ্দীনের মত গ্রামীণ জীবনকে এত বিচিত্র রূপে আর কেউ তুলে ধরেননি, বিশ্লেষণ করেন নি।

কিন্তু রাজনীতি গ্রামীণ জীবনকে কতটা প্রভাবিত করেছে তার কথা জানতে আমাদের শামছুর

রহমানের রিপোর্টগুলোয় চোখ বুলাতে হবে। সেখানে যেমন কুসংস্কার বাসা বেঁধে আছে,

আছে গহীন অন্ধকার, তেমনি আছে প্রগতির পদচিহ্ন।

পলাশির পরাজয়, ইংরেজ আমলে যশোর অঞ্চলে সংঘটিত নীল বিদ্রোহ, বিভিন্ন কৃষক আন্দোলন,

তেভাগা আন্দোলন ইত্যাদি শামছুর রহমানকে গভীরভাবে প্রভাবিত করে। সোভিয়েত ও চীনা

সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব তাকে এদেশে অনুরূপ বিপ্লবের স্বপ্ন দেখাতো। একই সাথে একাত্তরের

স্বাধীনতা যুদ্ধ তাকে উজ্জীবিত করত সোনার বাংলা নির্মাণের।

দক্ষিণ-পশ্চিম জনপদ, যা মুত্যু উপত্যকা বলে পরিচিত হয়ে ওঠে, তার প্রতিটি ঘটনা এবং ঘটনার

কার্যকারণ অনুসন্ধানে সদা তৎপর ছিলেন শামছুর রহমান। বাম রাজনীতি, বাম রাজনীতির নামে

সন্ত্রাসবাদের বিস্তৃতি, এ অঞ্চলের উৎপাদন প্রক্রিয়ায় হঠাৎ যতিচিহ্ন ও তার পরিণতি, দক্ষিণপন্থী

জঙ্গিবাদের উত্থান, প্রতিবেশী রাষ্ট্রের মোড়লিপনায় ‘বঙ্গভূমি’ বিভ্রান্তি, প্রগতিবাদীদের

ব্যর্থতা, রাজনৈতিক নেতৃত্বের ডিগবাজি এমন প্রতিটি ঘটনার অনুপুঙ্খ বিশ্লেষণ করেই

ক্ষ্যান্ত হননি, তার ভূ-রাজনৈতিক ব্যাখ্যাও দিয়েছেন।

তার সাথে যোগ হয়েছে প্রকৃতি, কৃষি, যোগাযোগ ব্যবস্থা, অর্থনৈতিক কর্মকান্ডের

সমস্যা ও সম্ভাবনা। এজন্য গোটা ভারতীয় উপমহাদেশের ইতিহাস, ভূগোল, রাজনীতি,

সমরকৌশল, শিল্প, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক বিকাশের ধারা বুঝতে হয়েছে।গভীর অধ্যয়ন যেমন তার

ছিল, তেমনি ছিল তথ্যজালের বিস্তার এবং উত্তম রূপেই তিনি তা গড়ে তুলেছিলেন। তিনি কোন

পূর্বনির্মিত সড়কে এসব বিষয়ে পারঙ্গম হয়ে ওঠেন নি। নিজেই রাস্তা তৈরি করে

নিয়েছিলেন।

প্রগতির নামে, বিপ্লবের নামে চরমপন্থীদের সীমাহীন সন্ত্রাস এদেশের গ্রামীণ জীবনকে,

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলকে পরিণত করেছিল এক মৃত্যু উপকত্যায়। সন্ত্রাস কতটা প্রভাবিত ও বিষাক্ত

করেছিল এই জনপদকে? তার আখ্যান আমরা পাই শামছুর রহমানের অনন্য সব রিপোর্টে। রিপোটের

সাথে সাথে অসাধারণ সব বিশ্লেষণ পাঠককে বুঝতে সাহায্য করত ঘটনার পিছনের কারণসমূহ।

একজন সাংবাদিক হিসেবে সব রাজনৈতিক দলের সাথে ছিল তার চমৎকার সম্পর্ক। শাসক ও

বিরোধী দল, চরম বাম ও চরম ডানপন্থী সকলের সাথেই তার যোগাযোগ ছিল। সকল উৎস থেকে

সংবাদ সংগ্রহ করতে পারতেন।

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সকল সাংবাদিকের সাথে তার ছিল নিবিড় যোগাযোগ। তাদের সাথে তার

