এমপি লিটনকে হত্যার সময় ডা. কাদের ‘অফিসিয়ালি’ ভারেত থাকেলো আসাম সীমান্তের অরক্ষিত একটি অংশ চোরাই পথে দেশে আসে

0
466

গাইবান্ধা প্রতিনিধি : গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন হত্যাকাণ্ডে নিজের জড়িত থাকার প্রমাণ মুছতে সব চেষ্টাই করেছিলেন তার প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পার্টির সাবেক সংসদ সদস্য কর্নেল (অব.) ডা. আবদুল কাদের খাঁন। হত্যাকাণ্ডে যাতে কেউ তাকে দোষারোপ করতে না পারে সেজন্য ঘটনার ১০ দিন আগেই বেনাপোল বন্দর দিয়ে বৈধভাবেই ভারতে যান তিনি।কিন্তু, নীলনকশার অংশ হিসেবে তিনি কৌশলে আসাম সীমান্তের অরক্ষিত একটি অংশ দিয়ে কয়েকবার স্বল্প সময়ের জন্য দেশে ঢোকেন। এরপর হত্যা নিশ্চিত হওয়ার তথ্য জেনে তিনি আবারও ভারতে প্রবেশ করেন। এরপর ঘটনাটি না জানার ভান করে আবারও দেশে ফিরে আসেন।

গ্রেফতারের পর জবানবন্দিতে এসব তথ্য স্বীকার করেছেন কর্নেল (অব.) ডা. আবদুল কাদের খাঁন। পরে ১৬৪ ধারায় ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতেও তিনি স্বীকার করেছেন এসব তথ্য।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও সুন্দরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) আবু হায়দার মো. আশরাফুজ্জামান এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, সাবেক সেনা কর্মকর্তা হওয়ায় একটা হত্যাকাণ্ডের ক্ষেত্রে গোয়েন্দারা কী কী বিষয়ে নজরদারি করতে পারে সে বিষয়ে ভালোই ধারণা ছিল কর্নেল (অব.) ডা. আবদুল কাদের খাঁনের। তাই সংসদ সদস্য মনজুরুল ইসলাম লিটনকে সরাতে দীর্ঘ সময় ও অর্থ ব্যয় করে নীলনকশা করেন ওই আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ডা. কাদের । এই নীলনকশার অংশ হিসেবে লিটন হত্যার ১০ দিন আগে গত বছরের ১৯ অক্টোবর ভারতে যান তিনি। চলতি বছর ৬ জানুয়ারি পর্যন্ত তিনি ‘অফিসিয়ালি’ সেখানেই ছিলেন। কিন্তু, এর মধ্যেই হত্যামিশন সফল করতে চোরাই পথে দুই তিন বার দেশে ঢোকেন তিনি।

তিনি জানান, গ্রেফতার কাদের খাঁন ও হত্যায় অংশ নেওয়ার কিলাররা স্বীকারোক্তিতে বলেন, কাদের খাঁন ভিসা-পাসপোর্টে ভারতে অবস্থান করলেও এমপি লিটন হত্যা মিশন সফল করতে চোরাই পথে তিনি দুই থেকে তিনবার ভারত থেকে বাংলাদেশে আসা যাওয়া করেন। ভারতের আসাম রাজ্যের একটি স্থলবন্দর দিয়ে চোরাই পথে বাংলাদেশে আসেন তিনি। এর আগেও তিনি কয়েক দফা চোরাইপথে ভারতে আসা যাওয়া করেন।

তিনি আরও জানান, এই হত্যা মিশনে কাদের খাঁন যুদ্ধাপরাধী জামায়াত নেতা আব্দুল আজিজ ওরফে ঘোড়ামারা আজিজের সঙ্গে বৈঠক করেন বলে জানা গেছে। সর্বশেষ চোরাই পথে বাংলাদেশে এসে ৩১ ডিসেম্বর নিজ বাড়িতে এমপি লিটন হত্যা মিশন সফল হওয়ার খবর নিশ্চিত হয়ে কাদের খাঁন আবারও সীমান্ত পাড়ি দিয়ে ভারতে চলে যান। এরপর কিছুই জানেন না ভান করে পাসপোর্ট-ভিসায় চলতি বছর ৬ জানুয়ারি ভারত থেকে কাদের খাঁন দেশে ফেরেন।

উল্লেখ্য, ৩১ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৬টার দিকে সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বামনডাঙ্গা ইউনিয়নে শাহবাজ (মাস্টারপাড়া) এলাকায় নিজ বাড়িতে দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত হন এমপি মনজুরুল ইসলাম লিটন। এ ঘটনায় লিটনের বোন বাদী হয়ে সুন্দরগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এই ঘটনার দেড় মাসেরও বেশি সময় পর গত মঙ্গলবার (২১ ফেব্রুয়ারি) লিটন হত্যার মূল হোতা সন্দেহে জাতীয় পার্টির সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক সংসদ সদস্য ডা. আবদুল কাদের খানকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে ওই হত্যাকাণ্ডে জড়িত ডা. কাদেরের গাড়িচালক, এক ভাতিজা, কাজের ছেলে ও রানা নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এই চার জনের সবাই এরই মধ্যে এমপি লিটন হত্যায় জড়িত থাকার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

২২ ফেব্রুয়ারি কাদের খাঁনকে ১০ দিনের রিমান্ডে নেওয়ার পর তার দেওয়া তথ্য অনুয়ায়ী তার বাড়ি থেকে একটি পিস্তল, ছয় রাউন্ড গুলি ও ম্যাগজিন উদ্ধার করে পুলিশ। এর আগে কাদের খান একটি পিস্তুল ও ১০ রাউন্ড গুলি সুন্দরগঞ্জ থানায় জমা দিয়েছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here