এক গুচ্ছ প্রতিশ্রুতির ঢালা সাজিয়ে বৃহস্পতিবার যশোরে গণসুমুদ্রের মঞ্চে দাঁড়াবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

0
23

ডি এইচ দিলসান : বেলা গড়ানোর সাথে সাথে গোটা যশোর শহর পরিনত হবে জনসুমুদ্রে। গণসুমুদ্রের মঞ্চ কাঁপিয়ে নেতা এসে জনতার মঞ্চে দাঁড়াবেন শোনাবেন তাঁর দিপ্ত সপথ। আর এ জনসমুদ্রে পরিনত করার জন্য এতমধ্যে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করে ফেলেছে আয়োজক কমিটি। বলছিলাম যশোর জেলা স্টেডিয়ামে দীর্ঘ ৫ বছর পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভার কথা।
ইতমধ্যেই প্রধানমন্ত্রীকে বরণ করতে উৎসবের নগরীতে পরিণত হয়েছে যশোর। রং-বেরংয়ের সুবিশাল তোরণ, ব্যানারে ছেয়ে গেছে শহর। সর্বত্রই উৎসবের আমেজ। সমাবেশস্থল যশোর স্টেডিয়ামে ইতোমধ্যে নৌকার আদলে সভামঞ্চ নির্মাণ সম্পন্ন হয়েছে। সুপেয় পানি, মগ ও বাথরুম স্থাপনের কাজও শেষ হয়েছে। নৌকার আদলে নির্মিত মঞ্চের দৈর্ঘ্য ১২০ ফুট ও প্রস্থ ৪০ ফুট। মূল মঞ্চ করা হয়েছে ৮০ ফুট বাই ৪০ ফুট। মঞ্চের পেছনে ৭৬ ফুট বাই ১০ ফুট ব্যানার টাঙানো হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি ও জনসভা বাস্তবায়নে মঞ্চ সাজসজ্জা উপপর্ষদের আহ্বায়ক আব্দুল মজিদ।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, জনসভায় সেবা দিতে ৪০০ সদস্যের স্বেচ্ছাসেবক কমিটি থাকছে। জেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুখেন মজুমদারকে আহ্বায়ক করে শৃঙ্খলা ও স্বেচ্ছাসেবক এই উপ-কমিটি গঠন করা হয়েছে। স্বেচ্ছাসেবক কমিটির সদস্যরা সমাবেশস্থল, প্রবেশমুখ ও জনসভায় আগতদের সহযোগিতা করতে শহরের প্রবেশমুখে থাকবেন বলেও জানা গেছে।
ট্রাফিক বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের সমন্বয়ে ইতোমধ্যে বিশাল এই গণজমায়েতের জন্য বাস, প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাস মিলিয়ে পাঁচ হাজার যানবাহন আসা ও পার্কিংয়ের জন্য স্থান নির্ধারণ করেছে ট্রাফিক বিভাগ। চার হাজার গাড়ি পার্কিংয়ের জন্য ১০টি স্পট নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে এমপি-মন্ত্রীদের জন্য চারটি স্পট, অন্য ভিআইপিদের জন্য একটি স্পট ও আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী ও শুভানুধ্যায়ীদের বাস, প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাস পার্কিংয়ের জন্য আর পাঁচটি পার্কিং এলাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রয়োজনে সীমানা বাড়ানো হবে। জনসভার দিন শহরে কোনো যানবাহন প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না। শহরের অংশ হেঁটে সবাইকে চলাচল করতে হবে। অবশ্য হেঁটে চলাচলে একটি রোডম্যাপ করা হচ্ছে।
আইন প্রয়োগকারী সংস্থা নিশ্রিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিতে মঙ্গলবার থেকেই মাঠে নামিয়েছে র‌্যাবের প্রশিক্ষিত ডগ স্কোয়াড। নিরলস কাজ করে চলেছে এস এস এফ ও পুলিশ বাহিনী। জেলা পুলিশের একটি সূত্রে জানা গেছে, যশোরের নয়টি থানার পুলিশ সদস্য ছাড়াও বাইরের জেলা থেকেও আনা হচ্ছে বিপুল সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য। এ ব্যাপারে যশোর জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার পুলিশ পরিদর্শক মশিউর রহমান জানিয়েছেন, ফার্স্ট, সেকেন্ড ও থার্ড এই তিন ক্যাটাগরিতে কয়েক হাজার পুলিশ ও র‌্যাব সদস্য নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবেন।
