ওয়ার্ল্ড কাপ কোয়ালিফায়ার এশিয়া হকি-৫ প্রতিযোগিতায় যশোরের মেয়ে মুক্তা

0
117

ম্যানেজারের দায়িত্ব পেলেন নান্নু

ডি এইচ দিলসান : ওমানের সালালায় আগামি ২৫ আগস্ট পর্দা উঠছে ওয়ার্ল্ড কাপ কোয়ালিফায়ার এশিয়া হকি-৫ প্রতিযোগিতায়। আর এ প্রতিযোগিতায় নিজের শ্রেষ্ঠত্য জানান দিয়ে জায়গা করে নিয়েছেন যশোরের মেয়ে জাতীয় মহিলা হকি দলের সদস্য মুক্তা খাতুন। অচপাড়া গ্রামের দরিদ্র পরিবার থেকে পড়ালেখার পাশাপাশি নিজেকে গড়ে তুলেছেন বিশ^মানের হকি খেলোয়াড় হিসেবে। পিতৃহারা ও পরের বাড়ি ঝি এর কাজ করা মায়ের কন্যা মুক্তা নানা প্রতিকুলতার সাথে লড়াই করে দেশ থেকে বিদেশে হকি খেলায় নিজেকে স্থান করে নিয়েছেন। মাত্র এক বছর বয়সে পিতৃহারা কেশবপুরের ঈমারন নগর গ্রামের মুক্তা শত বাঁধা অতিক্রম করে আজ নিজের শ্রেষ্ঠত্য জানন দিলেন তিনি।
মুঠোফোনে মুক্তার সাথে কথা বলে জানা যায় তার লড়াই সংগ্রামের পথটা কতটা বন্ধুর ছিলো। পাঠকের জন্য তুলে ধরা হলো মুক্তার জীবন সংগ্রামের ইতিহাস।

দীর্ঘ পথ চলার গল্প বর্ননা করতে মুক্তা খাতুন বলেন, মাত্র এগারো বছর বয়সে আমার বাবার ঘরে বৌ হয়ে আসেন আমার মা সখিনা বেগম। মাত্র ছয় বছর পর আমার বাবা নিছার গাজী আমার তিন বছরের ভাই এবং আমাকে রেখে ইহকাল ত্যাগ করেন। তখন আমার বয়স মাত্র এক বছর। আমাদের জীবনে নেমে আসে অন্ধকারের ছায়া। ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ায় সহায়-সম্পদ সব কিছুর বিনিময়েও বাবাকে বাচাঁনো সম্ভব হয়নি। সহায়-সম্বলহীন ষোড়শী বিধবা সখিনার কাঁধে চেপে বসে দুই এতিমের লালন-পালনের ভার। অসহায় মাতা ঝাঁপিয়ে পড়লেন জীবন যুদ্ধে। নিরুপায় হয়ে মা শুরু করলেন পরের বাড়ীতে ঝি এর কাজ করা। সকালে ঘুম থেকে উঠে দুই সন্তানের মুখে যেনতেন কিছু তুলে দিয়ে বের হতেন কাজের সন্ধানে আর ফিরতেন প্রায় সন্ধ্যায়। এভাবে চলতে থাকলো আমাদের জীবনযাত্রা। আমার মা দিনে ১৫ (পনের টাকা) রোজগার করে বাবার চিকিৎসার বকেয়া ঋণ পরিশোধ আর দুটি সন্তানের ভরন-পোষন ও লেখা-পড়া চালিয়ে যাওয়া যে কত কষ্টসাধ্য তা একমাত্র জানেন আমার অসহায় সম্বলহীন মা। ইতোমধ্যে একমাত্র ভাই ৭ম শ্রেণীতে উন্নীত হলো। তখন আমি পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী। অর্থভাবে ভাইয়ার লেখাপড়া বন্ধ হয়ে যায়। ৭ম শ্রেণী হতে ঝরে পড়া বালক শুরু করে পরের বাড়ীতে মুজুরের কাজ করা। মা ও ভাইয়ার স্বপ্ন ছিল আমাকে লেখাপড়া শিখিয়ে অনেক বড় করবেন। মানুষের মতো মানুষ বানাবেন। পঞ্চম শ্রেণী পাশ করার পর আমি ভর্তি হই আমাদের এলাকার গড়ভাঙ্গা মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে। যখন আমি সপ্তম শ্রেণীতে পড়ি তখন সমাজের কুসংস্কারের কাছে আমার মা ও ভাইয়ার লালিত স্বপ্ন হার মেনে যায়। আমাকে বিয়ের পিড়িতে বসানোর বন্দোবস্ত করা হয়। বিয়েতে রাজী না থাকার কারনে আমি স্কুল শিক্ষকদের বিশেষ করে আমার স্কুলের প্রধান শিক্ষক এবং শহীদুল স্যারের সহায়তায় ২/৩ বার আমার বিয়ের আসর নষ্ট করতে থাকি। গ্রামের লোকেরা মা ও ভাইয়াকে বলতো গরীবের মেয়েদের লেখাপড়া করিয়ে লাভ কি ? চাকরি হবে না। আবার বয়স বেশী হলে বিয়ে দিতে সমস্যা হবে। সমাজের মানুষের এমন কানপড়া শুনে মা ও ভাইয়া এক পর্যায়ে আমার লেখাপড়ার খরচ বন্ধ করে দেন। তখন বটবৃক্ষের ছায়ার মতো আমার পাশে এসে দাঁড়ান আমার শিক্ষক মোঃ শহীদুল ইসলাম। তিনি সারাক্ষন আমার পাশে থেকে বাবার মত আগলে রেখেছেন আজ পর্যন্ত। আমার খেলোয়াড়ী জীবনের হাতেখড়িও ওই শহীদুল স্যারের হাত দিয়েই। আমি ৭ম শ্রেণী থেকে খেলা শুরু করি। পুথম থেকেই আমি খেলায় সুনাম করতে থাকি। স্যার আমার সকল খরচ দিয়ে আসছেন। স্যার কোন পুকার কার্পণ্য করেননি আমার পিছনে খরচ করতে। নিজের পকেটের টাকা পর্যন্ত খরচ করে আমাকে দেশের এমন কোন জেলা বা বিভাগ নাই যেখানে খেলার উদ্দেশ্যে আমাকে নিয়ে যাননি। আমার জীবনের অগনিত সমস্যার মধ্যে ছোট একটি বাঁধার কথা বলি, যখন আমি ৮ম শ্রেণীতে পড়ি তখন একটি খেলায় আমার দল ফাইনালে উঠলো। কিন্তু আমার মা ও চাচারা মিলে খেলার দিন আমাকে ঘরে তালা দিয়ে আটকিয়ে রেখে দিলো। পরবর্তীতে আমার শিক্ষকরা মোকাবেলা করে বের করে নিয়ে যান। বার বার বিয়ে বন্ধ করাসহ সর্বক্ষণ উৎসাহ আর অভয় দিয়ে স্যারেরা বলে আসছেন, আমরা তোমার সাথে আছি। আমি ৮ম শ্রেণীতে পড়াকালীন সময়ে ১ম বার জাতীয় স্কুল ও মাদ্রাসা পার্যায়ে লৌহ গোলক নিক্ষেপে রৌপ্য পদক অর্জন করি। পরবর্তীতে লৌহ গোলকে স্বর্ন পদক, চাকতি নিক্ষেপে রৌপ্য পদক, জ্যাবলিন নিক্ষেপে রৌপ্য পদক, জুনিয়র কুস্তিতে স্বর্ণ পদকসহ একাধিক ব্যক্তিগত পদক অর্জনের পাশাপাশি দলীয় খেলাতে ও আমার অবস্থান ছিল খুবই ভাল। আমরা গড়ভাঙ্গা মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় থেকে ফুটবল, ভলিবল, ক্রিকেট, হ্যান্ডবল, কাবাডি এবং হকি খেলায় কয়েকবার জেলা চ্যাম্পিয়ান হওয়ার গৌরব অর্জন করেছি। গড়ভাঙ্গা বিদ্যালয়ে পড়াকালীন সময়েই অধিকাংশ দলীয় খেলার ক্যাপ্টেনের দায়িত্ব পালন করেছি। আমি মনে করি আমার সময়ে বিদ্যালয়টি খেলার একটি সোনালী অধ্যায় রচিত হয়েছিল। যা এখন ও পর্যন্ত চলমান রয়েছে। হাটি হাটি পা পা করে বর্তমানে আমি বাংলাদেশ মহিলা হকি দলের সেরা এগারোর একজন সদস্য। আমাদের দলটি ২০১৯ সালে দক্ষিণ এশিয়া মহিলা হকি প্রতিযোগিতায় সিঙ্গাপুর ভ্রমন করে এলো। জাতীয় হকি দলের সদস্য মুক্তা আরও বলেন, আমি ২০১৯ সালে এইচ এস সি পরীক্ষায় কেশবপুর কলেজ থেকে উর্ত্তীণ হয়ে আমার সখ অনুয়ায়ী যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালে অধ্যায়নরত আছি। আমার পৈত্রিক ভিটা কেশবপুর উপজেলার ইমাননগর গ্রামে। আমার বাড়ি মাত্র ০৫ (পাঁচ) শতাংশ জমির উপর জীর্ণ একটি মাটির ঘর। আমার একমাত্র ভাই স্থানীয় একটি আইসক্রীম কাঠি ফ্যাক্টরীতে কাজ করে। মা এখানো পরের বাড়ীতেই কাজ করার বোঝা মাথার উপর থেকে সরাতে পারেননি। এমন পরিস্থিতিতে আমি যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ পেয়েছি। যেদিন ব্যবহারিক পরীক্ষা ছিল সেদিন রাড়ীতে ফেরার মতো পর্যাপ্ত টাকাও আমার কাছে ছিল না। এরকম অর্থনৈতিক সমস্যার মধ্যেই আমাকে চলতে হয়। মুক্তা বলেন, প্রথম থেকেই আমি দারিদ্রতার সাথে লড়াই করেই চলে আসছি। দেশবাসীর নিকট মুক্তা দোয়া ও আশীর্বাদ প্রার্থনা করে বলেন, আমার বিদ্যালয়ের শিক্ষক মন্ডলী ও আমার সকল পর্যায়ের হিতাকাঙ্খীদের নিকট আমি চিরঋণী ও চিরকৃতজ্ঞ। খেলাধুলায় উচ্চতর প্রশিক্ষণের জন্য যে সকল ক্রীড়া কর্মকর্তা ও ক্রীড়াবিদরা আমাকে সরাসরি সহযোগিতা করেছেন তাদের মধ্যে সাবেক জেলা ক্রীড়া কর্মকর্তা খান মোঃ মকসুদুর রহমান, যশোরের হাসান রনি, নড়াইলের শান্ত স্যার, রজিবুল স্যার ও ক্রীড়া পরিদপ্তরের তারিকুজ্জামান নান্নু স্যারের নাম বিশেষ উল্লে­খ্যযোগ্য। আমি তাঁদের সকলের নিকট ঋণী। অতীতের মতো আগামী দিনগুলো যদি এই ধরনের দয়ালু ব্যক্তিগণ আমার পাশে থাকেন তাহলে আমি আমার লক্ষে পৌছে যেতে পারব।
তিনি বলেন ওয়ার্ল্ড কাপ কোয়ালিফায়ার এশিয়া হকি-৫ প্রতিযোগিতায় আমরা দেশের জন্য সন্মানজনক ফলাফল এনে দিবো।
উল্লেখ্য এ প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা হকি দলের ম্যানেজার হিসেবে দায়িত্ব পালনের জন্য যশোরের হকি সংগঠক মোঃ তারিকউজ্জামান (নান্নু)। তিনি
যশোর জেলা হকি দল সহ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং ঢাকা প্রথম বিভাগ বিশেষ করে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের হয়ে র্দীর্ঘদিন কৃতিত্ত্বের সাথে খেলায় অংশ নিয়েছেন। অতঃপর তিনি যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের ক্রীড়া পরিদপ্তরের কর্মকর্তা হিসেবে চাকুরি শেষে অবসর গ্রহণ করেন। সর্বশেষ তিনি বাংলাদেশ মহিলা হকির খেলোয়াড় সৃষ্টিতে অগ্রগন্য ভূমিকা পালন করে আসছেন।