ঐতিহাসিক ‘স্বাধীনতা উন্মুক্ত মঞ্চে’ সংবর্ধিত হলেন কিংবদন্তি আলোকচিত্রী আব্দুল হামিদ রায়হান

0
24

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঐতিহাসিক যশোর টাউন হল ময়দানে হানাদারমুক্ত স্বদেশের মাটিতে প্রথম ভাষণ দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ। ঐ জনসভায় দেশের একমাত্র ফটোসাংবাদিক বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হামিদ রায়হান (৯১) তার ইয়াসিকা ৬৩৫ মডেলের ক্যামেরায় সেদিনের ঐতিহাসিক জনসভার ছবি তুলেছিলেন। আজ রবিবার (১১ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় যশোরের ঐতিহাসিক টাউন হল ময়দানে সেই ‘স্বাধীনতা উন্মুক্ত মঞ্চে’ সংবর্ধিত হলেন তিনি।

সম্মাননাপ্রাপ্ত বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হামিদ রায়হান তার অনুভূতি জানাতে গিয়ে বলেন, আমি অভিভূত! ঐতিহাসিক সেই জনসভার ৫১ বছর পর আপনারা আমাকে স্মরণ করেছেন, সেকারণে আপনাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। যশোরবাসীকে আমার অনুভূতি প্রকাশ করা কঠিন।

কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধুর দুই দফায় জনসভায় সশরীরে উপস্থিত এবং তাদের খাওয়ানোর দায়িত্বে থাকা বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হামিদ রায়হান বলেন, ১৯৭০ এবং ১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধু কুষ্টিয়ার জনসভায় এলে আমি বাড়ি থেকে তার জন্যে গরুর দুধ নিয়ে গেছি। তিনি খেয়েছেন। বঙ্গবন্ধু আমাকে খুব ভালোবাসতেন। আজ তিনি নেই। তার কারণেই দেশ আজ অনেক দূর এগিয়েছে।

সেইদিনের স্মৃতিচারণ করেন আবদুল হামিদ রায়হান বলেন, মুজিবনগর সরকারের হেডকোয়ার্টার্স ছিল কলকাতার থিয়েটার রোডে। ১১ ডিসেম্বর যশোর টাউন হল মাঠের জনসভায় প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ, অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, জহির রায়হান সাহেবদের আসার খবরে দুপুর থেকে মাঠে লোকজন আসতে শুরু করে। বিকাল ৪টার দিকে তারা জনসভাস্থলে পৌঁছান। মাঠ ছিল ছোট, জনসভায় সহস্রাধিক মানুষের উপস্থিতি ঘটে। হানাদারমুক্ত বাংলার প্রথম জনসভায় প্রবাসী সরকারের প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ জনতার উদ্দেশে বলেছিলেন, ‘আর ধ্বংস নয়, যুদ্ধ নয়। এই মুহূর্তে কাজ হলো যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশকে গড়ে তোলা।’ সেদিন তিনি সর্বস্তরের মানুষকে স্বাধীনতা যুদ্ধের চেতনায় দেশ পুনর্গঠনে আত্মনিয়োগ করার আহ্বান জানিয়েছিলেন।

যুদ্ধবিধ্বস্ত একটি দেশের প্রথম কোনো সভার স্থরচিত্র যিনি ধারণ করেছিলেন; তার মুখেই ঐতিহাসিক দিনের বিবরণ শুনে উপস্থিত অনেকেই আপ্লুত হন। এতদিন পর যশোরবাসী তাকে সংবর্ধনা দেওয়ায় সংশ্লিষ্টদেরও কৃতজ্ঞতা ধন্যবাদ জানান তিনি।

আবদুল হামিদ রায়হান বলেন, বাংলাদেশের গৌরবময় মুক্তিযুদ্ধে ১৯৭১ সালের ১১ ডিসেম্বর একটি স্মরণীয় দিন। এইদিন হানাদার বাহিনীর কবলমুক্ত যশোরে স্বাধীন বাংলার প্রথম জনসভা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। সেই জনসভায় মুজিবনগর সরকারের প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ সবাইকে যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশকে গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়ে ভাষণ দিলেন। মানুষ সেগুলো শুনলো। ঐ জনসভায় বিদেশি কয়েকজন সাংবাদিক এবং বাংলাদেশের একমাত্র আমিই উপস্থিত ছিলাম।

অনুষ্ঠানে স্বাধীন বাংলার প্রথম জনসভার ছবির আলোকচিত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হামিদ রায়হানকে সম্মাননা স্মারক প্রদান, উত্তরীয় ও চাদর পরিয়ে দেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য এমপি।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আগে স্বাধীনতার ৫০ বছর পর যশোর জেলা পরিষদ স্বাধীনতা উন্মুক্ত মঞ্চটি ৪৭ লাখ টাকা ব্যয়ে পুনরায় নির্মাণ করেছে।

এদিন বিকালে ঐ মঞ্চের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য এমপি।

যশোর ইনস্টিটিউটের সভাপতি জেলা প্রশাসক মো. তমিজুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য এমপি। অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত সকল স্থাপনা সংরক্ষণের নির্দেশ দিয়েছেন। তারই ধারাবাহিকতায় স্বাধীন বাংলার প্রথম জনসভার এই মঞ্চটি সংরক্ষণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এর ফলে নতুন প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানতে পারবে।

অনুষ্ঠানে যশোরের পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা সাইফুজ্জামান পিকুল, যশোর পৌরসভার মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা হায়দার গণী খান পলাশ, তৎকালীন মুজিবাহিনী প্রধান বীর মুক্তিযোদ্ধা আলী হোসেন মনি, মুজিবাহিনী উপ-প্রধান বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট রবিউল আলম, যশোর ইনস্টিটিউটের সাধারণ সম্পাদক ডা. আবুল কালাম আজাদ লিটু বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠান সঞ্চলনা করেন গণপরিষদ ও প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য, স্বাধীন দেশের প্রথম সংসদ সদস্য আবুল ইসলামের ছেলে সাবেক সংসদ সদস্য মনিরুল ইসলাম মনির ও রওশন আরা রাশু।