এসএসসিতে দেশসেরা সাফল্য অর্জন করেছে যশোর বোর্ড

0
41

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনাকালের পর এসএসসি পরীক্ষায় যশোর বোর্ডে পাসের হারে দেশসেরা সাফল্য অর্জন করেছে যশোর বোর্ড। পাশাপাশি জিপিএ-৫ প্রাপ্তিও গতবছরের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ। এর মধ্যে দিয়ে এই বোর্ডের ফলাপল অতীতের সব রেকর্ড ভেঙ্গেছে। এ বছর এই বোর্ডে পাসের হার ৯৫ দশমিক ১৭ শতাংশ এবং জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩০ হাজার ৮৯২ জন শিক্ষার্থী। গত বছর এই বোর্ডে পাসের হার ছিল ৯৩ দশমিক ০৯ শতাংশ এবং জিপিএ-৫ পেয়েছিল ১৬ হাজার ৪৬১ জন শিক্ষার্থী। এর আগে ২০১৩ সালে সর্বোচ্চ পাসের হার ছিল ৯২ দশমিক ৬৪ ভাগ। সোমবার দুপুরে (২৮ নভেম্বর) প্রকাশিত ফলাফলে যশোর বোর্ডের এ চিত্র উঠে এসেছে।

যশোর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক মাধব চন্দ্র রুদ্র জানান, এবছর যশোর বোর্ডে মোট ১ লাখ ৬৯ হাজার ৫০১ জন শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে। এদের মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ১ লাখ ৬১ হাজার ৩১৪ জন। পাসের হার ৯৫ দশমিক ১৭ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩০ হাজার ৮৯২ জন।
গতবছর (২০২১) করোনাকালের সংক্ষিপ্ত সিলেবাস ও পরীক্ষায় যশোর বোর্ডে মোট ১ লাখ ৭৮ হাজার ৭৯৫ জন শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছিল। এদের মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছিল ১ লাখ ৬৬ হাজার ৪৩৯ জন। পাসের হার ছিল ৯৩ দশমিক ০৯ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছিল ১৬ হাজার ৪৬১ জন। সে অনুযায়ী গতবছরের চেয়ে এবছর যশোর বোর্ড থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে প্রায় দ্বিগুণ শিক্ষার্থী। এবার ১৪ হাজার ৪৩১ জন শিক্ষার্থী বেশি জিপিএ-৫ পেয়েছে। আর পাসের হার ২ দশমিক ০৮ শতাংশ বেড়েছে।

যশোর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডের তথ্য অনুযায়ী, ২০২০ সালে যশোর বোর্ডে মোট ১ লাখ ৬০ হাজার ৬৩৫ জন শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে। এদের মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছিল ১ লাখ ৪০ হাজার ২৪৩ জন। পাসের হার ছিল ৮৭ দশমিক ৩১ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছিল ১৩ হাজার ৭৬৪ জন।
আর ২০১৯ সালে যশোর বোর্ডে মোট ১ লাখ ৮২ হাজার ৩১০ জন শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছিল। এদের মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছিল ১ লাখ ৬৫ হাজার ৬৮৮ জন। পাসের হার ছিল ৯০ দশমিক ৮৮ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছিল ৯ হাজার ৯৪৮ জন।

২০১৮ সালে যশোর বোর্ডে মোট ১ লাখ ৮৩ হাজার ৫৮৫ জন শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে উত্তীর্ণ হয়েছিল ১ লাখ ৪০ হাজার ৬৯৯ জন। পাসের হার ছিল ৭৬ দশমিক ৬৪ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছিল ৯ হাজার ৩৯৫ জন।
২০১৭ সালে যশোর বোর্ডে মোট ১ লাখ ৫৩ হাজার ৬৭৩ জন শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করেছিল। এদের মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছিল ১ লাখ ২২ হাজার ৯৯৫ জন। পাসের হার ছিল ৮০ দশমিক ০৪ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছিল ৬ হাজার ৪৬০ জন।

