এবার ঝিকরগাছায় আ.লীগের ৯ বিদ্রোহী প্রার্থী বহিস্কার

0
51

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার ৬ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের ৯ বিদ্রোহী প্রার্থীকে দল থেকে বহিস্কার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম মুকুল ও সাধারণ সম্পাদক মুসা মাহমুদ স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে তাদেরকে বহিস্কারের সুপারিশ করা হয়। জেলা কমিটি ওই ৯জনকে সাময়িক বহিস্কার করে চূড়ান্ত বহিস্কারের জন্য তালিকা কেন্দ্রে পাঠিয়েছে। এ খবর জানাজানি হয়েছে আজ শনিবার (৬ নভেম্বর)। এর আগে মঙ্গলবার চৌগাছার ৭টি ইউনিয়নে নৌকার ১৩ বিদ্রোহী প্রার্থীকে দল থেকে বহিস্কার করা হয়। দুই উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের ২২ বিদ্রোহী প্রার্থীকে বহিস্কার করা হল। আগামি ১১ নভেম্বর দ্বিতীয় দফায় দুই উপজেলার ২২ ইউনিয়নে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

এ প্রসঙ্গে শনিবার বিকেলে যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন বলেন, ঝিকরগাছা ও চৌগাছার ২২ বিদ্রোহী প্রার্থীকে দল থেকে সাময়িক বহিস্কার করা হয়েছে। তাদেরকে চূড়ান্ত বহিস্কারের জন্য তালিকা কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। কেন্দ্র এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিবেন।

ঝিকরগাছা উপজেলার বহিস্কৃতরা হলেন- গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি আতাউর রহমান ঝন্টু, সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান চেয়ারম্যান বদর উদ্দীন বিল্টু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম শহিদ, সদস্য মইয উদ্দীন। মাগুরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ওবায়দুর রহমান। শিমুলিয়া আওয়ামী লীগের সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জহুরুল হক, গদখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহাজান আলী, ৮নং নির্বাসখোলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম ও হাজিরবাগ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সদস্য নুরুল আমীন মধু।
এ বিষয়ে ঝিকরগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম মুকুল জানান, দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে এই নয়জন ইউপি নির্বাচনে স্বতন্ত্র নির্বাচন করছে। এজন্য দলীয় শৃঙখলা রক্ষার্থে উপজেলা আওয়ামী লীগ তাদের বহিস্কারের সুপারিশ করেছে। ভবিষ্যতেও কেউ দলের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার চেষ্টা করলে তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।
সদ্য বহিস্কৃত গদখালি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহাজান আলী সাংবাদিকদের বলেছেন, আমি যদি দলীয় শৃঙখলা ভঙ্গ করি তাহলে আমাকে বহিস্কারের আগে কারণ দর্শানোর জন্য অন্তত তিনটা নোটিশ দেয়ার কথা। কিন্তু উপজেলা নেতৃবৃন্দ নিয়ম বহির্ভুতভাবে আমাকে বহিস্কারের সুপারিশ করেছেন।’
সদ্য বহিস্কৃত গঙ্গানন্দপুর ইউপির আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী, আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান চেয়ারম্যান বদর উদ্দীন বিল্টু জানান, কোন রকম নোটিশ ছাড়াই তাকে বহিস্কারের সুপারিশ করা হয়েছে। আমার ইউনিয়নে জামায়াত-বিএনপির কোন প্রার্থী নেই এজন্য প্রতিদ্বন্দ্বীতার জন্য আমি নির্বাচন করছি। যদি বিরোধীদলের কোন প্রার্থী থাকতো, তাহলে আমি স্বতন্ত্র নির্বাচন করতাম না।’
এদিকে, গত ২ নভেম্বর (মঙ্গলবার) যশোরের চৌগাছায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী হিসেবে স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ায় ১৩ নেতাকে দল থেকে বহিস্কার করা হয়েছে। ওই চিঠিতে বলা হয়, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র ৪৭ এর ১১ ধারা মোতাবেক জাতীয় ও স্থানীয় নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে প্রার্থী হলে সরাসরি দল থেকে বহিস্কার হবে। ওই ধারা মোতাবেক চৌগাছা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে যারা প্রার্থী হয়েছেন তাদেরকে বহিস্কার করা হল।#