এ ধর্মঘট কি নৈতিক?

0
376

আদালতের মাধ্যমে দুজন চালকের ‘খুন নয় কিন্তু দণ্ডনীয় নরহত্যা’র শাস্তি ঠেকাতে তাঁরা ধর্মঘট ডেকেছেন। প্রথমে খুলনা বিভাগে, পরে দেশজুড়ে। কার্যত তাঁরা সড়কে ইচ্ছাকৃত বা অনিচ্ছাকৃত কোনো ধরনের ‘দুর্ঘটনা’য় অপমৃত্যুর দায়মুক্তি চাইছেন। চালকের আসনে বসা যেকোনো লোককেই তাঁরা বিচারের ঊর্ধ্বে রাখতে চাইছেন। যদি সেই লোক হন অদক্ষ, নেশাসক্ত, বেপরোয়া, বিকারগ্রস্ত ও অমানবিক—তবুও পাঁচ খুন মাফ! ২০১১ সালের যে ঘটনায় বাসচালক জামির হোসেনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হয়েছে, সেই ঘটনায় পাঁচজনের মৃত্যু হয়। ঘটনাক্রমে তাঁদের মধ্যে ছিলেন বাংলাদেশের অন্যতম সেরা এক চলচ্চিত্রকার ও সাংবাদিক। সৌভাগ্যক্রমে সেই ঘটনায় মৃত্যুর দুয়ার থেকে বহু মাসের চিকিৎসা নিয়ে ফিরে আসেন এ দেশের প্রতিভাবান একজন শিল্পী ও শিক্ষক। মৃত বাকিদের মধ্যে ছিলেন অতিসাধারণ আরও তিনজন, যাঁদের একজন ছিলেন মাইক্রোবাসটির চালক এবং দুজন প্রোডাকশন সহকারী। তারেক মাসুদ ও মিশুক মুনীর না-হয় মধ্যবিত্ত শিল্পী। কিন্তু নিহত বাকি তিনজন তো বৃহত্তর শ্রমিক শ্রেণিরই লোক!

