এবার সেই ব্যারিস্টার ছেলে মুর্তজার বিরুদ্ধে বৃদ্ধা মায়ের মামলা

0
94

নিজস্ব্ প্রতিবেদক :
মামলা প্রত্যাহার না করায় মাকে অপহরণের পর কম্পোজ করা দুটি কাগজে স্বাক্ষর করিয়ে নেয়ার অভিযোগে সেই ব্যারিস্টার ছেলে একেএম মর্তুজা রাসেলের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেছেন মা। এছাড়াও এ মামলায় আরও তিনজনকে আসামি করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার (৪ এপ্রিল) চৌগাছা উপজেলার মাকাপুর গ্রামের হায়দার আলীর স্ত্রী লতিফা হায়দার এই মামলা করেছেন। বিচারক অতিরিক্ত চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মারুফ আহমেদ মামলাটি তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের জন্য সিআইডিকে আদেশ দিয়েছেন।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন : চৌগাছার মাকাপুর গ্রামের মোস্তাফিজুর রহমানের ছেলে বিশাল ও তরিকুল ইসলামের ছেলে রাজিব।

বাদী মামলায় উল্লেখ করেছেন, বাদী ও তার স্বামীকে খুন জখমের ভয়ভীতি দেখিয়ে জমিজমা লিখে নেয়ার জন্য চেষ্টা করছে আসামিরা। এই ঘটনায় গত ২৩ ফেব্রুয়ারি আসামি রাজিবসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে লতিফা আদালতে মামলা করেন। এরপর থেকে আরও ক্ষিপ্ত হন ব্যারিস্টার একেএম মর্তুজা রাসেল। বাদীর ছোট ছেলে আল ইমরানের গোডাউন ভেঙ্গে পাট চুরি করে এবং খেতের গম কেটে নিয়ে যায় রাসেলসহ অন্যরা। এই ঘটনায় আল ইমরান বাদী হয়ে আরও একটি মামলা করেন। ফলে আরও ক্ষিপ্ত হয়ে রাসেল বাদী হয়ে তার মা, ভাই, বোন, ভগ্নিপতিসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে চৌগাছা থানায় একটি মিথ্যা চাঁদাবাজি মামলা করেন। এছাড়া বাদী লতিফা হায়দারকে খুনজখমসহ নানা ধরনের ভয়ভীতি দেখানোর কারণে বর্তমানে তিনি ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার শংকরহুদা গ্রামে পিতার বাড়িতে অবস্থান করছেন। ব্যারিস্টার রাসেলের দায়ের করা মামলায় তার ভাই আল ইমরান ও বোন ¯েœহলতা পারভীন বিউটিকে গত ২৭ মার্চ পুলিশ আটক করে। খবর পেয়ে ওইদিন দুপুর ১২টার দিকে যশোর আদালতে আসেন লতিফা হায়দার। এসময় ছেলে ব্যারিস্টার রাসেলের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহারের জন্য তার মাকে আদালতে চতুর্থতলা থেকে জোর করে নিচে এনে গাড়িতে তোলে আসামিরা। এরপরে তাদের কাছে থাকা কম্পিউটারে কম্পোজ করা দুটি নীল রঙের কাগজে জোর করে স্বাক্ষর করিয়ে নেয়। ওই সময় লতিফা হায়দারের আইনজীবীর কাছ থেকেও স্বাক্ষর করিয়ে এনে দিতে বলে। এতে রাজি না হলে তাকে খুন জখমের ভয় দেখায়। এসময় লতিফা হায়দারের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে তাকে রক্ষা করে। কিন্তু তার কাছ থেকে স্বাক্ষর করিয়ে নেয়া কাগজ দুুটি দিয়ে যেকোনো ধরনের ক্ষতি সাধন করতে পারে বলে লতিফা হায়দার সন্দেহ পোষণ করছেন।

উল্লেখ্য গত ২৭ মার্চ দুপুরে ব্যারিস্টার একেএম মর্তুজা রাসেল একজন সিনিয়র আইনজীবীর সাথেও চরমভাবে দুর্ব্যবহার করেছেন। এই নিয়ে আদালতপাড়ায় তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়।