নিয়মিত তথ্য আদান প্রদান চলত। তবে তথ্য প্রদানে তিনি ছিলেন রীতিমত উত্তমর্ণ। তথ্য

সংগ্রহ ও সংরক্ষণে তার জুড়ি ছিল না।

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের জীবন সংগ্রাম, কৃষি নির্ভর সমাজে মানুষের বেঁচে থাকার লড়াই,

সংকট থেকে উত্তরণ প্রয়াস তার লেখায় মূর্ত হয়ে উঠত। তথ্য সংগ্রহ, বিশ্লেষণ ও প্রকাশে

শামছুর রহমান তার কালে সকলকে ছাড়িয়ে গিয়েছিলেন। ভাষা প্রয়োগে তিনি অনুসরণ করতেন

প্রখ্যাত সাংবাদিক নির্মল সেনকে। বর্ণনার নাটকীয়তা পাঠককে মুগ্ধ করত। এসবই তিনি

আত্মস্থ করেছিলেন গভীর কর্মনিষ্ঠায়।শামছুর রহমান ছিলেন মিতভাষী। শিশুকাল থেকেই ছিলেন

আমার অনুরক্ত, ভক্ত। নির্মল সেন, আহমেদ হুমায়ুন, ফয়েজ আহমেদ ছিলেন সাংবাদিকতায় তার

আদর্শ পুরুষ। চীনা নেতা মাও জে দং, পশ্চিম বাংলার মুখ্য মন্ত্রী জ্যোতি বসু, সিপিআই (এম)

সাধারণ সম্পাদক প্রমোদ দাশগুপ্ত তার নমস্য ব্যক্তিত্ব ছিলেন। রাজনীতির জ্যোতি বসু নামে

একটি গ্রন্থও রচনা করেন তিনি।

সংবাদ পরিবেশনায় তার অসাধারণ দক্ষতা তাকে জনপ্রিয় সাংবাদিকে পরিণত করে। এই দক্ষতাই তার

জীবনের জন্য হুমকি হয়ে ওঠে। ধান্দাবাজ মানুষ, বাম ও ডান চরমপন্থী, চোরাচালানী, সন্ত্রাসী,

হুন্ডি ব্যবসায়ী, মতলববাজ রাজনীতিক, দুর্নীতিবাজ আমলা সবাই তার প্রতিপক্ষ হয়ে ওঠে। তার

সহকর্মীদের ঈর্ষাও প্রকাশ্য রূপ পায়।

যারা সন্ত্রাসকে লালন করে তাদের মুখোশ উন্মোচনে ছিলেন সদা তৎপর। কিন্তু নিজেই সন্ত্রাসের

বলি হন ২০০০ সালের ১৬ জুলাই যশোর নিজ অফিসে কমব্রত অবস্থায়।

এক অকুতোভয় সাংবাদিক শামছুর রহমান কেবল। বীর, শহীদ এক সাংবাদিক। তার হত্যকান্ডে দেশের

নিভৃত অঞ্চলে আজও কান্নার রোল ওঠে। তার হত্যাকান্ডে সারাদেশ আলোড়িত, বিক্ষুব্ধ। কিন্তু এই

সত্যনিষ্ঠ, অকুতোভয় সাংবাদিকের হত্যাকান্ডের বিচার হয়নি আজও। কেন হয়নি তাও রহস্যে ঘেরা।

কেন সম্পন্ন করা গেল না বিচার কার্য? হত্যাকান্ডের প্রকৃত রহস্য কি কোন দিনই উদঘাটিত

হবে না? এক ভয়াল মৃত্যু উপত্যকায় যিনি অসংখ্য হত্যাকান্ডের রহস্য উন্মোচনে ছিলেন সদা

তৎপর, তারই হত্যা রহস্য কী তবে অজানাই থেকে যাবে? আর হত্যাকারীরা রয়ে যাবে বিচারের

উর্ধে? তার হত্যাকারীরা কি এতই ক্ষমতাশালী যে বিগত তের বছরেও সন্ত্রাসের বলি এই অকুতোভয়

সাংবাদিকের হত্যাকান্ডের বিচার করা গেল না? এই ব্যর্থতার দায় কার?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here