কপোতাক্ষ নদের কাঁটা শেওলা মৎস্য খাদ্যের বিকল্প সম্ভাবনা

0
686

এম আর মাসুদ : মহাকবি মাইকেল মধুসূধন দত্তের স্মৃতি বিজড়িত যৌবনহারা কপোতাক্ষ নদ এখন এলাকাবাসীর অভিশাপ হলেও কিছু পরিবার এ নদে আশির্বাদের পথ খুঁজে পেয়েছে। এই নদের কাটা শেওলা সংগ্রহ করে বেশ কিছু পরিবার শুধু জীবিকা নির্বাহ নয় পাকা বাড়ীও বানিয়েছেন। পাশাপাশি এ শেওলা মাছের খাদ্য হিসেবে ব্যবহার করে মাছ চাষে ব্যয়ভার কমিয়েছে অনেকাংশে মৎস্যচাষীরা।

কপোতাক্ষ নদের তলদেশে জন্মানো কাঁটা শেওলা যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার অর্ধশত পরিবার এটা সংগ্রহের পর বিক্রি করে শুধু জীবিকা নির্বাহ নয় পেয়েছেন স্বালম্বির পথ। আর এই শেওলা মাছের খাদ্য হিসেবে ব্যবহার করে ব্যয়ভার দুই-তৃতীয়াংশ কমিয়েছেন অনন্ত ২০০ মৎস্যচাষী। ২/৩ ফুট লম্বা চিকন এ উদ্ভিদের দুই পাশ থেকে ছোট ছোট পাতা আকৃতি থাকে। যেটার গায়ে হালকা কাটাকাটা অনুভূত হয়। তাই এই অঞ্চলে এটাকে কাঁটা শেওলা বলে। এর বৈজ্ঞানিক ও ইংরেজী নাম হাইড্রিলা।
উপজেলার বল্লা গ্রামের জাহাঙ্গীর আলম ওরফে কিবরিয়া গত ৭/৮ মাসে এক লক্ষ ৬৫ হাজার, আল-আমিন ৮০ হাজার, আবু হানিফ এক লক্ষ, আয়ুব আলী ৮০ হাজার , বারেক মিয়া ৬০ হাজার, সাদিপুর গ্রামের আমিন ৮০ হাজার, বিমল ৬০ হাজার, পার্শ্ববতী মুক্তারপুর গ্রামের শফিয়ার রহমান ওরফে কালা শফি দুই লক্ষ টাকার শেওলা বিক্রি করেছেন। এ টাকায় অনেকে পাকা বাড়ীও বানিয়েছেন। এদের মত প্রায় অর্ধ শতাধিক ব্যক্তি পেশাগতভাবে এ শেওলা সংগ্রহ করে বিক্রি করে থাকেন। একজন একদিনে ১০ ভ্যান পর্যন্ত শেওলা নদ থেকে সংগ্রহ করতে পারেন। জাহাঙ্গীর আলম ওরফে কিবরিয়া জানিয়েছেন এ শেওলা একবার উঠালে এক সপ্তাহ পর সেখান থেকে আবার সংগ্রহ করা যায়। শীত ও বর্ষা কালে এই শেওলা সাধারণত একটু কম বাড়ে। বাকি সময় সমান তালে এটা সংগ্রহ করা যায়। সংগ্রহকারীদের দাবী কপোতাক্ষ নদ পুনঃখনন না করা গেলেও যদি কচুরীপনা ও অবৈধ দখলদার উচ্ছেদ করা যায় তাহলে কপোতাক্ষের অভিশাপ ঘোচাতে পারে এই কাটা শেওলা। শুধু ঝিকরগাছা উপজেলায় প্রায়ই দুই শতাধিক মৎস্যচাষী এই কাটা শেওলা নিয়মিত মৎস্য খাদ্যের বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করে থাকেন। যাদের মধ্যে উপজেলার বল্লা গ্রামের শফিউদ্দীন, মাওলানা আতিয়ার রহমান, আনোয়ার শাহাদত, মুজিবর রহমান, কানাইরালী গ্রামের রবিউল ইসলাম, সাদেক হোসেন, আজীমউদ্দীন, সাদিপুর গ্রামের নিলু ঘোষ, নওয়ালী গ্রামের ফকির আলী হায়দার, ওলিয়ার রহমান, জাহাঙ্গীর হোসেন, মনিরামপুর উপজেলার গোয়ালবাড়ি গ্রামের আনারুল ইসলাম, মুক্তারপুর গ্রামের সাইফুল ইসলাম উল্লেখযোগ্য। উপজেলার বল্লা গ্রামের মৎস্যচাষী শফিউদ্দীন ও মাওলানা আতিয়ার রহমান জানান, কাটা শেওলা মৎস্য খাদ্য হিসেবে ব্যবহার করে খাদ্যের খরচ কমেছে অনেকাংশে। শফিউদ্দীন আরো জানান, গত বছর সে ৬৫ হাজার টাকার কাটা শেওলা কিনেছেন। এই পরিমান মৎস্য খাদ্য কিনতে হলে লাগত সাড়ে ৬ লক্ষ টাকা। শুধু শফিউদ্দীন না প্রায়ই দুই শতাধিক মৎস্যচাষী এই কাটা শেওলা নিয়মিত মৎস্য খাদ্যের বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করে থাকেন। কাটা শেওলা ব্যবহারকারীরা জানান, এক বস্তা মাছের খাদ্যের সমপরিমাণ কাজ হয় এক ভ্যান কাঁটা শেওলায়। অথচ এক বস্তা খাদ্যের দাম ১২/১৩’শ টাকা আর এক ভ্যান কাঁটা শেওলার দাম মাত্র ১২০ টাকা। আনুমানিক হিসাব মতে ঝিকরগাছা উপজেলাতে গত এক বছরে কাটা শেওলা ব্যবহার করে মৎস্যচাষীদের সাশ্রয় হয়েছে প্রায় ২ কোটি টাকা। উপজেলার বল্লা গ্রামের নছিমন চালক রবিউল ইসলাম এই কাটা শেওলা বহন করে গত বছর অতিরিক্ত আয় করেছেন ৩০ হাজার টাকা। ঝিকরগাছার সিনিয়র উপজেলা মৎস্য অফিসার কৃষিবিদ আব্দুল বারি জানিয়েছেন, এই কাঁটা শেওলা গ্লাসকার্প ও রাজপুটি মাছের খাদ্য হিসেবে উত্তম। আর এসব মাছের বিষ্ঠা সকল সাদা ও পাঙ্গাস মাছে খায়। তাছাড়া মাছের এই বিষ্ঠায় পানিকে নীল বর্ণ করে। নীল বর্ণ পানিতে মাছের খাদ্যের পরিমান বেশী থাকে। সবমিলিয়ে কপোতাক্ষ নদের কাটা শেওলা এ অঞ্চলের মানুষের নতুন করে আশার সঞ্চার ঘটিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here