কংগ্রেস ও মুসলিম লীগের প্রতারণা: মুজিব থেকে বঙ্গবন্ধু

0
314

শেখ আদনান ফাহাদ : বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক মুক্তির লক্ষ্যে সময়মত সঠিক সিদ্ধান্ত দিয়ে জনতাকে কাঙ্ক্ষিত গন্তব্যের দিকে ধাবিত করে সফলকাম যিনি হতে পারেন তিনিই তো প্রকৃত নেতা। বাংলাদেশের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এমনই একজন মহান নেতা। ব্রিটিশ আমল থেকেই তিনি তৎকালীন পূর্ববঙ্গের বঞ্চিত জনগোষ্ঠীর রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক মুক্তির লক্ষ্যে কাজ করে গেছেন।

ব্রিটিশ আমলের শেষদিকে ভারতবর্ষ ভাগ করার প্রয়োজন দেখা দিলে তখনকার যুবক শেখ মুজিব মুসলিম লীগের অন্যতম সক্রিয় উদীয়মান তরুণ ‘কর্মী’ হিসেবে বাস্তবতা বিবেচনায় পাকিস্তান রাষ্ট্রের প্রতিই তার সমর্থন ব্যক্ত করেছিলেন। ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির শাসন, বিশেষ করে ১৮৫৭ সালের সিপাহি-জনতার স্বাধীনতা যুদ্ধের পরবর্তীতে ব্রিটিশ শাসনামলে শাসক শ্রেণি ও জমিদার শ্রেণি থেকে প্রাপ্ত অবহেলায় ভারতবর্ষের মুসলমানদের অর্থনৈতিক দৈন্যদশার অবসানকল্পে মুসলমানদের আলাদা রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার কথা উঠে।

পশ্চিমবঙ্গীয় হিন্দু এলিট ও জমিদার শ্রেণির সাম্প্রদায়িক মনোভাব ও ব্রিটিশ প্রশাসনের বৈষম্যমূলক কর্মকাণ্ড থেকে সৃষ্ট পূর্ববঙ্গের মানুষদের অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক দৈন্যদশা কাটিয়ে উঠতে তৎকালীন রাজনীতিবিদদের একাংশ ও সাধারণ মানুষ পাকিস্তান ও ভারত নামে দুটো আলাদা রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত মেনে নিতে বাধ্য হন। অসমাপ্ত আত্মজীবনী গ্রন্থের ৩৬ পৃষ্ঠার দ্বিতীয় অনুচ্ছেদে বঙ্গবন্ধু লিখেছেন, ‘অখণ্ড ভারতে যে মুসলমানদের অস্তিত্ব থাকবে না এটা আমি মন প্রাণ দিয়ে বিশ্বাস করতাম।’

মুসলমানদের জন্য পৃথক রাষ্ট্র কায়েমের আন্দোলনে পূর্ববঙ্গ ও পাকিস্তানের মুসলিম লীগ নেতৃবৃন্দের মধ্যে প্রকাশ্য একমত থাকলেও দৃষ্টিভঙ্গিগত পার্থক্য শুরু থেকেই ছিল বেশ গভীরে প্রোথিত। তখনকার তরুণ নেতা হিসেবে শেখ মুজিব এর রাষ্ট্রচিন্তা ছিল প্রগতিশীল ভাবধারায় পুষ্ট। অসমাপ্ত আত্মজীবনী গ্রন্থের একই পৃষ্ঠায় তিনি লিখেছেন, ‘পাকিস্তানের বিরুদ্ধে হিন্দু নেতারা ক্ষেপে গেছেন কেন? ভারতবর্ষেও মুসলমান থাকবে এবং পাকিস্তানেও হিন্দুরা থাকবে। সকলেই সমান অধিকার পাবে। পাকিস্তানের মুসলমানেরা যেমন হিন্দুদের ভাই হিসেবে গ্রহণ করবে, ভারতবর্ষের হিন্দুরাও মুসলমানদের ভাই হিসেবে গ্রহণ করবে।’

শেখ মজিবুর রহমানের রাজনৈতিক আদর্শের একটা দিক কিন্তু এখানে পরিষ্কার। তিনি প্রকৃত অর্থেই আজীবন অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রাম চালিয়ে গেছেন।

