কপোতাক্ষ নদ থেকে বালু উত্তোলন, মণিরামপুরের ঋষি পল্লী নদ গর্ভে বিলীন হওয়ার শংকা

0
329

উত্তম চক্রবর্ত্তী, মণিরামপুর (যশোর) : যশোরের মনিরামপুরের ডুমুরখালি এলাকার ঋষি পল্লীর নীচ দিয়ে বহমান কপোতাক্ষ নদ থেকে বালু উত্তোলণ করে চলেছে স্থানীয় একটি প্রভাবশালীচক্র। বাঁধা দিলেই ভূক্তভোগীদের দেখে নেয়ার হুমকি দিচ্ছে চক্রটি। এরফলে আসন্ন বর্ষা মৌসুমে কপোতাক্ষ নদ তীরবর্তী ঋষি পল্লী বিলীন হওয়ার শংকা দেখা দিয়েছে। ব্যবস্থা নিতে বিভিন্ন দপ্তরে লিখিতভাবে জানালেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের টনক নড়েনি বলে অভিযোগ। 

জানাযায়, ২০০০ সালের পর থেকে প্রায় দেড়যুগ কপোতাক্ষ নদ শেওলাসহ নানা জলজ উদ্ভিদে পরিপূর্ণ ছিল। সম্প্রতি এলাকার মুকুল, হাসান, সুকুমারসহ স্থানীয় অর্ধশত যুবক স্বেচ্ছাশ্রমে টানা প্রায় এক মাস নদ থেকে আগাছা উঠিয়ে নদ পরিস্কার করে ফেলে। এরপরই বালু উত্তোলণে লোলুপ দৃষ্টি পড়ে স্থানীয় সেলিম মহলদার, আবু তালেব, আব্দুল মোমিন, তিতাসের। এলাকাবাসির অভিযোগ তাদের নেতৃত্বে উপজেলার ডুমুরখালি, এলাকা দিয়ে বহমান কপোতাক্ষ নদ থেকে বালু উত্তোলণ করে চলেছে। খোঁজ নিয়ে জানাযায়, স্থানীয় আকবর হোসেন নামে এক ধণার্ঢ্য প্রবাসী তার বিরাট পুকুর ভরাটে সেলিম হোসেন নামে একজন কন্ট্রাক নেন। জানতে চাইলে সেলিম মহলদার জানান, তার পুকুর ভরাটে বালু উত্তোলণ করা হচ্ছে। অন্যরা এই কাজে তাকে কেবল সহযোগীতা করছে। সূত্র জানায়,সেলিম মহলদার সাতক্ষীরা জেলার তালা উপজেলার শিরাশুনী গ্রামের টুকু নামের এক ব্যক্তির কাছ থেকে বড় ড্রেজার মেশিন ভাড়ায় এনে বালু উত্তোলন করছে। জানতে চাইলে মুঠোফোনে টুকু জানান, প্রতি স্কয়ার ফুট বালু উত্তোলনে ২.৭০ টাকা চুক্তিতে তার ড্রেজার মেশিন আনা হয়েছে। ভূক্তভোগীরা জানায়, বালু উত্তোলন বন্ধে সংশিষ্ট দপ্তরে লিখিতভাবে জানালেও আজও কোন উদ্যোগ নেয়া জয়নি বলে তাদের অভিযোগ। এ ব্যাপারে উপজেলা এ্যাসিল্যান্ড লিংকন বিশ্বাস জানালেন, বালু উত্তোলণকারীদের অফিসে ডাকা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here