এশিয়া কাপের আয়োজকের তালিকা থেকে বাদ পড়ছে ভারত-পাকিস্তান

0
42

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ভারতের মাটিতে ওয়ানডে বিশ্বকাপের আগে এশিয়া কাপ নিয়ে জমেছিল নাটক। রাজনৈতিক বৈরিতাকে খেলার মাঠে টেনে এনেছিল ভারত-পাকিস্তান। নিরাপত্তা ইস্যুকে অজুহাত বানিয়ে পাকিস্তানের মাঠে এশিয়া কাপ খেলতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিল ভারত। যার প্রেক্ষিতে হাইব্রিড পদ্ধতিতে আয়োজন করতে হয়েছিল টুর্নামেন্ট। এরপর ভারতের মাটিতে পাকিস্তানের ওয়ানডে বিশ্বকাপ খেলা নিয়েও জেগেছিল শঙ্কা। তবে ভারত পাকিস্তানে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি খেলতে যাওয়ার অঙ্গীকার করায় সে যাত্রায় রক্ষা।
এশিয়া কাপের আয়োজক হিসেবে ভারত-পাকিস্তানের নাম বিবেচনা করবে না এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল। ছবি: সংগৃহীত
এশিয়া কাপের আয়োজক হিসেবে ভারত-পাকিস্তানের নাম বিবেচনা করবে না এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল। ছবি: সংগৃহীত
খেলার সময়

ভারত-পাকিস্তান বৈরিতার কারণে এশিয়া কাপ নিয়ে নতুন সিদ্ধান্তে আসতে যাচ্ছে এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল (এসিসি)। আয়োজক নির্ধারন নিয়ে নতুন সিদ্ধান্ত নিয়েছে সংস্থাটি। এছাড়া আগামী মাসে চার থেকে আট বছরের জন্য এশিয়া কাপের মিডিয়া স্বত্ব নিয়ে বিড করার পরিকল্পনা করছে এসিসি।

ক্রিকেট বিষয়ক ওয়েবসাইট ক্রিকবাজ জানিয়েছে, সম্প্রচারকারীদের পরামর্শে দীর্ঘমেয়াদী চুক্তিতে যাচ্ছে এসিসি। তাই চার বা আট বছর মেয়াদী চুক্তি করতে চায় এশিয়ান ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। এই চুক্তিতে থাকছে চারটি এশিয়া কাপের আসর, যার দুটি ওয়ানডে ও বাকি দুটি টি-টোয়েন্টি সংস্করণের।

ভারত-পাকিস্তানের দীর্ঘ রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব খেলার মাঠেও ভালোই প্রভাব রেখেছে। এক যুগেরও বেশি সময় ধরে এই দুই দেশ নিজেদের মধ্যে কোন দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলে না। আইসিসি ও এসিসির টুর্নামেন্টেই শুধু ভারত-পাকিস্তানকে মুখোমুখি হতে দেখা যায় এখন।

গত বছর এশিয়া কাপ ও বিশ্বকাপের আগে পরিস্থিতি জটিল হয় আরও। পাকিস্তানের মাঠে এশিয়া কাপ খেলতে যেতে আপত্তি জানায় ভারত। তার প্রেক্ষিতে ভারতের মাটিতে ওয়ানডে বিশ্বকাপ বয়কটের হুমকি দেয় পাকিস্তানও। ২০২৫ সালে পাকিস্তানে অনুষ্ঠিতব্য চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে ভারত অংশ নেবে -এমন প্রতিশ্রুতি দিলে পাকিস্তান বিশ্বকাপ খেলতে যায়। ভারত-পাকিস্তানের এই বৈরিতার কারণে ভবিষ্যতে এশিয়া কাপ এই দুই দেশের বাইরের ভেন্যুতে আয়োজনের সিদ্ধান্ত হচ্ছে।

এসিসি জানিয়েছে, বিতর্ক এড়াতে ভারত ও পাকিস্তানকে এশিয়া কাপের আয়োজক দেশের তালিকায় রাখা হচ্ছে না। ফলে স্বাগতিক দেশ হওয়ার তালিকায় থাকছে বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা, আরব আমিরাত ও ওমানের নাম।

বাংলাদেশের সামনে তাই সামনে এককভাবে আয়োজক হওয়ার সুযোগ থাকছে। তবে সে জন্য বিসিবিকে বিডে অংশ নিতে হবে।

এদিকে এশিয়া কাপের মিডিয়া রাইটস বাড়বে বলেও আশা করা হচ্ছে। এর আগের এশিয়া কাপের চারটি আসরের জন্য মিডিয়া রাইটস চুক্তি ছিল প্রায় ৮০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের।