একটি রুমালের ইতিহাস !

0
66

সাবিনা ইয়াসমিন :

ছবিটি একটি রুমালের।
কিন্তু আমাদের কাছে এ ছবিটি একটি গল্প।
একটি ঐতিহাসিক দলিল।একটি অপূরণীয় হারানোর আখ্যান।

আজ আমার বাবার( শহীদ মাহাতাব উদ্দিন মণি, মণি চেয়ারম্যান বলেই পরিচিত, এলাকায় ছোটবড় সবাই তাঁকে ‘দাদাভাই’ বলে ডাকতেন।) শাহাদাত বার্ষিকী। ১৯৭১ সালের এই দিন ভোর রাতে রাজাকারের গুলিতে নির্মম ভাবে শহীদ হন আমার বাবা।

বাবাকে যখন হায়েনারা গুলি করলো, তখন টার্গেট করেছিল তাঁর মাথা। শত্রুর কাছে নথি স্বীকার না করার উন্নত শির। দীর্ঘ দিন একটি এলাকায় নেতৃত্বে থাকা মেধাবী মাথাটাকে গুঁড়িয়ে দেবার টার্গেট।

গুলিটা যখন তাঁর মাথায় এসে লাগলো, তখন মাথার বাম পাশটা ভেঙে পড়লো আর সেই রক্ত এসে ভিজিয়ে দিল তাঁর বুক আর বুকপকেটে থাকা একটি রুমাল।

রুমালটিতে লাল এবং সবুজ সুতায় ফুল তোলা। ফুলের পাশে দুটো নামের আদ্যক্ষর। আমার বাবার এবং মায়ের।
আমার বাবা কাপড়ের উপরে সুতার কাজ খুব পছন্দ করতেন। আমার মাকে বাজার থেকে নানা রঙের সুতা কিনে এনে দিতেন। আমার মা ছিলেন সেলাই এবং কাঁটা ও উল দিয়ে দিয়ে নানা রকম বুননে পারদর্শী। এলাকায় অনেক মহিলা তাঁর কাছে সেলাই ও উল বোনা শিখতে আসতেন।
যেটি বড় হয়েও আমি দেখেছি। এমনকি আমার ছেলে হলেও তিনি চমৎকার ওয়ালম্যাট করে আমার ছেলেকে উপহার দিয়েছেন।

তো বাবাকে যখন রাজাকাররা ধরে নিয়ে যাচ্ছিল, তখন বাবার এই রুমালটিতে বাড়িতে যত কাঁচা টাকা ( সেসময় কয়েনকে সবাই কাঁচা টাকা বলতেন। রূপার কাঁচা টাকাও ছিল) ছিল, সব আমার মা দিয়ে দিয়েছিলেন, যদি টাকা নিয়ে তাঁকে ছেড়ে দেয়, এই আশায়।

একই রকম সুতার কাজ ছিল শার্টের নিচে বাবার পরে থাকা গেঞ্জিতেও। টাকা বা গহনা কিছুই পাওয়া যায় নি, রক্তে ভেজা শার্টের পকেটে রুমাল টা খালি পাওয়া যায়।

বাবার লাশ কপোতাক্ষ নদে ভাসছিল। স্হানীয় লোকজন তাঁর লাশ তুলে এনে আমাদের শোবার ঘরের সামনে যেখানে রেখেছিল, মা সেখানে পরে একটি কামিনী ফুলের চারা লাগিয়েছিলেন।

আরও অনেক বছর পরে যখন সরকার ত্রিশ লক্ষ শহীদের স্মরণে ত্রিশ লক্ষ গাছ লাগানোর সিদ্ধান্ত নেয়, তখন মায়ের ওই গাছ লাগানোর সিদ্ধান্তের কথা আমার মনে পড়ে যায়।

তো বাবার পকেট থেকে রক্ত ভেজা রুমালটা আমার মাকে দেয়া হয়। এছাড়া গুলিতে বাবার মাথাসহ বাম কাঁধের দিকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়, ফলে তাঁর পরে থাকা গেঞ্জিটা কাঁচি দিয়ে কেটে খুলতে হয়। সেটিও কেউ মায়ের হাতে তুলে দেয়।