অনুষ্ঠিতব্য ওই সমাবেশে যোগ দেবেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারাও। এ লক্ষ্যে ইতোমধ্যেই ঢাকা ছেড়ে যশোর পৌঁছেছেন অধিকাংশ নেতা। তারই ধারাবাহিকতায় বুধবার বিকেলে জনসভার সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়ে স্টেডিয়ামে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছেলেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক। তিনি বলেন এই জনসভায় ১০ লাখ লোক সমাগমের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। শেখ হাসিনার আগমনকে কেন্দ্র করে উৎসাহ-উদ্দীপনা এখন যশোরজুড়ে।
জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, জনসভার সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। যশোরসহ আশপাশের এলাকার কোনও মানুষ ঘরে থাকবে না, তারা বৃহত্তর যশোরের উন্নয়নে রূপকার বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার কথা শুনতে আসবে। তিনি বলেন, এখানকার প্রত্যান্ত অঞ্চলগুলোতে আমরা গিয়েছি, সেখানকার মানুষ জানে ১৪ বছর আগে যশোর ছিল একটি ক্ষতবিক্ষত জনপদ। সেই যশোরসহ আশপাশের জেলাগুলাতে এখন উন্নয়নের ছোঁয়া লেগেছে। এই এলাকার মানুষ সবসময় মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি আওয়ামী লীগকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করেছে।
যশোরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আসার খবরে এই এলাকার মানুষের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা সৃষ্টি হয়েছে জানিয়ে নানক বলেন, আগামীকাল স্টেডিয়াম ছাড়িয়ে পুরো শহর জনসভাস্থলে পরিণত হবে। জনসভায় ১০ লাখ লোকের সমাগম হবে। এই জনসভা থেকে বিএনপি-জামায়াত অপশক্তিকে আমরা জানিয়ে দিতে চাই- এই বাংলাদেশ হলো মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তির বাংলাদেশ। সেই গর্জন যশোর থেকে শুরু হবে। বিএনপির সমাবেশের সঙ্গে আওয়ামী লীগের এই জনসভার কোনও প্রতিযোগিতা আছে কিনা, জানতে চাইলে তিনি বলেন, কাদের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করবো, যারা ভাইয়ের সামনে বোনকে রেপ করেছে, গাড়ির মধ্যে যারা মানুষ পুড়িয়ে মেরেছে, যারা দেশকে জঙ্গিবাদের অভয়ারণ্যে পরিণত করেছিল? যারা উন্নয়নের একটি দৃষ্টান্ত দিতে পারবে না, তাদের সঙ্গে প্রতিযোগিতা বা তুলনা করার কোনও সুযোগ আমাদের নেই।
নিরাপত্তার বিষয়ে জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, জঙ্গিরা তৎপর রয়েছে, তাদের ছিনিয়ে নেওয়া হচ্ছে। এসব বিষয় মাথায় রেখে নিশ্চয়ই আমরা সর্বপ্রথম গুরুত্ব দিবো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিরাপত্তার বিষয়টি, তারপর গুরুত্ব পাবে জনসমাগমের বিষয়টি। এ জন্য আমরা গণমাধ্যমের সহযোগিতা চাই। এই জনসভা থেকে দেশবাসীর কাছে একটি বার্তা যাবে উল্লেখ করে বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, দেশের রাজনীতিতে যারা দুষ্টচক্র, সাম্প্রদায়িক শক্তি, সন্ত্রাসী কর্মকন্ড, যারা রাজনীতি ও গণতন্ত্রকে ক্ষতবিক্ষত করতে তৎপর এবং গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য যারা ষড়যন্ত্রের রাজনীতি করছেন, তাদের বিরুদ্ধে সারা দেশের মানুষে কাছে একটি বার্তা যাবে। সেটা হলো দেশের মানুষ আওয়ামী লীগের পক্ষে, শেখ হাসিনার পক্ষে এবং নৌকার পক্ষে। তারা সন্ত্রাসের বিপক্ষে, সাম্প্রদায়িক শক্তির বিপক্ষে।