তবে এর আগে রেকর্ড পাসের হার ছিল ২০১৬ সালে। ওই বছর ১ লাখ ৪৮ হাজার ৬৪ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১ লাখ ৩৫ হাজার ৯৯৪ জন উত্তীর্ণ হয়েছিল। পাসের হার ছিল ৯১ দশমিক ৮৫ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছিল ৯ হাজার ৪৪৪। ২০১৯ সালের আগে ২০১৬ সালেই পাসের হার ৯০এর কোটা অতিক্রম করেছিল।
যদিও ২০১৫ সালে যশোর বোর্ডে পাসের হার বেশ কম ছিল। ওই বছর ১ লাখ ২৭ হাজার ৬৮৫ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছিল ১ লাখ ৭ হাজার ৯০৮ জন। পাসের হার ছিল ৮৪ দশমিক ৫১ ভাগ। আর জিপিএ-৫ পেয়েছিল ৭ হাজার ১৯৮ জন শিক্ষার্থী।

এর আগে ২০১৪ সালে এই বোর্ড থেকে ১ লাখ ২৯ হাজার ২২৮ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১ লাখ ১৯ হাজার ২২৫ জন উত্তীর্ণ হয়েছিল। পাসের হার ছিল ৯২ দশমিক ২৬ ভাগ। ২০১৪ সালে জিপিএ-৫ পেয়েছিল ১০ হাজার ৯৬৯ জন শিক্ষার্থী।
২০১৩ সালে যশোর বোর্ড থেকে ১ লাখ ১৮ হাজার ৩২৭ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১ লাখ ৯ হাজার ৬১৯ জন উত্তীর্ণ হয়েছিল। পাসের হার ছিল ৯২ দশমিক ৬৪ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছিল ৯ হাজার ১০১ জন শিক্ষার্থী।
যশোর বোর্ডের তথ্য অনুযায়ী, প্রতিবছরের মত এবারও যশোর বোর্ডে অন্য বিভাগের তুলনায় তাক লাগানো ফলাফল করেছে বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীরা। এই বিভাগ থেকে ৩৮ হাজার ৩৭৭ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে পাস করেছে ৩৭ হাজার ৭৬৮ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৩ হাজার ৭০১ জন। জিপিএ-৫ প্রাপ্তির ক্ষেত্রে এগিয়ে আছে মেয়েরা। সর্বোচ্চ এ ফল অজর্নকারীদের মধ্যে ১১ হাজার ৭৭৭ জন ছাত্র ও ১১ হাজার ৯২৪ জন ছাত্রী। এই বিভাগে পাসের হার ৯৮ দশমিক ৪১ ভাগ।
বোর্ডে পাসের হারে বিজ্ঞানের পরেই রয়েছে ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগ। এই বিভাগ থেকে ২২ হাজার ৪১০ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাস করেছে ২১ হাজার ৮৩৪ জন। পাসের হার ৯৭ দশমিক ৪৩ ভাগ। এই বিভাগ থেকে এবছর জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ হাজার ৬২৬ জন। এদের মধ্যে ছাত্র ৯৭৮ ও ছাত্রী ১ হাজার ৬৪৮।

মানবিক বিভাগ থেকে ১ লাখ ৮ হাজার ৭১৪ জন ছাত্রছাত্রী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাস করেছে ১ লাখ ১ হাজার ৭১২ জন। পাসের হার ৯৩ দশমিক ৫৬ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪ হাজার ৫৬৫ জন। এদের মধ্যে ছাত্র ৮৬২ ও ছাত্রী ৩ হাজার ৭০৩ জন।
যশোর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড’র পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক মাধব চন্দ্র রুদ্র জানিয়েছেন, এবছর এসএসসি পরীক্ষায় যশোর বোর্ডের প্রশ্নপত্র ভাল হয়েছে। আর সংক্ষিপ্ত সিলেবাসের প্রশ্নপত্রে উত্তর দেয়ার জন্য শিক্ষার্থীদের অনেক বিকল্প (অপশন) ছিল। ফলে শিক্ষার্থীরা পরীক্ষায় ভাল করেছে। এছাড়া প্রশ্নব্যাংকসহ যশোর বোর্ডের গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপের কারণে শিক্ষার্থীদের মূল বইয়ের প্রতি নির্ভরতা বেড়েছে। এজন্য তারা ভাল ফলাফল অর্জন করেছে।