করোনা ক্রান্তিকালে চৌগাছার ওসি রিফাত খান রাজীব

0
420

জিয়াউর রহমান রিন্টুঃ

ইতিমধ্যে করোনার হটস্পট হয়ে উঠেছে যশোরের চৌগাছা উপজেলা। কমিউনিটি ট্রান্সমিশন আগেই শুরু হয়ে গেছে বলেও জানিয়েছেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা। ২৮ এপ্রিল মঙ্গলবার পর্যন্ত উপজেলাতে ১১ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। সেকারনেই গত বুধবার থেকেই উপজেলাতে লকডাউন চলছে।
ইতিমধ্যে যশোর জেলাকেও লকডাউন ঘোষণা করেছে জেলা প্রশাসন।
তাইতো মহামারী ঠেকাতে, সামাজিক নিশ্চিত ও লকডাউন মেনে চলতে জেলা প্রশাসনের নির্দেশ অমান্যকারী ভ্যান-অটোরিকশা আটক শুরু করেছে পুলিশ বাহিনী।
এমন পরিস্থিতিতে নিয়ম অনুযায়ি লকডাউন অমান্য করা দরিদ্র ভ্যান-রিকশাচালকদের ভ্যান রিক্সা আটক করছে চৌগাছা থানা পুলিশ। সেই ভ্যানরিক্সা ছাড়াতে চালকরা থানায় আসলে তাদের সাথে কথা বলছেন চৌগাছা থানার ওসি রিফাত খান রাজিব। লকডাউন অমান্য করার কারনটাও জানতে চাইছেন। একেতো পুলিশ তারউপর আবার থানার ওসি,স্বাভাবিক ভাবেই হৃদকম্পন বেড়ে যাচ্ছে এসকল দরিদ্র অসহায় মানুষদের। তারপরেও অস্রুসজল চোখে কম্পমান কন্ঠে ভুক্তভোগীরা জানাচ্ছে, ‘স্যার আমরা হত দরিদ্র, পেট বাচাঁতে রাস্তায় আসি। এটা আমাদের একমাত্র আয়ের পথ’।
শুনে কিছুক্ষন থেমে ওসি ডাকলেন থানার স্টাফদেরকে। ভয়ে অস্থির ভূক্তভোগিরা। এবার বুঝি জেলে যেতে হয়! ভরাট গলায় ওসি নির্দেশ দিলেন,“ আইন ভেঙ্গেছো শাস্তিতো হবেই।” অতপর শাস্তি স্বরুপ তাদেরকে ভ্যান রিক্সা থানায় রেখে যেতে বললেন। এবং প্রত্যেককে ৫ কেজি করে চাল, ডাল, লবণ, সাবান ভর্তি একটি করে থলি ধরিয়ে দিলেন। ওসি সকলের উদ্দেশ্যে বললেন,“যদি কেউ অভাবের থাকে তবে রাস্তায় ভ্যানরিক্সা না নামিয়ে সেগুলো থানায় জমা রেখে অঅমার কাছ থেকে খাদ্য সামগ্রী নিয়ে যাবেন। তবুও আইন ভাঙ্গবেন না।
এমনই দুজন ভুক্তভোগি ভ্যানরিক্সা চালক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তারা বলছেন,“ পুলিশের নামে যারা বদনাম করে তারা যেন চৌগাছা থানায় এসে ওসি রিফাত খান রাজীবের সাথে দেখা করে যায়।
প্রসঙ্গত মহামারির শুরুতেই উপজেলাতে মানুষ যখন গৃহবন্দী হয়ে কর্ম হীন ও অসহায় হয়ে পড়েছিল তখন ওসি রিফাত খান রাজীব নিজ গাড়িতে খাবার নিয়ে রাতের অন্ধকারে তাদের বাড়িতে পৌছে দেওয়ার সাধ্যমতো চেষ্টা করেছেন। আর ফোনে অভাবের কথা জানালে তার বাড়িতে ওসি নিজ উদ্যেগে খাবার পৌছে দিযেছেন। উপজেলার সীমান্ত লাগোয়া গ্রামের একজন বাসিন্দা ভারতে থেকে ফেসবুকের মাধ্যমে নিজের পরিবারের অভাবের কথা জানান ওসিকে। ওসি ওই ব্যক্তির বাড়ির ঠিকানা নিয়ে সেই বাড়িতে খাদ্য পৌছে দিয়ে পুনরায় সেই প্রবাসিকে আশ্বস্ত করেছেন। ব্যতিক্রমী এই সকল আয়োজনে উপজেলার সর্বমহলে প্রশংসায় ভাসছে ওসি রিফাত খান রাজীব। এছাড়াও থানার সব পুলিশ সদস্যরা মিলে রাস্তায় ঘুরে ঘুরে সচেতনতামূলক গান গেয়ে সাধারণ মানুষকে ঘরে থাকার অনুরোধ জানানোর ভূমিকায় ছিলেন ওসি রিফাত খান রাজীব।
বলাইবাহুল্য করোনা মহামারির শুরু থেকেই বাংলাদেশ পুলিশ তার সম্পূর্ন ক্ষমতা মানবার কল্যানে নিয়োগ করেছে। বর্তমান দেশের জনগণের ‘বিপদের বন্ধু’ হিসেবে পরিচিতি পাচ্ছে বাংলাদেশ পুলিশ।