একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন কে সামনে রেখে যশোরের শার্শায় উপজেলায় নির্বাচনী প্রচার-প্রচারনা জমে উঠেছে।চলছেচুলচেরা বিশ্লেষন”। আরিফুজ্জামান আরিফ: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন কে সামনে রেখে যশোরের শার্শা উপজেলায় নির্বাচনী প্রচার-প্রচারনা জমে উঠেছে।বইছে নির্বাচনী হাওয়া।চলছে রাজনৈতিক কর্মকান্ডের হিসাব নিকাশ। উপজেলার চায়ের দোকান থেকে শুরু করে মাঠে,ঘাটে,হাট বাজারে সর্বত্রই সম্ভাব্য প্রার্থীদের নিয়ে নানা আলোচনা- সমালোচনায় মুখর হয়ে উঠেছে মানুষ। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী ছাড়াও সচেতন মহল প্রার্থী নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ করছেন। আগামী বছরের শুরুতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে মর্মে সম্ভাব্য প্রার্থীরা নড়েচড়ে উঠেছে। অনেক সম্ভাব্য প্রার্থীরা এলাকায় বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও ইফতার মহাফিল সহ ধর্মীয় অনুষ্ঠানে ব্যাপক ভাবে নিজেদের কে সম্পৃক্ত করে জানান দিচ্ছেন প্রার্থীতার কথা। ঈদকে সামনে রেখে পাড়া -মহল্লাগুলোতে চলছে নির্বাচনী আমেজ। রাজনৈতিক কর্মী ছাড়াও বেড়েছে গরীব অসহয় দুঃস্থ মানুষের কদর। জাতীয় সংসদের নির্বাচনী এলাকা- ৮৫ যশোর-১ শার্শা আসনে এবার সম্ভাব্য প্রার্থী হিসাবে আলোচনায় আছেন বর্তমান সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সহ- সভাপতি আলহজ্ব শেখ আফিল উদ্দিন, বেনাপোল পৌর মেয়র ও জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আশরাফুল আলম লিটন, পাসপোর্ট অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক আবদুল মাবুদ, আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের কেন্দ্রীয় নেতা ড. আকতারুল কবীর, বিএনপি’র সাবেক কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক মফিকুল হাসান তৃপ্তি,জামায়াত নেতা আজিজুর রহমান ও সেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় নেতা মহাসীন কবীর।এদের মধ্যে নির্বাচনী দৌড়ে এগিয়ে সবার শীর্ষে রয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আশরাফুল আলম লিটন। পুরো রমজান মাস জুড়ে উপজেলার সব ইউনিয়নে ইফতার মাহফিল ও দোয়া অনুষ্ঠান গুলিতে তার সরব উপস্হিতি নেতা কর্মীদের পাশাপাশি সাধারন জনগনের মাঝে ফেলে দিয়েছে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার সাড়া।তার আহব্বানে সাড়া দিয়ে ইফতার মাহফিল গুলি পরিনত হয়েছে জনসমুরদ্র। অপর দিকে বিগত ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর নির্বাচনে চারদলীয় জোট সমর্থিত প্রার্থী জামায়াত নেতা আজিজুর রহমানকে বিপুল ভোটে পরাজিত করে জয়লাভ করে বর্তমান সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সহ- সভাপতি আলহাজ্ব শেখ আফিল উদ্দিন। সরকারের দ্বিতীয় মেয়াদে তিনি বিনা প্রতিদ্বন্দীতায় নির্বাচিত হন। এলাকায় সার্বিক প্রচার প্রচারনায় তিনি এবার অনেকটা এগিয়ে রয়েছেন।তারপরেও তিনি বিগত দুই মেয়াদ থেকে এযাবত কাল পর্যন্ত সুখে দুখে বিপদে আপদে মানুষের পাশে দাড়িয়ে এলাকার মানুষের কাছে নিজের অবস্থান সুদৃঢ করার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। দুবার এম পি হয়ে তার কিছু বিতর্কিত কর্মকান্ডে উপজেলা ব্যাপি আওয়ামী লীগের একটি বড় অংশ তার কাছ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন বলে অনেক দলীয় নেতা কর্মীদের অভিমত। আর এ সুযোগ কে কাজে লাগিয়ে অবহেলিত নেতাকর্মীদের সুখ দুঃখে পাশে দাড়িয়ে নিজের রাজনৈতিক অবস্হানকে করে নিয়েছে শক্ত ও মজবুত। প্রমান করে দিয়েছেন নিজের সাংগঠনিক দক্ষতা। তাছাড়া জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও দেশশ্রেষ্ট মেয়র আশরাফুল আলম লিটন জনপ্রতিনিধি হিসাবে উপজেলা ব্যাপি তার নিরপেক্ষতা,সচ্ছতা,বি­চক্ষণতা ও সততা নিয়ে ব্যাপক সুখ্যাতি রয়েছে। এ আসনে আওয়ামীলীগের একাধিক প্রার্থীর নাম শোনা গেলেও সবার শীর্ষে রয়েছেন আশরাফুল আলম লিটন। নির্বাচনী প্রচার প্রচারনায় আওয়ামী লীগের এ দুজনের ছাড়া অন্য কোন দল বা প্রার্থীর প্রচারনা তেমন দেখা যাচ্ছেনা।তবে তারা নিজ দলীয় নেতা কর্মীদের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন। আওয়ামী লীগের দীর্ঘ দিনের হাতে থাকা এ আসন টি এবার হাত ছাড়া হয়ে যেতে পারে। এ জন্য এলাকার আওয়ামীলীগের তৃনমূল পর্যায়ের অধিকাংশ নেতাকর্মীরা মনে করেন দীর্ঘদিনের এ আসন টি ধরে রাখতে হলে নিরপেক্ষতা, সচ্ছতা,বিচক্ষণতা ও সততা নিয়ে সুখ্যাতি পুর্ণ প্রার্থী এবং নতুন মুখ হিসাবে দেশশ্রেষ্ট মেয়র জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আশরাফুল আলম লিটনের কোন বিকল্প নেই। তিনি আগামী নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী হলে দলীয় নেতা কর্মীদের সাথে সাধারণ ভোটাররা সমাদরে গ্রহন করবেন বলে অধিকাংশরা অভিমত ব্যক্ত করেছেন।