১৯৪৭ সালের জুন মাসে ঘোষণা এল ভারতবর্ষ ভাগ হবে। বাংলাদেশের মানুষকে যেভাবে ভারত ও পাকিস্তানের জন্মের ইতিহাস জানানো হয়েছে, প্রকৃত ঘটনাপ্রবাহ এত সরল নয়। কেন্দ্রীয় কংগ্রেস এবং মুসলিম লীগ তাদের মত করেই ভারতবর্ষের বিভক্তি রেখা এঁকে রেখেছিলেন। ভারত ও পাকিস্তান হয়েছিল ঠিকই কিন্তু পূর্ববঙ্গের স্বার্থকে জলাঞ্জলি দিয়ে। আত্মজীবনীর ৭৩ নং পৃষ্ঠায় শেখ মুজিব লিখেছেন, ‘কংগ্রেস ভারতবর্ষকে ভাগ করতে রাজি হয়েছে এই জন্য যে, বাংলাদেশ ও পাঞ্জাব ভাগ হবে। আসামের সিলেট জেলা ছাড়া আর কিছুই পাকিস্তানে আসবেনা। বাংলাদেশের কলকাতা এবং তার আশপাশের জেলাগুলিও ভারতবর্ষে থাকবে। মওলানা আকরম খাঁ সাহেব ও মুসলিম লীগ নেতারা বাংলাদেশ ভাগ করার বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ করলেন। বর্ধমান ডিভিশন আমরা না-ও পেতে পারি। কলকাতা কেন পাব না? কংগ্রেস ও হিন্দু মহাসভা বাংলাদেশ ভাগ করতে হবে বলে জনমত সৃষ্টি করতে শুরু করল। আমরাও বাংলাদেশ ভাগ হতে দেবনা, এর জন্য সভা করতে শুরু করলাম’।

তখনকার ২৭ বছরের শেখ মুজিবের তরুণ বয়সের চিন্তায়ও অখণ্ডিত বাংলাকে ধারণ করার কী এক বিশাল আকাশ বিরাজমান ছিল তা ভাবলে অবাক হতে হয়। ১৯৪৭ সালের সময়টাতে শেখ মুজিব ছিলেন তরুণ রাজনীতিকদের (নিজেকে যদিও কর্মী পরিচয় দিতে পছন্দ করতেন) কেন্দ্রীয় মুসলিম লীগ আর কেন্দ্রীয় কংগ্রেসের সাম্প্রদায়িক, স্বার্থান্বেষী নেতৃবৃন্দের কূটকৌশল আর ধূর্ততার বিরুদ্ধে কার্যকর কিছু করার উপায় ছিল না সেই যুবক শেখ মুজিবের। তিনি অসহায়, নিরুপায় হয়ে তখন দেখলেন কীভাবে তখনকার পূর্ববঙ্গের মানুষদের ঠকিয়ে কংগ্রেস আর মুসলীম লীগের নেতারা ভারতবর্ষ ভাগ করে ফেললেন। একই পৃষ্ঠায় মুজিব লিখেছেন, ‘আমরা কর্মীরা কি জানতাম যে, কেন্দ্রীয় কংগ্রেস ও কেন্দ্রীয় মুসলিম লীগ মেনে নিয়েছে এই ভাগের ফর্মুলা? বাংলাদেশ যে ভাগ হবে, বাংলাদেশের নেতারা তা জানতেন না। সমস্ত বাংলা ও আসাম পাকিস্তানে আসবে এটাই ছিল তাদের ধারণা। আজ দেখা যাচ্ছে, মাত্র আসামের এক জেলা- তাও যদি গণভোটে জয়লাভ করতে পারি। আর বাংলাদেশে মুসলিম সংখ্যাগুরু জেলাগুলি কেটে হিন্দুস্থানে দেওয়া হবে। আমরা হতাশ হয়ে পড়লাম’।

বাংলাদেশের মানুষ এখন ভাবতেও পারবে না কীভাবে আমাদেরকে তখন ঠকিয়েছে ভারত আর পাকিস্তানের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ। অথচ তৎকালীন অবিভক্ত বাংলার অর্থমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী ঘোষণা করেছিলেন, কলকাতা আমাদের রাজধানী থাকবে! তরুণ শেখ মুজিবের ভাষায়, ‘দিল্লি বসে অনেক পূর্বেই যে কলকাতাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে একথা তো আমরা জানতামও না, আর বুঝতামও না’।