এ ধর্মঘটের মাধ্যমে পরিবহনশ্রমিকেরা বুঝিয়ে দিলেন, সড়কে এক চালকের দ্বারা আরেক চালকের মৃত্যুর বিচারও তাঁদের দরকার নেই! তাঁরা যদি ভাবতেন, জামির হোসেন যেমন একজন মোটরযান চালক, নিহত মোস্তাফিজুর রহমানও তেমনি চালক। মোটরযানের চালক ও শ্রমিকেরা ভালো করেই জানেন, সড়কে দুর্ঘটনায় পতিত দুর্ভাগাদের মধ্যে যানের চালক ও শ্রমিকও থাকেন। কী অদ্ভুত পরিহাস, চালক ও শ্রমিকের মৃত্যুতেও তাঁরা নির্বিকার।
ধর্মঘট শ্রমিকের অধিকার। আমরা খুব খুশি হতাম যদি শ্রমিকেরা সড়কে সব ধরনের যানবাহনের চালক ও শ্রমিকের নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবি করতেন। তাঁরা যদি কর্মরত অবস্থায় আহত-নিহত শ্রমিক ও চালকের জন্য সন্তোষজনক ক্ষতিপূরণের দাবি তুলতেন! খুব কৃতজ্ঞ বোধ করতাম, যদি তাঁরা টলে উঠতেন এই খবর পড়ে যে এশিয়ার মধ্যে সড়কে প্রাণহানিতে বাংলাদেশ ৭ম এবং বিশ্বে ১৩তম। যথাযথ পরীক্ষায় অংশ না নিয়ে ভারী যানবাহনের চালকের লাইসেন্স পেয়েছেন ১ লাখ ৯০ হাজার জন (প্রথম আলো, ০১ অক্টোবর, ২০১৬)। গত ১২ ফেব্রুয়ারি ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে সড়ক দুর্ঘটনায় ২৯ জন প্রাণ হারান। ২৪ ঘণ্টায় ২৯ জনের মৃত্যুকেও স্বাভাবিক বলে মেনে নিতে পারা বিরাট হৃদয়ের ব্যাপার! তবে সেই হৃদয়টি নির্ঘাত পাথরে তৈরি।
যে দুটি ঘটনায় চালকদের শাস্তি বাতিলের দাবি দুটি শ্রমিক সংগঠন তুলেছে, ঘটনা দুটি দেখা যাক। আদালত বেপরোয়া গতি, মেয়াদোত্তীর্ণ লাইসেন্স, ফিটনেস সনদবিহীন বাস ও গতি নিয়ন্ত্রণব্যবস্থা অকেজো করে রাখার বিষয় প্রমাণিত হওয়ায় পাঁচজনের মৃত্যুর ঘটনাকে ‘খুন নয় কিন্তু দণ্ডনীয় নরহত্যা’ বলেছেন। এতে চালক জামির হোসেন ও তাঁর সহকারীরই শুধু শাস্তি হয়েছে। আমরা চালকদের বিবেকের দহন টের পেতাম যদি তাঁরা বলতেন, ফিটনেসবিহীন গাড়ি কে নামাল? কে নিয়োগ দিল লাইসেন্সবিহীন চালককে? গাড়ির গতি নিয়ন্ত্রণব্যবস্থা ঠিক আছে কি না, তা পরীক্ষার দায়িত্ব ছিল কার? কে ওই চালককে বাধ্য করেছিল আগের রাত চারটায় বাস নিয়ে চুয়াডাঙ্গা থেকে ঢাকায় এসে কোনো বিরতি না দিয়েই আবার সকাল সাড়ে ১০টায় যাত্রী নিয়ে চুয়াডাঙ্গার উদ্দেশে আবার রওনা দিতে? এসব প্রশ্নের উত্তরে নির্ঘাত মালিকপক্ষেরই নাম আসবে।
দ্বিতীয় ঘটনায় আদালত সম্প্রতি এক ট্রাকচালকের মৃত্যুদণ্ড দেন (প্রথম আলো, ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭)। চালকটি সরাসরি দুজনের ওপর হত্যার উদ্দেশ্যেই ট্রাক চালিয়ে দিয়েছিলেন, এতে মৃত্যু হয় এক নারীর। ঠান্ডা মাথার একজন খুনিকে বাঁচানোর দাবিকে কি আন্দোলন বলা উচিত? মালিকপক্ষের হয়ে কাজ করা শ্রমিকেরা আসলেই কি শ্রমিকের পক্ষে?
শ্রমিকের পেটই শুধু মালিকের কাছে বান্ধা নয়, তাঁদের সংগ্রামের চেতনাও সেখানেই বন্ধক। তাঁরা ‘মালিকের’ প্রতি ভয়ানক অনুগত। অসম্ভব শোষণের শিকার হয়েও তাঁরা চুপ থাকেন। কারণ, নেতৃত্বের জন্য তাঁরা যাঁদের ওপর ভরসা করেন, তাঁরা শেষ বিচারে মালিকপক্ষেরই লোক। যে দুটি সংগঠন শ্রমিক ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে, তাদের নেতাদের দিকে তাকালেই সত্যটা স্পষ্ট হবে। এঁদের একজন নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান; তিনি বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের কার্যকরী সভাপতি। অন্যজন হলেন সমবায় প্রতিমন্ত্রী মসিউর রহমান রাঙ্গা; তিনি বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন সমিতির সভাপতি। একজন সেজেছেন শ্রমিকপক্ষ, আরেকজন সরাসরি মালিকপক্ষের প্রতিনিধি। এঁরা আবার সরকারের দুজন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রীও বটে। আদালতের বিপক্ষে যে আন্দোলন, তা তো বেআইনি হওয়ার কথা। আমাদের সরল বুদ্ধিতে কুলায় না, কী করে সরকার তার দুজন মন্ত্রীকে এ ধরনের আন্দোলনের নেতৃত্বে থাকতে দেয়?
এই শ্রমিক ধর্মঘটে সারা দেশে কোটি মানুষের আর্থিক, শারীরিক ও মানসিক কষ্ট হয়েছে। হাসপাতালে নিতে না পারায় হয়তো অনেকেরই চিকিৎসা হয়নি। এর সবই মানা যেত, যদি শ্রমিকের প্রকৃত স্বার্থের দাবি আসত। এই যে সরকার গ্যাসের দাম বাড়াল, বিদ্যুতের দাম বাড়াল। এতে করে কি শ্রমিকের জীবনব্যয় বেড়ে যাবে না? গাড়ির জ্বালানির দামও তো বাড়বে। যে দিন তাঁরা ধর্মঘট পালন করছেন ঘাতক চালককে বাঁচাতে, সেদিন দেশের বামপন্থী দলগুলো গ্যাসের দাম বাড়ার বিরুদ্ধে হরতাল দিয়েছিল। হরতাল কর্মসূচি আমরা পছন্দ করি বা না করি, অস্বীকার করার উপায় নেই যে ইস্যুটি জনস্বার্থের। অর্থাৎ এতে শ্রমিকদেরও স্বার্থ ছিল। কই, এ নিয়ে তো তাঁরা একটি কথাও বললেন না?
আমাদের স্মরণে আছে, ২০১১ সালে নৌপরিবহনমন্ত্রীর অনুরোধে যোগাযোগমন্ত্রী সাড়ে ২৪ হাজার অযোগ্য লোককে ড্রাইভিং লাইসেন্স দিয়েছেন। যাঁদের হাতে গাড়ির স্টিয়ারিং, তাঁদের অনেকেই হাতুড়ে; তবু তাঁরা লাইসেন্সধারী। স্বাভাবিক মৃত্যুর লাইসেন্সটাই এ দেশে তামাদি হয়ে যাচ্ছে!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here