এফবিআই-প্রধান কোমিকে হঠাৎ বরখাস্ত ট্রাম্পের

0
217
জেমস কোমি ডোনাল্ড ট্রাম্প

ম্যাগপাই নিউজ ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থার (এফবিআই) পরিচালক জেমস কোমিকে হঠাৎ বরখাস্ত করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। অ্যাটর্নি জেনারেল জেফ সেশনসের সুপারিশের ভিত্তিতে স্থানীয় সময় মঙ্গলবার ট্রাম্প এই সিদ্ধান্ত নেন। হোয়াইট হাউস থেকে দেয়া এক বিবৃতিতে এফবিআই’র প্রধানের পদ থেকে জেমস কোমিকে অব্যাহতি দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। এদিকে, রুশ সরকারের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ জানিয়েছেন, তার সরকার আশা করছে, কোমির বরখাস্তের ঘটনা রুশ-মার্কিন দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কে কোনো প্রভাব ফেলবে না। তার দাবি, কোমিকে বরখাস্তের ঘটনা যুক্তরাষ্ট্রের নিজস্ব সিদ্ধান্ত। এতে রাশিয়ার কোনো সম্পর্ক নেই। উল্লেখ্য, রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্র সফর করছেন। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সঙ্গে তার বৈঠকের কথা রয়েছে। সংবাদসূত্র: বিবিসি, রয়টার্স, আল-জাজিরা
কোমিকে লেখা এক চিঠিতে ট্রাম্প লিখেছেন, ‘অ্যাটর্নি জেনারেলের সঙ্গে আমিও একমত যে, আপনি আর এফবিআইয়ের নেতৃত্ব দেয়ার উপযুক্ত নন।’ তাছাড়া, জেফ সেশনস বলেন, ‘বিচার বিভাগ সর্বোচ্চ পর্যায়ের শৃঙ্খলা, সততা ও আইনের শাসন নিশ্চিত করতে অঙ্গীকারবদ্ধ। এ কারণেই ওই পদে নতুন মুখ প্রয়োজন।’ এদিকে, এফবিআই’র নতুন প্রধানের খোঁজে এর মধ্যেই কাজ শুরু হয়ে গেছে।
মঙ্গলবার কোমি যখন লস অ্যাঞ্জেলেসে এফবিআই এজেন্টদের সামনে বক্তৃতা দিচ্ছিলেন, তখন একজন এসে তার হাতে একটি নোট ধরিয়ে দিয়ে যান। সেখানেই জানানো হয়, তার আর চাকরি নেই। ওই নোট পড়ে ৫৬ বছর বয়সী কোমি হেসে ওঠেন, প্রথমে তিনি ওই চিরকুটকে রসিকতা ভেবেছিলেন। উল্লেখ্য, জেমস কোমি এফবিআই’র পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পান ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বরে। তখন দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ক্ষমতায় ছিলেন। এফবিআই প্রধানরা সাধারণত ১০ বছরের জন্য দায়িত্ব পান। সেই হিসেবে তার মেয়াদ পূর্ণ হতে আরও ছয় বছর বাকি ছিল।
জানা গেছে, গত সপ্তাহে কংগ্রেসের শুনানিতে হিলারির ই-মেইল নিয়ে কোমি পুরোপুরি সঠিক তথ্য দেননি, এমন তথ্য বেরিয়ে আসার পর হোয়াইট হাউস এমন পদক্ষেপ নিলো। তবে, কোমিকে এমন আকস্মিকভাবে বরখাস্ত করায় বিস্মিত হয়েছেন অনেকেই। বিশেষ করে, হিলারির ই-মেইল তদন্তের বিষয়টি নিয়ে তাকে বরখাস্ত করার যুক্তি অনেকের কাছেই বিস্ময়কর বলে মনে হয়েছে। কারণ, ট্রাম্পই তার নির্বাচনী প্রচারের শেষ দিনগুলোতে কোমির ই-মেইল তদন্তের বিষয়টি নিয়ে প্রশংসা করেছিলেন।
