এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ র‌্যাংকিংয়ে

0
236

ক্রীড়া ডেস্ক: বাংলাদেশ সফরে অস্ট্রেলিয়া দল আসবে কিনা তাতে এখনো সংশয় রয়েছে! অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে ক্রিকেটারদের এখনো সমঝোতা হয়নি। তবে বাংলাদেশ সফর নিয়ে আশাবাদী অস্ট্রেলিয়া। ক্রিকেট বোর্ডের বিশ্বাস, বাংলাদেশ সফরের আগেই একটা ফয়সালা হয়ে যাবে। ইতিমধ্যে দল গোছানোও শুরু করে দিয়েছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। দুই টেস্টের সিরিজ নিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল অনেক আগে থেকেই সিরিয়াস। ইতিমধ্যে অনুশীলনে নেমে পড়েছেন মুশফিকরা। এখন ফিটনেস ক্যাম্প করছেন, তারপর স্কিল নিয়ে কাজ করবেন ক্রিকেটাররা। প্রস্তুতিতে সামান্যতম ঘাটতিও রাখতে চায় না বাংলাদেশ।

বাংলাদেশ সব শেষ সিরিজে শ্রীলঙ্কায় গিয়ে ১-১ ব্যবধানে শেষ করেছে। মুশফিকরা লঙ্কানদের মাটিতে নিজেদের শততম টেস্ট ম্যাচটি জিতে ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন। অথচ এই শ্রীলঙ্কার মাটিতে এর আগের সিরিজেই স্বাগতিকদের কাছে হোয়াইটওয়াশ হয়েছিল অস্ট্রেলিয়া।

ঘরের মাঠে বাংলাদেশ সব শেষ টেস্ট সিরিজে খেলেছে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে। সিরিজটি ১-১ ব্যবধানে শেষ হয়েছে। তবে সিরিজের ব্যবধান হতে পারত ২-০! একটুখানি ভুলের কারণে প্রথম টেস্টে জিততে পারেনি বাংলাদেশ। দুর্দান্ত খেলে ‘তীরে এসে তরী ডুবে যায়’। তবে ঘরের মাঠে বাংলাদেশ দল যে কতটা ভয়ঙ্কর তা খুব ভালোভাবেই টের পেয়েছে ইংল্যান্ড। এবার টাইগারদের সামনে অস্ট্রেলিয়া। দুই ম্যাচের এ সিরিজটি জিতলেই ইতিহাস সৃষ্টি করবে বাংলাদেশ। ওয়েস্ট ইন্ডিজকে টপকে প্রথমবারের মতো টেস্ট র‌্যাংকিংয়ের আট নম্বরে উঠে যাবে বাংলাদেশ। আইসিসির টেস্ট র‌্যাংকিংয়ে ৬৯ (৬৮.৮৯) রেটিং পয়েন্ট নিয়ে এখন নবম স্থানে বাংলাদেশ। ৭৫ (৭৪.৬১) রেটিং পয়েন্ট নিয়ে অষ্টম স্থানে রয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। বাংলাদেশ সিরিজ জিতলেই টপকে যাবে ক্যারিবীয়দের। প্রথম ম্যাচে অস্ট্রেলিয়াকে হারাতে পারলে বাংলাদেশের পয়েন্ট হবে ৭৩.৪২। দ্বিতীয় ম্যাচে ড্র করলে হবে ৭৪.৭৫। দশমিকের ব্যবধানে উইন্ডিজকে ছাড়িয়ে যাবে বাংলাদেশ। আর অস্ট্রেলিয়াকে হোয়াইটওয়াশ করতে পারলে বাংলাদেশের রেটিং পয়েন্ট হবে ৭৭.৪০। তাই অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে এ সিরিজ টাইগারদের জন্য বড় সুযোগ।

এক দিন আগেও বাংলাদেশের ওপেনার ইমরুল কায়েস বলেছেন, ‘হোম কন্ডিশনে বাংলাদেশ ওয়ানডেতেও সেরা, টেস্টেও সেরা!’ বাংলাদেশ প্রমাণও করেছে। তা ছাড়া অস্ট্রেলিয়া যত শক্তিশালীই হোক, উপমহাদেশের মাটিতে তারা সুবিধা করতে পারে না। উপমহাদেশে এসে সব শেষ দুই সিরিজেই হেরেছে অস্ট্রেলিয়া। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে ভারতের মাটিতে বোর্ডার-গাভাস্কার ট্রফিতে ২-১ ব্যবধানে হেরেছে অসিরা। এর আগে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ওয়ার্ন-মুরালিধরন ট্রফিতে তো শ্রীলঙ্কার কাছে পাত্তা-ই পায়নি। হেরেছিল ৩-০ ব্যবধানে। উপমহাদেশের মাটিতে অসিরা সব শেষ সিরিজ জিতেছিল ২০১১ সালে, শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে। বাংলাদেশে এবার অস্ট্রেলিয়া খেলতে আসবে তাদের সেরা বোলার মিচেল স্টার্ককে ছাড়াই। দলের ১৩ সদস্য চূড়ান্ত হলেও মিচেল স্টার্কের জায়গায় এখনো কাউকে চূড়ান্ত করতে পারেননি নির্বাচকরা। তারা ‘এ’ দলের দক্ষিণ আফ্রিকা সফরকে ‘পাখির চোখ’ করে রেখেছিলেন। কিন্তু চুক্তি নিয়ে ঝামেলার কারণে ‘এ’ দল দক্ষিণ আফ্রিকা সফর বাতিল করায় রীতিমতো বিপাকে পড়েছে অস্ট্রেলিয়া। তা ছাড়া বোর্ডের সঙ্গে আন্দোলন করতে গিয়ে মানসিকভাবেও কিছুটা দুর্বল হওয়ার কথা ক্রিকেটারদের। যদিও পেশাদার ক্রিকেটারদের সবরকম পরিস্থিতির জন্যই প্রস্তুত থাকতে হয়। এর পরও এটা বাংলাদেশের জন্য একটা বড় সুযোগ।

ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজে বাংলাদেশের ক্রিকেটার পেয়েছিল মনের মতো উইকেট। স্পিন ও স্লো, সেই সঙ্গে আন-ইভেন বাউন্স। বাংলাদেশের স্পিনাররা উইকেটের সুবিধাটা দারুণভাবে আদায় করে নিয়েছেন। মেহেদী হাসান মিরাজ তার অভিষেক সিরিজের দুই ম্যাচে ১৯ উইকেট নিয়ে ইংল্যান্ডকে ধরাশায়ী করতে রেখেছিলেন অগ্রণী ভূমিকা। এবার অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে সিরিজ সামনে রেখেও মিরাজের দিকে তাকিয়ে বাংলাদেশ। তাইজুল ও সাকিবও যদি জ্বলে উঠতে পারেন তবে অস্ট্রেলিয়াকে হারানো কঠিন হওয়ার কথা নয়। পার্টটাইমার স্পিনার হিসেবে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ও মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ তো রয়েছেনই। সব মিলে অস্ট্রেলিয়ার জন্য বাংলাদেশের সেরা দলই অপেক্ষা করছে। এখন একটাই কামনা, দ্রুত অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে তাদের ক্রিকেটারদের ঝামেলা মিটে যাক। ঘরের মাঠে টাইগাররা ইংলিশদের মতো অসিদেরও ধরাশায়ী করুক!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here