শেখ মুজিবসহ তখনকার অনেক তরুণ বাংলাদেশপ্রেমী রাজনীতিবিদ যুক্ত বাংলার শেষ প্রধানমন্ত্রী হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ও বঙ্গীয় প্রাদেশিক মুসলিম লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশিমের নেতৃত্বে বাংলা ভাগ করার বিরুদ্ধে তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলেন। মূলত মুজিব ও তার সমবয়সী সহকর্মীদের চাপের মুখে ‘বাংলাদেশ’ ভাগ করার প্রকাশ্য প্রয়াস কিছুটা বাধাপ্রাপ্ত হয়। বাধ্য হয়ে কংগ্রেস নেতৃবৃন্দ অবিভক্ত বাংলা ইস্যুতে পূর্ববঙ্গের মুসলিম লীগের সাথে আলোচনায় বসার উদ্যোগী হন। কংগ্রেসের দিক থেকে শরৎ বসু ও কিরণশংকর রায় সংলাপে অংশ নেন। আত্মজীবনী গ্রন্থ অনুযায়ী ‘তাঁদের আলোচনায় এই সিদ্ধান্ত হয় যে, বাংলাদেশ ভাগ না করে অন্য কোন পন্থা অবলম্বন করা যায় কি না? শহীদ সাহেব দিল্লিতে জিন্নাহর সাথে সাক্ষাৎ করে এবং তাঁর অনুমতি নিয়ে আলোচনা শুরু করেন’।

‘বাংলাদেশ’ এর কংগ্রেস ও মুসলিম লীগের নেতারা বাংলাকে অবিভক্ত রেখে একটি উপায় খুঁজে বের করেন। বঙ্গবন্ধু’র নিজের ভাষায়, ‘বাংলাদেশ একটি স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র হবে। জনসাধারণের ভোটে একটা গণপরিষদ হবে। সেই গণপরিষদ ঠিক করবে বাংলাদেশ হিন্দুস্থান না পাকিস্তানে যোগদান করবে, নাকি স্বাধীন থাকবে। যদি দেখা যায় যে, গণপরিষদের বেশি সংখ্যক প্রতিনিধি পাকিস্তানে যোগদান করবে। আর যদি দেখা যায় বেশি সংখ্যক লোক ভারতবর্ষে থাকতে চায়, তবে বাংলাদেশ ভারতবর্ষে যোগ দেবে। যদি স্বাধীন থাকতে চায়, তাও থাকতে পারবে’ (অসমাপ্ত আত্মজীবনী, ৭৪ পৃষ্ঠা) ।

বেঙ্গল মুসলিম লীগ ওয়ার্কিং কমিটি সর্বসম্মতিক্রমে বাংলাদেশ অখণ্ড রাখার ফর্মুলায় সমর্থন জ্ঞাপন করলে সোহরাওয়ার্দী ও শরৎ বসু দিল্লিতে পাকিস্তানের জাতির পিতা মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ এবং ভারতের জিতার পিতা মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী অর্থাৎ মহাত্মা গান্ধীর সাথে দেখা করতে যান। জিন্নাহ অবিভক্ত বাংলাদেশ ইস্যুতে প্রকাশ্য সমর্থন দিয়েছিলেন, অন্যদিকে মহাত্মা গান্ধী ও পণ্ডিত জওহরলাল নেহেরু অবিভক্ত বাংলাদেশ ইস্যুতে সরাসরি ও স্পষ্ট কিছু না বলে সোহরাওয়ার্দী ও শরৎ বসুকে কেন্দ্রীয় কংগ্রেস নেতা সরদার বল্লভ ভাই প্যাটেল এর কাছে প্রেরণ করেছিলেন।

