একশ বিঘা জমি বাচাতে যশোরে চাষিদের সংবাদ সম্মেলন, মানববন্ধন ও স্বারকলিপি প্রদান

0
260

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর আরবপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহারুল ইসলামের বিরুদ্ধে যশোর সদরের মাহিদিয়া বিলের প্রায় একশ’ বিঘা জমি দখল চেষ্টার অভিযোগ করা হয়েছে। রোববার সকালে প্রেসক্লাব যশোর কনফারেন্স রুমে সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন সেখানকার জমি ভোগদখলকারী শতাধিক কৃষক পরিবারের সদস্যরা। পরে তারা শাহারুলের জমি দখলপ্রচেষ্টার বিরুদ্ধে প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করেন। এরপর তারা জেলা প্রশাসক বরাবর স্বারকলিপি প্রদান করেন।

সংবাদ সম্মেলনে মাহিদিয়ার জমি ভোগদখলকারী প্রান্তিক চাষিদের পক্ষে শফিয়ার রহমান লিখিত বক্তব্য পাঠে অভিযোগ করেন। ‘সদর উপজেলার চাঁচড়া ইউনিয়নের চার নম্বর ওয়ার্ড মাহিদিয়ার বিলের প্রায় ১০০ বিঘা জমি আমাদের পূর্বপুরুষরা ১৯২৭ সালের আগ থেকে চাষ করে আসছিলেন। এরপর ১৯২৭ সালে ব্রিটিশ সরকার ওয়ারেশ সূত্রে জাফর সরদার, শামছুর সরদার, মোকছেদ দফাদার, সুনাল্যে বিশ্বাস, হাগু মোল্যা, শরিয়াতুল্যা, অটলবিহারী পাল প্রমুখের নামে রেকর্ড লিপিবদ্ধ করে। ১৯৪৭ সালে ওই জমি পাকিস্তান সরকার যশোর জেলা প্রশাসকের নামে অধিগ্রহণ করে। কিছুদিন পর পাকিস্তান-ভারত যুদ্ধ হলে হাজার হাজার ভারতীয় এদেশে রিফিউজি হিসেবে প্রবেশ করে। তাদের রূপদিয়া, সাড়াপোল, বানিয়াবহু, তফসীডাঙ্গা, চাঁচড়া, রাজা বরদাকান্ত রোড এলাকাসহ আশপাশে থাকতে এবং হরিণাসহ আশপাশের বিল এবং মাহিদিয়া বিলের কিছু অংশ মৌখিকভাবে চাষাবাদের অনুমতি দেয় জেলা প্রশাসন। কিন্তু বন-বাঁদাড় হওয়ায় তারা কোনোদিন সেখানে চাষাবাদ করেনি।’
বলা হয়, ‘১৯৬২ সালে সরকার দখল শর্তানুযায়ী তাদের বংশধরদের নামে ওই জমি রেকর্ড করে। ১৯৬২ সালের রেকর্ড অনুযায়ী রিফিউজিদের নামে কোনো জমি রেকর্ড হয়নি।
লিখিত বক্তব্যে অভিযোগ করা হয়, গত ২৩ মে চেয়ারম্যান শাহারুল ইসলাম তার সশস্ত্র কাডার নিয়ে ওই জমি দখল করতে যান। ওইসময় স্থানীয়দের প্রতিরোধে তারা ফিরে যেতে বাধ্য হন।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত কৃষকরা দাবি করেন, ১৯৬২ সালের রেকর্ড অনুযায়ী আমরাই জমির প্রকৃত মালিক। ‘ভূমিদস্যু’ শাহারুলের কবল থেকে আমরা মুক্তি চাই।
সংবাদ সন্মেলনে উপস্হিত ছিলেন ভুক্তভোগি আব্দুল মান্নান ভুইয়া, তাইজেল বিশ্বাষ, অলিয়ার রহমান, সাজ্জাদ হোসেন, আব্দুল্লাহ ও আমজেদ হোসেন মোল্লা সহ শতাধিক কৃষক পরিবার।

এদিকে, যশোর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আরবপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহারুল ইসলাম তার বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলনের খবর শুনে দুপুরে প্রেসক্লাবে আসেন। তিনি তার বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘ওই মৌজায় ২৯ বিঘা জমি আমি রিফিউজিদের কাছ থেকে দলিলসূত্রে কিনেছি।’জমি দখলচেষ্টার অভিযোগ তিনি অস্বীকার করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here