কবিতা কেন পাঠ, কেন লেখা…..অনন্যা দাস

0
251

শব্দ শেখার আগেই আমরা শিখি ছন্দ। কবিতা মানেই শব্দ নিয়ে খেলা। বিশেষ ধরনের ছন্দের যোগে মনের অভিব্যক্তি প্রকাশের লিখিত মাধ্যমই কবিতা। নানান আবেগ মিশ্রিত করে শুদ্ধ উচ্চারণ ও যথাযথ কণ্ঠের মাধ্যমে করা হয় আবৃত্তি। প্রতিটি কবিতার ভেতরই কবির চিন্তার অভিব্যক্তি ফুটে ওঠে। সচরাচর প্রকৃতিকে সাধারণ মানুষ যেভাবে দেখে কবিগণ তা দেখেন না। সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় তার একটি কবিতায় বলেছিলেন,“আমি এমনভাবে পা ফেলি যেন মাটির বুকেও ব্যথা না লাগে।” ভাবুন তো মাটির বুকে ব্যথা লাগে এমন বিষয় সাধারণ মানুষ ভাবতে পারে!

কবির চিন্তাকে বুঝতে হলে তার কবিতার সাথে একাত্মতা প্রকাশ করতে হয়। প্রেম ,প্রকৃতি, ভক্তি, আনন্দ, বিষাদসহ মানবজীবনের প্রতিটি ঘটনা কবিতার মাধ্যমে ফুটিয়ে তোলা সম্ভব। কবিতার মাধ্যমে কবি তার পাঠক বা শ্রোতার সুপ্ত মনের বাসনাকে নাড়া দিতে সক্ষম হয়। কবিতা এমন এক অমৃত সুধা, যা পান করতে হলে পাঠককে অবশ্যই কবিতাটিকে ধারণ করতে হবে। কবিতাকে ধারণ করার মাধ্যমেই সংস্কৃতমনা হৃদয়ের বিকাশ ঘটে। চিন্তাশক্তিকে বিকশিত করার মাধ্যম হিসেবে প্রথম সারিতেই কবিতাকে রাখতে হয়। কবিতা পাঠের মধ্য দিয়ে অত্যন্ত নিখুঁতভাবে ভাষার চর্চা করে থাকি। যেমন: শুদ্ধ উচ্চারণ, বর্ণ প্রকরণ, বানান, মাত্রা ইত্যাদি। একটি শিশুকে যদি শৈশবকালে কবিতা পাঠে অভ্যস্ত করানো যায়, তবে দেখা যাবে অন্যান্য শিশুদের তুলনায় তার বাচিকভঙ্গি অত্যন্ত চমৎকার হয়ে ওঠে। যারা কবিতা আবৃত্তি করেন তাদের বচনভঙ্গি সুমধুর হয়। এটি মানবজীবনকে ভিন্ন এক পূর্ণতা প্রদান করে। কবি ও পাঠকের ভেতর এক নিরবিচ্ছিন্ন সম্পর্ক গড়ে তোলে কবিতা। শিল্প মনকে বিকশিত করতে কবিতা এক অনস্বীকার্য ভূমিকা রাখে। আমরা সকলেই মোটামুটি লিখতে পারি। কিন্তু লিখলেই কী সবাই কবি হতে পারি? যথাযথভাবে লিখতে প্রয়োজন প্রতিনিয়ত অনুশীলন ও চর্চা। প্রতিদিন অন্তত দুলাইন হলেও লেখা প্রয়োজন। প্রিয়জনকে যদি নিজের মনের কথা একটি কবিতার মাধ্যমে বলা হয় ,আর তা যদি হয় স্বরচিত তবে তার চেয়ে সুখকর আর কী!

কবিতা পাঠ ও লেখা উভয়ের জন্যই প্রয়োজন একাগ্রতা ও অধ্যাবসায়। আত্মবিশ্বাস থাকলে যেকোনও কাজেই সফলতা সম্ভব। তাই তো কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বলেছেন,“মুক্ত কর ভয়, আপনা মাঝে শক্তি ধরো, নিজেরে করো জয়।”

ব্যাকরণ ও ভাষা চর্চা, প্রকৃতিকে অনুধাবন, মানবমনের লুকায়িত প্রবৃত্তি জানার জন্য কবিতা পাঠ আবশ্যকীয়। আর এগুলো জানতে পারলেই কবিতা লেখাও সম্ভব। সমগ্র পৃথিবীর বহু অজানা তথ্যই আমরা কবিতার মাধ্যমে জানতে পারি। কবিতা লিখতে হলে প্রথমে কবিতা পাঠের অভ্যাসের কোনো বিকল্প নেই। বহু কবি তাদের কবিতার মধ্য দিয়ে যুদ্ধ, বিচ্ছেদ, প্রেম,ধর্ম, জাতি, বৈষম্যসহ বিভিন্ন বিষয় ফুটিয়ে তুলেছে। সমাজের সুখ-দুঃখ,অন্যায়,অবহেলা,ঘৃণা-ভালোবাসা ইত্যাদি বিষয় হৃদয়ে ধারণ করতে পারলেই তা কবিতার মাধ্যমে কাগজে ফুটিয়ে তোলা যায়। কবিতাকে হৃদয়ে ধারণ না করলে কাগজে কলমে ফুটিয়ে তোলা প্রায় অসম্ভব। সাধারণ মানুষ ও পরবর্তী প্রজন্মের কাছে সর্বকালের পৃথিবী ও আপন সত্তাকে বাঁচিয়ে রাখার মোক্ষম হাতিয়ার হল কবিতা। আপন মনের ভাবনাগুলো কিছু ছন্দের মাধ্যমে আমরা কবিতায় রূপ দিয়ে থাকি। পূর্বে বহু কবি তাদের পৃথিবী ও চিন্তাচেতনাকে কবিতার মাধ্যমে রেখে গেছেন। ঠিক সেভাবে আমাদেরও ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে বর্তমান পৃথিবীর ধারণা দিয়ে যাবার জন্য কবিতা পাঠ ও লেখা প্রয়োজন।