0
436

আরিফুজ্জামান আরিফ: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন কে সামনে রেখে যশোরের শার্শা উপজেলায় নির্বাচনী প্রচার-প্রচারনা জমে উঠেছে।বইছে নির্বাচনী হাওয়া।চলছে রাজনৈতিক কর্মকান্ডের হিসাব নিকাশ।

উপজেলার চায়ের দোকান থেকে শুরু করে মাঠে,ঘাটে,হাট বাজারে সর্বত্রই সম্ভাব্য প্রার্থীদের নিয়ে নানা আলোচনা- সমালোচনায় মুখর হয়ে উঠেছে মানুষ। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী ছাড়াও সচেতন মহল প্রার্থী নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ করছেন।

আগামী বছরের শুরুতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে মর্মে সম্ভাব্য প্রার্থীরা নড়েচড়ে উঠেছে। অনেক সম্ভাব্য প্রার্থীরা এলাকায় বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও ইফতার মহাফিল সহ ধর্মীয় অনুষ্ঠানে ব্যাপক ভাবে নিজেদের কে সম্পৃক্ত করে জানান দিচ্ছেন প্রার্থীতার কথা। ঈদকে সামনে রেখে পাড়া -মহল্লাগুলোতে চলছে নির্বাচনী আমেজ।

