এসএসসির খাতা দেখায় পরীক্ষকদের গাফিলতি মনিটরিং চলছে শিক্ষাবোর্ড

0
267

নিজস্ব প্রতিবেদক: রবিবার (২৮ মে) ঢাকা শিক্ষাবোর্ডে ঢাকা, বরিশাল ও সিলেট এই তিন শিক্ষাবোর্ডের প্রায় দুই শতাধিক প্রধান পরীক্ষক মনিটরিংয়ের প্রাথমিক কাজ সম্পন্ন করেন। এ কাজে অংশ নেওয়া প্রধান পরীক্ষকদের হাতে বিশেষভাবে তুলে দেওয়া হয়েছে এএমআর শিট। এই শিট পূরণ করার পর বোর্ড কর্তপক্ষ সফটওয়ারের মাধ্যমে বিশ্লেষণ করবে।

বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, ওএমআর শিট পূরণ করা শেষ হলে সফটওয়ারের মাধ্যমে বিশ্লেষণ করে সেই অনুযায়ী কর্মশালার মাধ্যমে শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।

ওএমআর শিট পূরণের নির্দেশিকায় বলা হয়েছে,শিক্ষাবোর্ড থেকে প্রধান পরীক্ষকদের সরবরাহ করা উত্তরপত্রগুলো তিন ক্যাটাগরিতে বাছাই করা হচ্ছে। প্রধান পরীক্ষকের দেখা উত্তরপত্রের মধ্যে ৫০টি, অন্যান্য পরীক্ষকদের মূল্যায়ণ করা উত্তরপত্রের মধ্যে দু’শটি এবং পুনর্মূল্যায়ণ করা ১২ শতাংশ উত্তরপত্রের মধ্যে ৫০টি উত্তরপত্র বাছাই করা হচ্ছে।

ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা ও ইভালুয়েশন স্পেশালিস্ট আহমদ ওবাইদুস সাত্তার ভূঁইয়া এ বিষয়ে বলেন, ‘উত্তরপত্রে কোনও প্রশ্নে কত নম্বর দেওয়া হয়েছে, তা বৃত্ত ভরাটের মাধ্যমে উল্লেখ করছেন পরীক্ষকরা। কোন পরীক্ষক কোন প্রশ্নের উত্তরে কত নম্বর দিয়েছেন, তা দেখা হচ্ছে। ফলে উত্তরের সঠিক মান যাচাই করে নম্বর ঠিকমত দেওয়া হয়েছে কিনা, তা খুব সহজেই বোঝা যাবে। উত্তরপত্র দেখতে কোনও পরীক্ষক কোনও প্রকার অবহেলা করেছেন কিনা, তা বোঝা যাবে। ’

তিনি বলেন, ‘প্রধান পরীক্ষকদের পূরণ করা ওএমআর শিটের এই ডাটাগুলো সফটওয়ারের মাধ্যমে এনালাইসিস করা হবে। কোনও উত্তরের দুর্বলতা কতটা, ছাত্ররা কোন প্রশ্নের উত্তর দিতে বেশি আগ্রহবোধ করে তাও দেখা যাবে এই বিশ্লেষণে। এই গবেষণার মাধ্যমে পরবর্তী বছরে প্রশ্নপত্র প্রণয়ন করতে সুবিধা হবে।’

ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘এই মনিটরিংয়ের মাধ্যমে পরীক্ষকদের দুর্বলতা ও তাদের অবহেলাকেই মূলত খুঁজে বের করার চেষ্টা  হচ্ছে এবং সেই অনুযায়ী তাদেরকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here