করোনা উপক্ষো করে গর্জে উঠা একজন ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আকরামুল

0
886

জিয়াউর রহমান রিন্টুঃ

ছাত্রলীগ মানেই ইতিহাস রচনা, ছাত্রলীগ মানেই দুরন্তপনার, ছাত্রলীগ মানেই প্রতিবাদ, ছাত্রলীগ মানেই দেশের ক্রান্তিলগ্নে জীবনের মায়া ত্যাগ করে দেশ ও মানুষের কল্যাণে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়া।যুগে যুগে এমন নজির হাজার হাজার পাওয়া যায়। করোনা প্রাদূর্ভাবের এই মহাআতঙ্কিত সময়েও কখনো সবজি হাতে, কখন এলাকা লকডাউন ঘোষণা করে সাবান পানি নিয়ে পাহারারত, কখনোবা মাস্ক নিয়ে জনসচেতনতা তৈরিতে, কখনোবা রক্তদানে সর্বত্রই ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কিছু নেতাকর্মী কে সাথে নিয়ে মানবকল্যাণে আকরামুলের প্রাণান্তকর প্রচেষ্টাই যেন তার প্রমান। কখনো উপজেলা আওয়ামী লীগ বা ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দেদের সাথে কখনো নিভৃতে একক প্রচেষ্টায় বা পারিবারিক সহযোগিতায় করোনার ক্রান্তিকালে মানুষের দূর্ভোগ কমাতে সাধ্যমত সমস্ত কিছুই করে চলেছেন আকরামুল।

যশোরের চৌগাছা উপজেলার গোবিন্দপুর গ্রামের মহব্বত আলী ও পুশিদা বেগমের ছেলে আকরামুল। তিন ভাই-বোনের মধ্যে বড় আকরামুলের পুরো নাম মোঃ আকরামুল ইসলাম।২০১৯ সালে আজম খান সরকারি কমার্স কলেজ থেকে ফিন্যান্স বিভাগে মাস্টার্স শেষ করেছেন তিনি। বর্তমানে উপজেলার চৌগাছা সদর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহ্বায়ক।মহামারির ভয়কে জয় করে বাপ মায়ের আর্শিবাদে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার করোনা প্রতিরোধের যুদ্ধে অগ্রবর্তী সৈনিক সারির একজন যোদ্ধা।

করোণা মহামারীতে দেশব্যাপী লকডাউনে গৃহবন্দী হয়ে পড়েছে মানুষ, হয়েছে কর্মহীন । এই অবস্থায় মানুষকে সাহায্য করতে বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা তার সাধ্যমত সকল কিছুই করে যাচ্ছেন। আর্থিক প্রণোদনা ঘোষণা সহ মানুষ যেন অভুক্ত না থাকে সেজন্য একের পর এক বরাদ্দ ঘোষণা করে যাচ্ছেন। এর বাইরেও দেশের শ্রেণী-পেশা ধর্ম-বর্ণনির্বিশেষে প্রায়ই প্রতিনিয়ত কেউ না কেউ অসহায় মানুষদের পাশে দেশের আনাচে-কানাচে দাঁড়িয়েছেন এমন দৃশ্য বিভিন্ন গণমাধ্যমের কল্যাণে আমরা জানতে পারছি।

শিক্ষিত, প্রচারবিমুখ, সদালাপী এবং সদাহাসোজ্জল ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহ্বায়ক আকরামুল। এ নেতার মানুষের সাহায্য করার যেসকল প্রাণান্তকর প্রচেষ্টা তা যেন সবার অলক্ষ্যে থেকে গেলো।সদিচ্ছা কর্মপ্রচেষ্টা এবং নিয়ত ভালো হলেই যে একজন ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সামান্য নেতা হয়েও যে বঙ্গবন্ধু ও জননেত্রী শেখ হাসিনার মান উচ্চ শিখরে পৌঁছানো যায় সেটাই যেন প্রমাণ করলেন আকরামুল। ছাত্রলীগের ইতিহাস ঘাটলে এমন অজস্র আকরামুলকে খুজে পাওয়া যাবে। যারা সুসময়ে রাজনীতির নোংরামিতে পিষ্ট হয়ে কালের অতল গহ্বরে হারিয়ে যায়।

একদিন ভোর হবে।সকল আতঙ্ক আর উৎকন্ঠা কেটে গিয়ে মানুষ ফিরে পাবে তার স্বাভাবিক জীবন। রাজনীতিতে আসবে স্বাভাবিক গতি।বিভিন্ন রাজনৈতিক নোংরা দৌড়ে তখন কোথায় যেন হারিয়ে যায় আকরমুলের মতো সিংহ হৃদয়ের ছাত্রলীগের নেতারা।

তাইতো মুজিব আদর্শের প্রকৃত এসকল ছাত্রলীগ নেতার নাম জানতে পারেন না কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ। সেকারণেই আকরামুল দের সকল কর্মকান্ড ত্যাগ এবং ছাত্রলীগের প্রতি সেসকল পরিবারের ভালবাসার কথা সঠিক সময়ে পৌঁছে না বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে। তাই প্রকৃত মুজিব আদর্শের এসকল নেতারা পরবর্তীতে যেমন দলে মুল্যায়িত হন না আবার পড়ালেখা শেষ করেও তারা পায়না কোনো সরকারি চাকুরি। ছাত্রলীগের ইতিহাসেও তাদের নাম লিখার আগেই যেনো কলমের কালি ফুরিয়ে যায়।

তাইতো আকরামুলররা দেশের ক্রান্তিকালের জন্যই যুগে যুগে জন্ম নেয় বাবা মহব্বত আলী আর মা পুশিদা বেগমের গর্ভে । তবুও বেঁচে থাকুক আকরামুলরা। দেশ ও মানুষের জন্য যে এদের খুবই প্রয়োজন।