একই পৃষ্ঠায় সেই জটিল সময়ের কথা লিখতে গিয়ে বঙ্গবন্ধু লিখেছেন, ‘শরৎ বসু নিজে লিখে গেছেন যে, জিন্নাহ তাঁকে বলেছিলেন, মুসলিম লীগের কোনো আপত্তি নাই, যদি কংগ্রেস রাজি হয়। ব্রিটিশ সরকার বলে দিয়েছে, কংগ্রেস ও মুসলিম লীগ একমত না হলে তারা নতুন কোনো ফর্মুলা মানতে পারবেন না। শরৎ বাবু কংগ্রেসের নেতাদের সাথে দেখা করতে যেয়ে অপমানিত হয়ে ফিরে এসেছিলেন। কারণ সরদার বল্লভ ভাই প্যাটেল তাঁকে বলেছিলেন, ‘শরৎ বাবু পাগলামি ছাড়েন, কলকাতা আমাদের চাই। মহাত্মা গান্ধী ও পণ্ডিত নেহেরু কোন কিছুই না বলে শরৎ বাবুকে সরদার প্যাটেলের কাছে পাঠিয়ে দিয়েছিলেন। আর মিস্টার প্যাটেল শরৎ বাবুকে খুব কঠিন কথা বলে বিদায় দিয়েছিলেন। কলকাতা ফিরে এসে শরৎ বসু খবরের কাগজে বিবৃতির মাধ্যমে এ কথা বলেছিলেন এবং জিন্নাহ যে রাজি হয়েছিলেন এ কথা স্বীকার করেছিলেন’।

মুসলিম লীগের সভাপতি মওলানা আকরম খাঁ, পূর্ব পাকিস্তানের প্রথম প্রধানমন্ত্রী খাজা নাজিমুদ্দিন এবং বেঙ্গল মুসলিম লীগের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ সকলেই কিন্তু প্রকাশ্যে অবিভক্ত বাংলার ফর্মুলা মেনে নিয়ে সমর্থন দিয়েছিলেন। অসমাপ্ত আত্মজীবনীর লেখনি অনুযায়ী ‘খাজা নাজিমুদ্দীন সাহেব ১৯৪৭ সালের ২২ এপ্রিল ঘোষণা করেছিলেন, ‘যুক্ত বাংলা হলে হিন্দু মুসলমানের মঙ্গলই হবে’। মওলানা আকরাম খাঁ সাহেব মুসলিম লীগের সভাপতি হিসাবে ঘোষণা করেছিলেন, ‘আমার রক্তের উপর দিয়ে বাংলাদেশ ভাগ হবে। আমার জীবন থাকতে বাংলাদেশ ভাগ করতে দেব না। সমস্ত বাংলাদেশই পাকিস্তানে যাবে।’ এই ভাষা না হলেও কথাগুলির অর্থ এই ছিল। আজাদ কাগজ আজও আছে । ১৯৪৭ সালের কাগজ বের করলেই দেখা যাবে’।

বাংলাকে ভাগ করে পাকিস্তান আর ভারতের হাতে তুলে দেয়ার জন্য যোগসাজশে কাজ করেছিলেন ব্রিটিশ প্রশাসকরা। আত্মজীবনী গ্রন্থে বঙ্গবন্ধু বলছেন, ‘এই সময় বড়লাট লর্ড মাউন্টব্যাটেন তলে তলে কংগ্রেসকে সাহায্য করেছিলেন। তাঁর ইচ্ছা ছিল তিনি ভারত ও পাকিস্তানের গভর্নর জেনারেল হয়ে বসবেন। জিন্নাহ রাজি হলেন না, নিজেই পাকিস্তানের গভর্নর জেনারেল হয়ে বসলেন। মাউন্টব্যাটেন সম্বন্ধে বোধহয় তাঁর ধারণা ভালো ছিল না। মাউন্টব্যাটেন ক্ষেপে গিয়ে পাকিস্তানের সর্বনাশ করার চেষ্টা করলেন। যদিও রেডক্লিফকে ভার দেওয়া হল সীমানা নির্ধারণ করতে, তথাপি তিনি নিজেই গোপনে কংগ্রেসের সাথে পরামর্শ করে একটা ম্যাপ রেখা তৈরি করেছিলেন বলে অনেকের ধারণা’।

