একটি সুন্দর খেলার জন্য

0
273

অক্টোবরে কলকাতা ও দিলি্লতে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপ। খেলার মাঠে নিরাপত্তা ও শৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ লাগবে। কিন্তু ভারতের পুলিশ সম্পর্কে আন্তর্জাতিক ফুটবল সংস্থার (ফিফা) ধারণা ভালো না। তাই স্বাগতিক দেশ ভারতকে অনুরোধ করেছে যে, ম্যাচগুলোতে যেন মেদওয়ালা পুলিশ রাখা না হয়। ফিফার প্রস্তাব মেদহীন পুলিশ মোতায়েনের।
পুলিশের চাকরি কেরানিগিরি নয়। তাদেরকে দোড়ঝাঁপও করতে হয়। এ ক্ষেত্রে শারীরিক সক্ষমতা খুবই জরুরি। কিন্তু মেদে যারা ভারাক্রান্ত, তারা কী করে বৈরী পরিস্থিতি সামাল দেবেন! কেবল ভারতে নয়, আমাদের দেশেও বহু মেদওয়ালা পুলিশের সাক্ষাৎ পাই। যাদের নিজ দেহের ভার বইতে কষ্ট হয়। তাই অনেক দেশেই মেদওয়ালা পুলিশকে বাধ্যতামূলকভাবে চাকরি ছাড়তে হয়। এ নিয়ে বাংলাদেশ বা ভারত কর্তৃপক্ষের কোনো মাথাব্যথা নেই।
অনেকক্ষেত্রে মেদের সঙ্গে উৎকোচের যোগ আছে। তবে মেদওয়ালা মানেই ঘুষখোর_ এমন ধারণা করা ঠিক না। শারীরিক কারণেও মেদ বাড়তে পারে। আবার ঘুষখোরও মেদহীন হতে পারে। মেদের সঙ্গে খাদ্যের সম্পর্ক নিবিড়। অতিরিক্ত খাদ্যাভ্যাসে মানুষ মেদওয়ালা-ভুঁড়িওয়ালায় পরিণত হয়। আবার প্রয়োজনীয় ক্যালরির অভাবে মানুষ কঙ্কালসার হয়। সম্পদের বণ্টন ব্যবস্থার কারণে এমনটা হয়। কারণ, মেদ যখন পুঞ্জীভূত হয় বিত্তে; তখন বিত্তবানদের ঘরে খাবারের ছড়াছড়ি থাকে আর বিত্তহীনদের ঘরে ইঁদুর দাপায়। তাই দেখা যায়, এক দল বেশি খেয়ে অসুস্থ হয়, আবার আরেক দল খাবার না পেয়ে অসুস্থ হয়। তবে বর্তমানের ধনীরা স্বাস্থ্যসচেতন। তারা কম খায়। বলাই বাহুল্য, তারা দেহের ক্ষুধা মেটাতে নয়, মনের নেশায় অর্থ কামায়। এ নেশায় তারা বেপরোয়া। এদের বিত্তবৈভবের মালিক হওয়ার প্রতিযোগিতায় ব্যাপক মানুষ আজ বিত্তহীন। সমাজ বিভক্ত দুই শ্রেণিতে_ বিত্তবান ও বিত্তহীন। এ বৈষম্য অবসানে ইসলামে জাকাত প্রথা আছে। অন্য ধর্মেও দান-খয়রাতের বিধান আছে। এ বৈষম্য নিয়ন্ত্রণে কল্যাণকর রাষ্ট্রে ধনীদের ওপর করারোপ এবং গরিব জনগোষ্ঠীকে সহায়তা করা হয়। ইউরোপ-আমেরিকাসহ নানা দেশে রাষ্ট্র স্বাস্থ্য, শিক্ষার ক্ষেত্রে দায় গ্রহণ করে। তা সত্ত্বেও ব্যবধান কমেনি, কমছে না।
এ বৈষম্য অবসানে কার্ল মার্কস বুর্জোয়া শ্রেণির বিরুদ্ধে সর্বহারা শ্রেণির লড়াইয়ের কথা বলেছেন। যাকে বলা হয় শ্রেণিসংগ্রাম। ১৯১৭ সালে রাশিয়ায় সর্বহারা শ্রেণির নেতৃত্ব রাষ্ট্রক্ষমতা দখল করে। সে পথে চীন, ভিয়েতনাম, কিউবায় বিপ্লব হয়। দ্বিতীয় মহাযুদ্ধ-উত্তর পূর্ব ইউরোপীয় কিছু দেশেও সমাজতান্ত্রিক ব্যবস্থা চালু হয়। বিগত শতাব্দীজুড়ে চলেছিল বুর্জোয়ার বিরুদ্ধে সর্বহারার সংগ্রাম। বাংলাদেশেও স্লোগান ধ্বনিত হতো_ কেউ খাবে কেউ খাবে না, তা হবে না তা হবে না। দেশে দেশে সাহসী সংগ্রামের মধ্য দিয়ে গড়ে উঠেছিল নতুন বিশ্বব্যবস্থা। সোভিয়েত ইউনিয়নের বিপর্যয়ের মধ্যে সমাজতান্ত্রিক বিশ্ব গুটিয়ে গেছে। কিন্তু বিত্তহীনদের সংগ্রাম কি থেমেছে? খোদ মার্কিন মুল্লুকেও ২০১১ সালে সংগঠিত হলো অকুপাই ওয়াল স্ট্রিট আন্দোলন। তারা বলল_ বিশ্বের এক শতাংশ মানুষের কাছে ৯৯ শতাংশ সম্পদ। আর ৯৯ শতাংশের কাছে ১ শতাংশ সম্পদ। এ বৈষম্য কমাতেই তাদের সংগ্রাম; যে সংগ্রাম ছড়িয়ে গেছে দুনিয়াময়। থেচার থেকে তেরেসা মে সবাই সামাজিক দায়িত্ব থেকে রাষ্ট্রের মুখ ঘুরিয়ে রেখেছিলেন। লেবার পার্টির নেতা করবিন বলছেন, তা হবে না। তিনি এখন তরুণদের জনপ্রিয় নেতা, যারা দেয়াল ভাঙতে চাইছে। দেয়ালের একপাশে একজন, সম্পদ ৯৯ ভাগ; অপর পাশে ৯৯ জন, সম্পদ ১ ভাগ। একজনের বিত্তের মেদ বাড়ছে, ৯৯ জন কঙ্কালসার হচ্ছে।
একটি সুন্দর খেলার জন্য মেদহীন পুলিশ চাই। তেমনি একটি সুন্দর সমাজের জন্য কী চাই, তা দেশের নীতিনির্ধারকদের ভাবতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here