রাজনৈতিক কর্মী ছাড়াও বেড়েছে গরীব অসহয় দুঃস্থ মানুষের কদর। জাতীয় সংসদের নির্বাচনী এলাকা- ৮৫ যশোর-১ শার্শা আসনে এবার সম্ভাব্য প্রার্থী হিসাবে আলোচনায় আছেন বর্তমান সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সহ- সভাপতি আলহজ্ব শেখ আফিল উদ্দিন, বেনাপোল পৌর মেয়র ও জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আশরাফুল আলম লিটন, পাসপোর্ট অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক আবদুল মাবুদ, আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের কেন্দ্রীয় নেতা ড. আকতারুল কবীর, বিএনপি’র সাবেক কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক মফিকুল হাসান তৃপ্তি,জামায়াত নেতা আজিজুর রহমান ও সেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় নেতা মহাসীন কবীর।এদের মধ্যে নির্বাচনী দৌড়ে এগিয়ে সবার শীর্ষে রয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আশরাফুল আলম লিটন। পুরো রমজান মাস জুড়ে উপজেলার সব ইউনিয়নে ইফতার মাহফিল ও দোয়া অনুষ্ঠান গুলিতে তার সরব উপস্হিতি নেতা কর্মীদের পাশাপাশি সাধারন জনগনের মাঝে ফেলে দিয়েছে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার সাড়া।তার আহব্বানে সাড়া দিয়ে ইফতার মাহফিল গুলি পরিনত হয়েছে জনসমুরদ্র।

অপর দিকে বিগত ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর নির্বাচনে চারদলীয় জোট সমর্থিত প্রার্থী জামায়াত নেতা আজিজুর রহমানকে বিপুল ভোটে পরাজিত করে জয়লাভ করে বর্তমান সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সহ- সভাপতি আলহাজ্ব শেখ আফিল উদ্দিন।

সরকারের দ্বিতীয় মেয়াদে তিনি বিনা প্রতিদ্বন্দীতায় নির্বাচিত হন। এলাকায় সার্বিক প্রচার প্রচারনায় তিনি এবার অনেকটা এগিয়ে রয়েছেন।তারপরেও তিনি বিগত দুই মেয়াদ থেকে এযাবত কাল পর্যন্ত সুখে দুখে বিপদে আপদে মানুষের পাশে দাড়িয়ে এলাকার মানুষের কাছে নিজের অবস্থান সুদৃঢ করার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। দুবার এম পি হয়ে তার কিছু বিতর্কিত কর্মকান্ডে উপজেলা ব্যাপি আওয়ামী লীগের একটি বড় অংশ তার কাছ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন বলে অনেক দলীয় নেতা কর্মীদের অভিমত। আর এ সুযোগ কে কাজে লাগিয়ে অবহেলিত নেতাকর্মীদের সুখ দুঃখে পাশে দাড়িয়ে নিজের রাজনৈতিক অবস্হানকে করে নিয়েছে শক্ত ও মজবুত। প্রমান করে দিয়েছেন নিজের সাংগঠনিক দক্ষতা। তাছাড়া জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও দেশশ্রেষ্ট মেয়র আশরাফুল আলম লিটন জনপ্রতিনিধি হিসাবে উপজেলা ব্যাপি তার নিরপেক্ষতা,সচ্ছতা,বি­চক্ষণতা ও সততা নিয়ে ব্যাপক সুখ্যাতি রয়েছে। এ আসনে আওয়ামীলীগের একাধিক প্রার্থীর নাম শোনা গেলেও সবার শীর্ষে রয়েছেন আশরাফুল আলম লিটন।

নির্বাচনী প্রচার প্রচারনায় আওয়ামী লীগের এ দুজনের ছাড়া অন্য কোন দল বা প্রার্থীর প্রচারনা তেমন দেখা যাচ্ছেনা।তবে তারা নিজ দলীয় নেতা কর্মীদের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন।

আওয়ামী লীগের দীর্ঘ দিনের হাতে থাকা এ আসন টি এবার হাত ছাড়া হয়ে যেতে পারে। এ জন্য এলাকার আওয়ামীলীগের তৃনমূল পর্যায়ের অধিকাংশ নেতাকর্মীরা মনে করেন দীর্ঘদিনের এ আসন টি ধরে রাখতে হলে নিরপেক্ষতা, সচ্ছতা,বিচক্ষণতা ও সততা নিয়ে সুখ্যাতি পুর্ণ প্রার্থী এবং নতুন মুখ হিসাবে দেশশ্রেষ্ট মেয়র জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আশরাফুল আলম লিটনের কোন বিকল্প নেই। তিনি আগামী নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী হলে দলীয় নেতা কর্মীদের সাথে সাধারণ ভোটাররা সমাদরে গ্রহন করবেন বলে অধিকাংশরা অভিমত ব্যক্ত করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here