কন্যাসন্তানের প্রতি বৈষম্য কাম্য নহে

0
247

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে জান্নাতুল নামের নয় মাসের এক শিশুসন্তানকে পেট্রোল ঢালিয়া আগুনে পোড়াইয়া হত্যার অভিযোগ উঠিয়াছে খোদ তাহার বাবার বিরুদ্ধে। এই ঘটনা আইয়ামে জাহেলিয়াতকেও হার মানায়! প্রাক ইসলামি যুগে আরবের অধিকাংশ লোক ছিল বর্বর ও নিষ্ঠুর। তাহারা কন্যা সন্তানকে জীবন্ত কবরও দিত। ইসলাম কন্যা ও পুত্র সন্তান উভয়ের প্রতি সমান গুরুত্ব দেওয়ার পর এইক্ষেত্রে দৃষ্টিভঙ্গির অনেক উন্নতি সাধিত হয়। কিন্তু এই আধুনিককালে নানা অজুহাতে আবার কন্যা সন্তানকে বিরূপ দৃষ্টিতে দেখা হইতেছে যাহা অত্যন্ত দুঃখজনক। সমাজে নারীর যথাযথ সম্মান ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠিত না হইবার কারণে কন্যা সন্তানের জন্মকে আজও অনাকাঙ্ক্ষিত হিসাবে দেখা হইতেছে যাহা পৃথিবীতে জনগোষ্ঠীর ভারসাম্য রক্ষার ক্ষেত্রে বিপজ্জনক।

নারায়ণগঞ্জের ঘটনায় জানা যায়, শিশু জান্নাতুলের বাবা ছিল একজন মাদকাসক্ত। মাদকাসক্তির কারণে আমাদের সমাজে অপরাধ প্রবণতা বৃদ্ধি পাইতেছে। একই কারণে মেয়ের হাতে বাবা-মায়ের খুনের দৃষ্টান্তও আমাদের সমাজে তৈরি হইয়াছে। তবে কন্যা সন্তানের ব্যাপারে যে বিরূপ দৃষ্টিভঙ্গি, তাহা সমাজ হইতেই পাইয়াছে জান্নাতুলের পিতা। কন্যা সন্তান জন্মদানের জন্য আমাদের সমাজে তালাকের ঘটনাও আছে। আলোচ্য ঘটনায় দেখা যায়, কন্যাসন্তান জন্মের পরই তাহার পিতা জানাইয়া দেয়, তাহার কন্যা সন্তান পছন্দ নহে। ইহা হইতেই শুরু হয় পারিবারিক কলহ। অথচ কন্যা বা পুত্র সন্তান উভয়ের জন্মের ক্ষেত্রে বাবা-মার কোনো হাত নাই। ইহা সৃষ্টিকর্তার একান্ত ইচ্ছার ওপর নির্ভরশীল। পবিত্র কুরআন শরীফে সূরা আল শূরার ৪৯-৫০ নং আয়াতে বলা হইয়াছে, ‘আকাশমণ্ডলী ও জমিনের সার্বভৌমত্ব একমাত্র আল্লাহর। তিনি যাহা ইচ্ছা তাহাই সৃষ্টি করেন। যাহাকে চান তাহাকে কন্যা সন্তান দান করেন। যাহাকে চান তাহাকে দান করেন পুত্র সন্তান। যাহাকে চান তাহাকে পুত্র-কন্যা উভয় সন্তানই দান করেন। আবার যাহাকে চান তাহাকে বন্ধ্যা করে দেন। নিঃসন্দেহে তিনি অধিক জ্ঞাত ও ক্ষমতাবান।’ কিন্তু অজ্ঞতা, সামাজিক কুসংস্কার এবং তাহার প্রেক্ষিতে গড়িয়া উঠা সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি ও প্রভাবের কারণে আমরা আজ অধিকাংশ ক্ষেত্রে কন্যা সন্তানের প্রতি সুবিচার করিতে পারিতেছি না। উত্তরাধিকারসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ইসলাম নারীদের যে অধিকার ও সম্মান দিয়াছে, তাহাও আমরা লঙ্ঘন করিয়া চলিয়াছি নির্দ্বিধায়।

জান্নাতুলকে হাসপাতালে ভর্তি করা হইলে তাহাকে হয়ত বাঁচানো যাইত। কিন্তু তাহার পরিবার-পরিজন এই যুগেও দগ্ধ রোগীর চিকিত্সার জন্য কবিরাজির ওপর নির্ভর করিয়াছে। ইহাও এক ধরনের অবিচার ও নিষ্ঠুরতা। মহানবী (স) কন্যাসন্তানকে আশীর্বাদ হিসাবে বর্ণনা করিয়াছেন এবং তাহার প্রতি সদয় আচরণকারী ও যথাযথভাবে লালন-পালনকারী পিতামাতাকে জান্নাতের সুসংবাদ দিয়াছেন যেখানে তাহারা নবীজীর (স) পাশাপাশি অবস্থান করিবেন। এভাবে ইসলাম যেখানে কন্যাসন্তানের প্রতি সদাচরণে এত উত্সাহ দিয়াছে, সেখানে মুসলিম সমাজে উপর্যুক্ত হতাশাজনক পরিস্থিতি মোটেও কাম্য নহে। এই ব্যাপারে আমাদের সচেতনতা ও সতর্কতার প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here