সে সময় ‘পাকিস্তানের জাতির পিতা’ বলে মহাপ্রতাপশালী জিন্নাহ সম্পর্কে তরুণ শেখ মুজিবের অনুধাবনও বেশ আগ্রহ উদ্দীপক। আত্মজীবনীতে তিনি লিখেছেন, ‘জিন্নাহ গভর্নর জেনারেল হোক, এটা আমরা যুবকরা মোটেও চাই নাই। তিনি প্রথমে প্রধানমন্ত্রী হবেন, পরে প্রেসিডেন্ট হবেন, এটাই আমরা আশা করেছিলাম। লর্ড মাউন্টব্যাটেন পাকিস্তানের বড়লাট থাকলে এতখানি অন্যায় করতে পারতেন কি না সন্দেহ ছিল! এটা আমার ব্যক্তিগত মত। জিন্নাহ অনেক বুদ্ধিমান ছিলেন আমাদের চেয়ে, কি উদ্দেশ্যে নিজেই গভর্নর হয়েছিলেন তা তিনিই জানতেন’।

এ পর্যন্ত আলোচনা থেকে কয়েকটি বিষয় পরিষ্কার। তৎকালীন তরুণ রাজনীতিক হিসেবে শেখ মুজিব পূর্ববঙ্গের বিশাল সংখ্যক দরিদ্র জনগোষ্ঠীর অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য আলাদা রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে পাকিস্তান আন্দোলনের প্রতি শক্ত সমর্থন ব্যক্ত করেছিলেন। এবং শেখ মুজিব ও তাঁর সমমনা রাজনীতিবিদদের কল্পনা ও আকাঙ্ক্ষায় যে পাকিস্তান রাষ্ট্রের মানচিত্র ছিল সেখানে অন্তর্ভুক্ত ছিল পুরো বাংলা ও আসাম প্রদেশ। কিন্তু ভারত ও পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় কংগ্রেস ও মুসলিম লীগ এর নেতারা পূর্ববঙ্গের বাংলাদেশপ্রেমী নেতাদের সাথে চালাকি ও প্রতারণা করেছিলেন। বলা যায় জিন্নাহ প্রতারণা করেছিলেন, অন্যদিকে মহাত্মা গান্ধী আর পণ্ডিত নেহেরু চালাকি করেছিলেন।

শেখ মুজিব, বঙ্গবন্ধু হয়ে উঠার ২৪ বছর আগেই স্বাধীন বাংলাদেশ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার জন্য তৎপরতা চালিয়েছিলেন। এবং সেই বাংলাদেশে সবধর্মের মানুষ শান্তিতে বসবাস করবে বলে স্বাপ্নিক হয়েছিলেন। কিন্তু সে সময় ২৭ বছরের এক যুবকের পক্ষে ভারত ও পাকিস্তানের বাঘা বাঘা নেতাদের সাথে পেরে উঠা অসম্ভব ছিল। দিল্লির ষড়যন্ত্র ঢাকা-কলকাতা থেকে কয়েকজন তরুণ নেতার পক্ষে সামাল দেয়া সম্ভব ছিল না। যদি পশ্চিমবঙ্গের কংগ্রেস নেতৃবৃন্দ, হিন্দু জমিদার ও এলিট শ্রেণি বাংলাকে অবিভক্ত রেখে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করতেও চাইত, তাহলেও কিন্তু তখনই বাঙালিদের জন্য একটা স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা সম্ভব ছিল। ১৯০৫ এর বঙ্গভঙ্গের সময়কার পশ্চিমবঙ্গের এলিটদের ভূমিকা ও ১৯৪৭ সালে একই শ্রেণির ভূমিকা প্রকাশ্যে বিপরীত হলেও উদ্দেশ্যের বিচারে এক। ১৯০৫ এ ‘বঙ্গমাতার অঙ্গচ্ছেদ’ বলে বঙ্গভঙ্গের বিরোধিতা করেছে। আবার ৪৭ এ বিভক্ত হতে চেয়ে জিন্নাহ, মাউন্টব্যাটেনদের সাথে গোপনে হাত মিলিয়েছে। কারণ কিন্তু ঐ একটাই, অর্থনৈতিক স্বার্থ। পাকিস্তানিরা দেখেছে, কলকাতা যদি পাকিস্তানে আসে তাহলে করাচি, ইসলামাবাদ, রাওয়ালপিন্ডি গুরুত্ব হারাবে। অন্যদিকে ভারতীয়রা, বিশেষ করে পশ্চিমবঙ্গবাসী হিন্দু সম্প্রদায় দেখেছে, কলকাতা পাকিস্তানে থাকলে সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমানদের আধিপত্য আবার শুরু হবে। (চলবে)

লেখক: সহকারী অধ্যাপক, সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যম অধ্যয়ন বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here