রক্তে ভেজা গেঞ্জি এবং রুমাল আমার মা কেঁচে ধুয়ে তুলে রাখেন বাবার ব্যবহৃত একটি সুটকেসে। যদিও রক্তের দাগ লেগে ছিল গেঞ্জি এবং রুমাল, দুটোতেই।

বাবার মৃত্যুবার্ষিকী, স্বাধীনতা দিবস বা বিজয় দিবসে সেগুলো বের করে আমাদের দেখাতেন।

আমি যখন বাড়ি ছেড়ে দূরে হোস্টেলে থেকে পড়তে শুরু করলাম, তখন মাকে বললাম বাবার স্মৃতিমাখা জিনিসগুলো আমাকে দিতে। এর আগেও অনেক সময় বললেও পাইনি, ছোট মানুষ– হারিয়ে ফেলবো, এই অজুহাতে। কিন্তু এবারে মা আমাকে সেগুলো দিলেন। যেহেতু বাবা মারা যাওয়ার সময় আমি ছিলাম মায়ের গর্ভে, যেহেতু আমি তাঁর মুখ দেখিনি, কিংবা বাবাও আমার মুখ দেখে যেতে পারেন নি, সেহেতু এ অমূল্য সম্পদ আমার, আমি বরাবরই মাকে সেটা বলতাম। যাহোক, আমার মা আমাকে জিনিস গুলো যত্নে রাখার অনুরোধ করে ওগুলো আমাকে দিলেন।

বি এল কলেজে বা রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার দিনগুলিতে যে কতবার যে আমি ওগুলো কে আঁকড়ে ধরে ঘুমিয়েছি, কত বর্ষার দুপুরে যে ওগুলোর ঘ্রাণ নিয়েছি…..সে শুধু আমিই জানি।

আমি যখন গাজীপুর সদর এর ইউ এন ও, তখন আমার মা একবার আমার বাসায় এসে গেঞ্জিটা আবার নিয়ে নিলেন। কিছুদিন তাঁর কাছে রেখে আবার আমাকে দিয়ে দেবেন, একথা বলে। তখন খুলনায় মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি জাদুঘর হবে বলে শুনছি, ইচ্ছা ছিল জাদুঘরে ওগুলো দিয়ে দেবো।

কবি তারিক সুজাত এর স্ত্রী, সম্ভবত মিমি আপা, তাঁর সাথে পরিচয় করিয়ে দিলেন কবি কাজী রোজী আপা । মিমি আপা খুলনায় মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি জাদুঘর প্রকল্পের সাথে কিভাবে যেন সম্পৃক্ত ছিলেন। আমি তাঁকে জানালাম যে বাবার এই অমূল্য সম্পদ আমি ওখানে দিতে পারবো।

কিন্তু এর কিছুদিন পরই আমার মায়ের ব্রেন স্ট্রোক, অপারেশন, স্মৃতি ভ্রমের মতো বিষয় গুলো ঘটলো। আর আমিও গেঞ্জিটা অনেক খুঁজেও আর পেলাম না। বাড়িতে কেউ বলতে পারলো না, মা কোথায় গেঞ্জিটা রেখেছেন।
এভাবেই, মুক্তিযুদ্ধের বহু বছর পর এত যত্নে রাখা একটি স্মৃতি চিহ্ন হারিয়ে ফেললাম।

কিন্তু রুমালটিকেও যদি হারিয়ে ফেলি, তাই তা আর কোথাও দিলাম না। আমার কাছে রেখে দিয়েছি। মাঝে মাঝে তাঁর ঘ্রাণ নেবার জন্য।

এই গানটা তখন খুব গাইতে ইচ্ছা করে…

মাঝে মাঝে তব দেখা পাই চিরদিন কেন পাই না
কেন মেঘ আসে হৃদয় আকাশে
তোমারে দেখিতে দেয় না…

সাবিনা ইয়াসমিন
জেলা প্রশাসক

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here