কিন্তু মঙ্গলবার মার্কিন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল রড রোসেনস্টেইন বলেন, ‘কোমি তদন্তের শেষ দিকে এসে যা করেছেন, সেটি আমি সমর্থন করি না। কোমি যে ভুল করেছেন, সে ব্যাপারে প্রায় সবাই একমত পোষণ করবে।’ বিচারপ্রক্রিয়া ছাড়াই তদন্ত বন্ধ করার কথা বলে এবং হিলারি সম্পর্কে অযথাই ‘মর্যাদাহানিকর তথ্য’ দিয়ে কোমি ভুলের পাল্লা ভারী করেছেন বলেও অভিযোগ করেন তিনি। এদিকে, ডেমোক্রেটদের অভিযোগ, ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারের সঙ্গে রাশিয়ার যোগাযোগ নিয়ে তদন্ত করছিলেন বলেই জেমস কোমিকে বরখাস্ত হতে হলো।
কোমির ই-মেইল তদন্ত
হিলারি ক্লিনটন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী থাকার সময় অফিসের কাজে ব্যক্তিগত ই-মেইল সার্ভার ব্যবহারের অভিযোগ ওঠার পর বিষয়টি তদন্ত করা নিয়ে সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন কোমি। ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনী প্রচারের সময় তিনি তদন্তের বিষয়টি নিয়ে দুই বার দুই রকম ঘোষণা দেন। প্রথমবার জুলাইয়ে তিনি জানান, বিচার ছাড়াই তদন্ত বন্ধ করা উচিত। কিন্তু পরে নির্বাচনের মাত্র ১১ দিন আগে নতুন করে পাওয়া আরও কিছু ই-মেইল নিয়ে তদন্ত পুনরায় শুরুর ঘোষণা দেন তিনি। তার এই ঘোষণার কারণে নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে হিলারির হেরে যাওয়ার পট প্রস্তুত হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে ডেমোক্রেটরা। হিলারি নিজেও তার হারের জন্য এফবিআই’কে দুষেছেন।
তদন্ত নিয়ে কোমির ভুল তথ্য
কোমি গত ৩ মে সিনেট বিচারবিভাগীয় কমিটিকে বলেছিলেন, হিলারির শীর্ষ সহযোগী হুমা আবেদিন শত শত, হাজার হাজার ই-মেইল তার তৎকালীন স্বামী এন্থনি ওয়েইনারের কাছে পাঠিয়েছিলেন (ফরওয়ার্ড করেছিলেন)। যেগুলোর কয়েকটিতে গোপন তথ্য ছিল। কিন্তু পরে এফবিআই কংগ্রেসে চিঠি পাঠিয়ে জানায়, বিষয়টি নিয়ে কোমি সঠিক তথ্য দেননি।
এফবিআই জানায়, ই-মেইলের সংখ্যা বাড়িয়ে বলেছিলেন কোমি। শত শত, হাজার হাজার নয় বরং অল্পসংখ্যক ই-মেইলই পাঠানো (ফরওয়ার্ড) হয়েছিল ওয়েইনারের কাছে। এগুলোর কোনোটিতেই গোপন তথ্য ছিল বলে চিহ্নিত করা হয়নি। তবে পরবর্তী সময়ে কয়েকটি ই-মেইলের তথ্য গোপন বলে ধারণা করা হয়েছিল।
তাছাড়া, হিলারির সহযোগী আবেদিন নিয়মিতই ই-মেইল প্রিন্ট করার জন্য ওয়েইনারকে ফরওয়ার্ড করতেন বলে কোমি কংগ্রেসে যে সাক্ষ্য দিয়েছিলেন, তাও সঠিক নয় বলে জানিয়েছে এফবিআই। ওয়েইনারের ল্যাপটপে পাওয়া ৪৯ হাজার ই-মেইলের বেশিরভাগই তার কর্মক্ষেত্রের বস্ন্যাকবেরি ডিভাইস থেকে অটোমেটিক ব্যাকআপয়ের মাধ্যমে তার কাছে গিয়েছিল।
বরখাস্ত ইস্যুতে রিপাবলিকানদের প্রতিক্রিয়া
কোমিকে বরখাস্তে ট্রাম্পের পদক্ষেপে কংগ্রেসের রিপাবলিকানদের মধ্যে বিভেদ দেখা দিয়েছে। কোমিকে যে সময় বরখাস্ত করা হয়েছে এবং যে যুক্তি দেখানো হয়েছে, তা নিয়ে সন্তুষ্ট নন রিপাবলিকান নেতারা। বেশিরভাগ রিপাবলিকানই ট্রাম্পের সিদ্ধান্ত নিয়ে উদ্বেগ এবং হতাশা প্রকাশ করেছেন। আর ট্রাম্পের সিদ্ধান্ত ঠিক বলে মত দিয়েছেন খুব কমসংখ্যক রিপাবলিকান।