এ সময় মাঠে উপস্থিত থাকা খুলনা বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, খুলনা বিভাগীয় আওয়ামী লীগ এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা জনসভায় যোগদানের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন। আগামীকাল বৃহস্পতিবারের জনসভা জনসমুদ্রে পরিণত হবে। জনসভাকে ঘিরে এই এলাকার মানুষের মাঝে উৎসবের আমেজ লক্ষ্য করা যাচ্ছে।
তিনি বলেন, জনসভায় দেশের রাজনৈতিক এবং আর্থ-সামাজিক প্রেক্ষাপটে দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য রাখবেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা। বৈশ্বিক অর্থনৈতিক সংকটের মধ্যে দেশের মানুষকে আগামীতে কীভাবে পরিচালনা করবেন, দেশকে কীভাবে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাবেন এবং এই বিষয়ে দেশবাসীর উদ্দেশ্যে গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য রাখবেন তিনি।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, এসএম কামাল হোসেন, বাগেরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য শেখ সারহান নাসের তন্ময়, যশোর জেলা আওয়ামী লগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন, সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার, যশোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ, যশোর-২ আসনের সংসদ সদস্য মেজর জেনারেল (অব.) নাসির উদ্দিন, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ প্রমুখ।
জনসভা নিয়ে যশোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পর পর তিন মেয়াদে ক্ষমতায় এসে যশোরবাসীকে অনেক কিছু উপহার দিয়েছেন। তিনি আরো উপহার দেবেন। কাজী নাবিল আহমেদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী যশোরবাসীকে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় দিয়েছেন, মেডিক্যাল কলেজ দিয়েছেন, শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক দিয়েছেন, ভৈরব নদ খনন শুরু করেছেন। সম্প্রতি আমাদের দক্ষিণাঞ্চলের মানুষদের প্রাণের দাবি পদ্মা সেতু উদ্বোধন হয়েছে। এছাড়া অতি সম্প্রতি কালনা সেতু উদ্বোধন হয়েছে, যার মাধ্যমে দেশের মূল ভূখন্ডের সাথে সুন্দরভাবে যশোরের যোগাযোগ স্থাপন হয়েছে। কালনা সেতুর মাধ্যমে ঢাকা ও চট্টগ্রামের পরে সরকারের পরিকল্পনা অনুযায়ী যশোর-খুলনা তৃতীয় অর্থনৈতিক করিডোর হিসেবে পরিচিতি পেতে যাচ্ছে। তারপরও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমাদের কিছু প্রাপ্তি বাকি আছে।
তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমাদের দীর্ঘদিনের দাবি, তিনি যেন যশোরকে সিটি করপোরেশন করে দেন। আমাদের আরেকটি দাবি, মেডিক্যাল কলেজের সাথে ৫০০ শয্যার হাসপাতাল তৈরি করে দেওয়া। যশোর বিমানবন্দরটি অত্যন্ত পুরোনো। আমাদের দাবি, প্রধাানমন্ত্রী এই বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পরিণত করে দেবেন। তিনি সব সময় আমাদের দক্ষিণবঙ্গের মানুষের প্রতি বিশেষ দৃষ্টি দিয়ে থাকেন। আমরা তার প্রতি অত্যন্ত কৃতজ্ঞ।
মহাসমাবেশের সার্বিক প্রস্তুতি বিষয়ে যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বীরমুক্তিযোদ্ধা শহিদুল ইসলাম মিলন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্য শুনতে মুখিয়ে আছেন যশোরসহ দক্ষিণাঞ্চলের মানুষ। জনসভায় ১০ লাখ মানুষের মানুষের ঢেউ নামবে এবং স্মরণকালের সর্ববৃহৎ জনসমুদ্র হবে যশোরে।