করোনা পরবর্তী ঢাকার বাইরের যশোরে প্রধানমন্ত্রীর প্রথম জনসভায় অংশ নিবে ৮ লাখ লোক

0
22

এক গুচ্ছ দাবি নিয়ে সরব যশোরবাসী
ডি এইচ দিলসান : দেশের প্রথম স্বাধীন জেলা যশোরই আগামী ২৪শে নভেম্বর জনসভাই হবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু তনয়া প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার করোনা পরবর্তী ঢাকার বাইরের প্রথম কোনো বৃহত্তম জনসভা। আট লাখ লোকের জনসভাকে যশোর জেলা স্টেডিয়াম ছাপিয়ে গোটা যশোর শহরকে সমাবেশস্থলে পরিণত করার প্রস্তুতি নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে প্রশাসন ও আওয়ামীলীগ।
সরজসিনে গিয়ে সমাবেশস্থলে দ্বায়িত্বরত উপ পুলিশ পরিদর্শক এজাজুল ইসলাম জানান এতমধ্যে নৌকার আদলে তৈরি হওয়া মঞ্চের ৬০% কাজ সম্পন্ন হয়ে গেছে, ২২ তারিখের মধ্যে মঞ্চের পুরো কাজ সম্পন্ন হবে বলে তিনি জানান।
এদিকে যশোরের বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমান বিমানঘাঁটিতে বার্ষিক কুচকাওয়াজে অংশগ্রহণ ও শহরের শামস্ উল হুদা স্টেডিয়ামে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভার কারণে ২৪ নভেম্বরের এইচএসসি পরীক্ষার দুটি কেন্দ্রপরিবর্তন করা হয়েছে।
কেন্দ্র দুটি হলো ডা. আব্দুর রাজ্জাক মিউনিসিপ্যাল কলেজ ও বিএফ শাহীন কলেজ কেন্দ্র। এর মধ্যে আব্দুর রাজ্জাক কলেজ কেন্দ্র সরিয়ে সরকারি মহিলা কলেজে এবং বিএফ শাহীন কলেজ কেন্দ্র সরিয়ে দাউদ পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজে স্থানান্তর করা হয়েছে।
যশোর শিক্ষা বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, ২৪ নভেম্বর বেলা ১১টা থেকে ১টা পর্যন্ত রসায়ন (তত্ত্বীয়), ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি (মানবিক শাখা), ইতিহাস, গৃহব্যবস্থাপনা ও পারিবারিক জীবন, উৎপাদন ব্যবস্থাপনা ও বিপণন বিষয়ের দ্বিতীয় পত্রের পরীক্ষা আছে। এ ছাড়া বেলা দুইটা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত লঘু সংগীত (তত্ত্বীয়) দ্বিতীয় পত্রের পরীক্ষা হবে। যশোর শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান আহসান হাবীব বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যশোর বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমান বিমানঘাঁটিতে বার্ষিক কুচকাওয়াজ ও শামসুল হুদা স্টেডিয়ামে জনসভায় অংশ নেবেন। বিএফ শাহীন কলেজ কেন্দ্রটি বিমানবাহিনীর অনুষ্ঠানস্থলের কাছে এবং জনসভার কারণে শামস্ উল হুদা স্টেডিয়ামের সঙ্গে পাশের ডা. আব্দুর রাজ্জাক মিউনিসিপ্যাল কলেজের মাঠ একীভূত হয়েছে।
আহসান হাবীব আরও বলেন,প্রধানমন্ত্রীর জনসভার কথা মাথায় রেখে শহরের কেন্দ্রগুলোর পরীক্ষার্থীদের আধা ঘণ্টা আগে আসার আহ্বান জানানো হয়েছে।
আট লাখ মানুষের জমায়েতের লক্ষ্য নিয়ে নিয়ে প্রস্তুতি সম্পন্ন করার দ্বারপ্রান্তে আয়োজক কমিটি। এ ব্যাপারে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সংসদ সদস্য শাহীন চাকলাদ বলেন, ‘আমার জানামতে, খুলনায় বিএনপির সমাবেশে ৬০ থেকে ৭০ হাজার মানুষ হয়েছে। সেখানে যশোরের জনসভায় আট লাখ মানুষের গণজমায়েতের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। পাঁচ বছর যশোরের নেতা-কর্মীরা নেত্রীকে কাছে পান না। নেত্রীকে ভালোবেসে নেতা-কর্মীরা চোখের দেখা দেখার জন্য বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাস নিয়ে যশোরের জনসভায় যোগ দেবেন। চাকলাদার বলেন, আশপাশের জেলা থেকেও নেতা-কর্মীরা আসবেন। সমাবেশস্থলে এত মানুষ ধরবে না। মানুষ যাতে সরাসরি নেত্রীর ভাষণ দেখতে ও শুনতে পান, সে জন্য ১০টি বড় আকারের এলইডি স্ক্রিন (বড় পর্দা) স্থাপনের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। সরকারি মাইকেল মধুসূদন কলেজ ক্যাম্পাস ও ঈদগাহ মাঠ, টাউন হল ময়দান, দড়াটানা চত্ত্বরসহ শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ওই বোর্ডগুলো স্থাপন করা হবে।
