করোনায় যশোর সদর হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের মৃত্যু

0
153

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের রেডিওলজিস্ট বিভাগের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. সাজ্জাদ কামাল সুস্থ হয়ে কর্মস্থলে ফিরবেন এমন প্রত্যাশায় গত ১৯ অক্টোবর থেকে আল্ট্রাসনোগ্রাফি কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত কর্মস্থলে ফেরা হলো না তার। করোনা কেড়ে নিল তার প্রাণ প্রদীপ। তার মৃত্যুর মাধ্যমে যশোর করোনায় প্রথম কোনো চিকিৎসকের মৃত্যু হলো। তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার রাত ২ টার দিকে মারা যান।

হাসপাতালের প্রশাসনিক সূত্রে জানা গেছে, ১৮ অক্টোবর (রোববার) হাসপাতালে দায়িত্ব পালন শেষে বাসায় ফেরেন ডা. সাজ্জাদ কামাল। এদিন রাত থেকে হঠাৎ করে তার জ্বর ও শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। পরের দিন স্বজনরা এসে তাকে রংপুরে নিজ বাড়িতে নিয়ে যান। তার শারীরিক অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় দুই দিন পর ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ২৫ অক্টোবর ডা. সাজ্জাদ কামালকে নেয়া হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। আল্ট্রাসনো বিভাগের ইনচার্জ মৃত্যুঞ্জয় বিশ্বাস জানান, করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর থেকে আমি সব সময় ডা. সাজ্জাদ কামালের বোনের সাথে যোগাযোগ করেছি। শনিবার রাতে তার প্রচন্ড শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। শরীরে অক্সিজেনের পরিমাণও কমতে থাকে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ২ টার দিকে মারা যান ডা. সাজ্জাদ কামাল। রোববার আছর বাদ জানাজা শেষে রংপুরে পারিবারিক কবরস্থানে তার দাফন করা হয়েছে।

হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. আরিফ আহমেদ জানান, হাসপাতালের একমাত্র রেডিওলজিস্ট চিকিৎসকের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে আল্টাসনো ও এক্স বিভাগের কার্যক্রমে সংকট তৈরি হলো। তিনি অসুস্থ হওয়ায় ১৯ অক্টোবর থেকে আল্ট্রাসনো কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। আশা ছিলো ডা. সাজ্জাদ কামাল সুস্থ হয়ে আবারো আল্ট্রাসনো কার্যক্রমে ফিরবেন। কিন্তু তিনি সবাইকে ফাঁকি দিয়ে পরপারে চলে গেলেন। এদিকে সাজ্জাদ কামালের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) যশোর জেলা শাখার সভাপতি ডা. একেএম কামরুল ইসলাম বেনু ও সাধারণ সম্পাদক ডা. এম এ বাশারসহ কার্যকরী পরিষদ। নেতৃবৃন্দ মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেন। এছাড়া যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কসহ সকল চিকিৎসক, কর্মকর্তা ও কর্মচারী শোক প্রকাশ করেছেন।