সিনেট গোয়েন্দা কমিটির প্রধান রিচার্ড বার বলেছেন, ‘কোমিকে বরখাস্ত করার যে যুক্তি দেখানো হয়েছে এবং যে সময় তাকে সরানো হলো তাতে আমি উদ্বিগ্ন।’ নেব্রোস্কার সিনেটর বেন সেসেও কোমিকে বরখাস্ত করার সময় নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। অন্যদিকে, মিশিগানের কনজারভেটিভ কংগ্রেস সদস্য জাস্টিন অ্যামাশ জানিয়েছেন, তিনি রাশিয়ার বিষয়টি তদন্তের জন্য একটি নিরপেক্ষ কমিশন প্রতিষ্ঠার কথা ভাবছেন।
টেনেসির সিনেটর বব কোরকার বলেছেন, ‘ট্রাম্প যে সময়ে কোমিকে সরালেন তাতে কিছু প্রশ্নের অবতারণা হবে। সিনেটর জন ম্যাককেইন বলছেন, তিনি কোমিকে সরানোয় ট্রাম্পের সিদ্ধান্তে হতাশ। অন্যদিকে, সিনেটর জেমস ল্যাঙ্কফোর্ড বলেছেন, তিনি এখনও কোমিকে বরখাস্ত করার বিষয়টি নিয়ে কিছু প্রশ্নের জবাব চান এবং বরখাস্তের কারণ সম্পর্কে স্পষ্ট ব্যাখ্যা চান।
রাশিয়া নিয়ে তদন্তের ভবিষ্যৎ
ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারে রাশিয়ার হাত ছিল কিনা, তা নিয়ে তদন্ত চলাকালীন আকস্মিকভাবে এফবিআই পরিচালক কোমি বরখাস্ত হওয়ায় এই বিষয়ক তদন্ত কার্যক্রম ঝুঁকির মুখে পড়ল। আগের যে কোনো সময়ের চেয়ে এখন রাশিয়ার বিষয়টি নিয়ে অনেক বেশি নিরপেক্ষ তদন্তের প্রয়োজন পড়বে। কারণ, ট্রাম্প এফবিআই’র তদন্তে প্রভাব খাটানোর জন্য কোমিকে হুট করে বরখাস্ত করেছেন বলে অভিযোগ তুলেছেন ডেমোক্রেটরা।
মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদ এবং সিনেটও ঠিক এই অভিযোগটিই খতিয়ে দেখছে। সিনেট সংখ্যাগরিষ্ঠ নেতা চাক শুমার প্রশ্ন তুলে বলেছেন, ‘রাশিয়ার বিষয়টি নিয়ে এফবিআই’র তদন্ত কি ক্রমেই প্রেসিডেন্টকে ঘিরেই ঘনীভূত হচ্ছিল? নাহলে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প কোমিকে বরখাস্তের জন্য এই সময়টিই বেছে নিলেন কেন? হিলারির ই-মেইল তদন্ত নিয়ে প্রশাসনের আপত্তি থেকে থাকলে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ক্ষমতা নেয়ার পরপরই তো কোমিকে বরখাস্ত করতে পারতেন। তখন তিনি তা করেননি। আজ তা ঘটল কেন?’
অনেকেই আবার কোমিকে বরখাস্তের ঘটনার সঙ্গে সাবেক প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিক্সনের আমলে ওায়াটারগেট কেলেঙ্কারির সময়কার ঘটনার মিল খুঁজে পাচ্ছেন। ওয়াটারগেট কেলেঙ্কারির সময় নিক্সনও তদন্তকারী নিরপেক্ষ বিশেষ কেঁৗসুলিকে বরখাস্ত করেছিলেন। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প অবশ্য বরাবরই রাশিয়া নিয়ে অভিযোগকে ‘ভুয়া খবর’ বলে দাবি করে এসেছেন।
তবে তদন্ত চলার সময়ে কোমিকে সরানোর ফলে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের এখন রাশিয়ার সঙ্গে যোগাযোগের বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চালানোর জন্য একজন কর্মকর্তা নিয়োগ দেয়ার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। যদিও শুমার বলছেন, নিরপেক্ষ একজন কেঁৗসুলি নিয়োগ দিতে না পারলে প্রতিটি মার্কিনিরই ধারণা জন্মাবে, রাশিয়ার বিষয়টি ধামাচাপা দিতেই কোমিকে সরিয়ে দিয়েছেন ট্রাম্প।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here