এদিকে প্রধানমন্ত্রীর জনসভাকে কেন্দ্র করে ইতমধ্যে মাঠ দখলে নিয়েছে এস এস এফ। এছাড়া পুলিশের ৪ স্তরের নিরাপত্তা থাকবে বলে নিশ্চিত করেছে জেলা পুলিশ প্রশাসন।
জনসভা সামনে রেখে ইতিমধ্যে একাধিকবার স্টেডিয়াম পরিদর্শন করেছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় একাধিক নেতা ও মন্ত্রী। সমাবেশস্থল নিরাপদ ও নির্বিঘœ করার লক্ষ্যে পুলিশ ও প্রশাসনের শীর্ষ ব্যক্তিরাও যশোরে অবস্থান করছেন। ৮ লাখ মানুষের অবস্থান নিশ্চিত করতে শামস্-উল হুদা স্টেডিয়ামের পশ্চিম পাশের গ্যালারি ভেঙে আবদুর রাজ্জাক মিউনিসিপ্যাল কলেজের মাঠ ও পৌর পার্কের একাংশের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করা হয়েছে।
প্রধানমন্ত্রীর যশোর আগমন উপলক্ষে বিভিন্ন দাবিতে সরব হয়েছেন নাগরিক সমাজ। দাবিগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো, যশোর মেডিকেল কলেজের ৫শ’ শয্যার হাসপাতাল, মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের জন্মভূমিতে সংস্কৃতি বিশ^বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা, ভবদহ জলবদ্ধতার স্থায়ী সমাধান, যশোর বিমান বন্দর আন্তজাতিককরণ, যশোরে মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি জাদুঘর স্থাপন, যশোরে সংস্কৃতি ভবন স্থাপন, যশোর স্টেডিয়াম আধুনিকায়ন, যশোর বিভাগ ও যশোর সিটি কর্পোরেশন ঘোষণা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও যশোরবাসী তাদের বিভিন্ন দাবি তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন।
ইতোমধ্যে যশোর মেডিকেল কলেজে ৫শ’ শয্যার হাসপাতাল, মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের জন্মভূমিতে সংস্কৃতি বিশ^বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা, ভবদহ জলবদ্ধতার স্থায়ী সমাধানের দাবিতে পৃথকভাবে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছে নাগরিক সমাজ। যশোরবাসীর দাবি আদায়ের লক্ষ্যে দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন সংগ্রাম করে আসছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যশোরবাসীর দাবি বাস্তবায়নের ঘোষণা দিবেন জনসভায়, এমনটাই প্রত্যাশা যশোরবাসীর।
এ বিষয়ে যশোর জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সহসভাপতি ফারাজী আহমেদ সাঈদ বুলবুল বলেন, যশোর সাংস্কৃতিক রাজধানী বলা হয়। যশোর শহরের ত্রিশটির অধিক সাংস্কৃতিক সংগঠন রয়েছে। বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব কার্যালয় নেই। এজন্য একটি সাংস্কৃতিক চর্চা কেন্দ্র স্থাপনের দাবি দীর্ঘদিনের। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই দাবির বিষয়টি বিবেচনা করবেন এমনটি প্রত্যাশা আমাদের।
উল্লেখ্য ১৯৭২ সালের ২৬ ডিসেম্বর যশোর স্টেডিয়ামে জনসভায় ভাষণ দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। সেই একই মাঠে আগামি ২৪ নভেম্বর যশোর জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় ভাষণ দিবেন বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর আগে সর্বশেষ পাঁচ বছর আগে ২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর যশোর ঈদগাহ মাঠে নির্বাচনী জনসভায় ভাষণ দিয়েছিলেন শেখ হাসিনা।