করোনা উপসর্গ নিয়ে আইসোলেশনে বৃদ্ধের মৃত্যু, বাড়ির লোক বলছে হার্ট ব্লক

0
562

চৌগাছা ( যশোর) প্রতিনিধিঃ

করোনা ভাইরাসের লক্ষন নিয়ে বৃদ্ধের মৃত্যু এবং মৃত্যু পরবর্তী নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠালেও পরিবারের লোজন বলছেন হার্ট ব্লকে মৃত্যু হয়েছে। তবে হার্ট ব্লকের কথা বললেও মৃতের জানাজায় ছিলেননা গ্রামবাসী। নিজ পরিবারের মাত্র পাচজন সদস্যই জানাজায় অংশগ্রহন করেছেন বললেন নিহতের ভাইপো ও স্থা্নীয় মেম্বর। এছাড়াও যারা রাতে মৃত রিজাউলকে হাসপাতালে নিয়েছিলেন তাদের তিনজনেরও নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠিয়েছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। বিষয়টি মৃতের ভাইপো,স্থানীয় মেম্বর ও যশোর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা.আরিফ আহমেদ এবং সিভিল সার্জন ডা.শাহিন আহমেদ নিশ্চিত করেছেন।
প্রসঙ্গত শুক্রবার ভোর রাতে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রিজাউল ইসলাম রিজা (৬৫) নামে এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যু পরবর্তী তার নমুনা সংগ্রহ করে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের জিনোম সেন্টারে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে বলেই বিভিন্ন গনমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে।
নিহত রিজাউল ইসলাম চৌগাছা উপজেলার ফুলসারা ইউনিয়নের জামিরা গ্রামের বাসিন্দা। শুক্রবার তার লাশ সাবধনতা বজায় রেখে অল্পপরিসরে (নিজ পরিবারের ৫জন) জানাজা করেই দাফন সম্পন্ন করা হয়।
নিহত রিজাউল করোনার উপসর্গ নিয়ে বৃহস্পতিবার গভীর রাতে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হন। শুক্রবার ভোর ৪টার দিকে আইসোলেশন ইউনিটেই তার মৃত্যু হয় বলে নিশ্চিত করেছেন হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আরিফ আহমেদ। ডা.আরিফ আহমেদ জানান, রিজাউল ইসলাম চৌগাছা উপজেলার জামিরা গ্রামের বাসিন্দা।তিনি করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১২ টায় হাসপাতালে ভর্তি হন। শুক্রবার ভোর ৪ টার দিকে তার মৃত্যু হয়। তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। তার সংস্পর্শে আসা ও হাসপাতালে নিয়ে আসা ২ নারী ও একজন পুরুষের নমুনা পরীক্ষার জন্য সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে। এবং রাতে তাদেরকে হাসপাতালের ওই আইসোলেশন ইউনিটেই রাখা হয়েছিল। মৃত ব্যক্তিকে করোনার সন্দেহভাজন রোগী হিসেবে বিশেষ ব্যবস্থায় দাফন করা হবে বলেও জানান তি। নিহত করোনায় আক্রান্ত ছিলেন কিনা তা রিপোর্ট হাতে আসার পরে নিশ্চিত হওয়া যাবে বলেও জানান ডা. আরিফ আহমেদ। যশোরের সিভিল সার্জন ডা.শেখ আবু শাহিন এই তথ্য নিশ্চিত করেন।
নিহতের করোনার লক্ষন ছিল (শ্বাস কষ্ট) বলেই তাকে নিয়ে আসা অন্য তিনজনেরও নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে বললেন যশোরের সিভিল সার্জন ডা.শাহিন আহমেদ।
এদিকে শুক্রবার বিকেলে ওই বৃদ্ধের লাশ গ্রামে নিয়ে গোপনে দাফন সম্পন্ন করা হয়। লাশ দেখতে বা দাফনের সময়ে গ্রামের সাধারন মানুষদের ওই বাড়ি এবং মৃতদেহর আশেপাশে দেখা যায়নি বলেই জানিয়েছেন স্থানীয়রা।
স্থানীয় ইউপি মেম্বারের নেতৃত্বে শুক্রবার বিকেল পাঁচটার দিকে ওই বৃদ্ধের লাশ দাফন করা হয়।
বৃদ্ধের ভাতিজা ইব্রাহিম হোসেন মোবাইল ফোনে বলেন উনি আগে থেকেই হার্টের রোগী ছিলেন। হার্ট ব্লক হয়ে তার মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার অবস্থার অবনতি হলে প্রথমে তাকে চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। সেখানে তার উপসর্গ দেখে দায়িত্বরত চিকিৎসক রুগীকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে রেফার্ড করেন বলেই জানালেন চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. লুৎফুন্নাহার। যশোর হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটেই ভোররাতের দিকে তার মৃত্যু হয়। ইব্রাহীম আরো বলেন মৃত্যুর পর চাচার এবং তার সাথে থাকা তার আরো তিনজনের নমুনা পরীক্ষার জন্য নেওয়া হয়েছে। শুক্রবার দুপুর আড়াইটার দিকে লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। তিনি বলেন আমাদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে দ্রুত দাফন করার জন্য।
স্থানীয় ইউপি সদস্য আনার মন্ডল মোবাইল ফোনে বলেন উনি হার্টের রোগী ছিলেন। হার্ট ব্লক হয়ে তার মৃত্যু হয়েছে। তিনি বলেন হাসপাতাল থেকে দেয়া নির্দেশনা অনুযায়ী ৫ জনকে নিয়ে জানাজা করা হয়েছে।এবং তাকে সকল সাবধানতা মেনেই দাফন করা হয়েছে। প্রশাসনকে কেনো জানালেন না প্রশ্নের জবাব মেম্বর বলেন,ইনশাল্লাহ মেন কিছু হয়নি।
উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ও ওই ইউনিয়নরে চেয়ারম্যান মেহেদি মাসুদ চৌধুরী বলেন বিষয়টি আমি কিছুক্ষন (সন্ধ্যা ৭টার পরে) জেনেছি। তবে মেম্বর ব্যাপারটা আমাকে আগে জানাননি।
এব্যাপারে চৌগাছা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম প্রশাসনিকভাবে কিছুই জানেননা বলেই জানিয়েছেন।