“কলারোয়ার চন্দনপুর কলেজ থেকে চান্দুড়িয়া বাজার ৩কিঃমিঃ রাস্তাটি কার্পেটিং উঠে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে”

0
312

আরিফুজ্জামান আরিফ: কলারোয়ার সীমান্তবর্তী চন্দনপুর কলেজ থেকে চান্দুড়িয়া বাজার রাস্তাটির কার্পেটিং উঠে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।সীমাহীন দুর্ভোগে হাজার হাজার পথচারী।দেখার কেহ নেই।

দুর্ভোগ!কতকাল আমাদের এ দুর্ভোগ পোহাতে হবে!মন্তব্যটি কলারোয়ার চন্দনপুর ইউনিয়নের সচেতন ও ভুক্তভোগী এলাকাবাসীর।

কলারোয়া উপজেলা সদর হইতে চন্দনপুর  ব্যস্ততম  এএ রাস্তাটি দিয়ে চলাচল করে হাজারো মানুষ। রাস্তা দিয়ে চন্দনপুর কলেজ, চন্দনপুর ইউনিয়ন পরিষদ, চন্দনপুর বাজার, গয়ড়া বাজার, চান্দুড়িয়া বাজার এবং চান্দুুড়িয়া বিজিবি ক্যাম্প সহ ২/৩টি স্কুলে যেতে চলতে হয় ছাত্র/ছাত্রীসহ শিক্ষার্থীদের। আম বাগান, কুমড়া চাষ, ধান, পাট, পটল সহ নানা ফসলের ব্যাপক চাষ হয় এ এলাকা সমুহে।

এসব উৎপাদিত পন্য প্রায়ই ট্রাক ভর্তি করে নিয়ে চলে যায় ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে। এছাড়া রয়েছে গরুর খাটাল, প্রতিদিন ২০/২৫ ট্রাক লোড হয় এখান থেকে। রয়েছে একটি ইটভাটা। ট্রাকে লোড ইট। এই রাস্তাটি দীর্ঘ দিন ধরে রাস্তাটি সংস্কারের অভাবে জনসাধান দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। সামান্য বর্ষা হলে রাস্তাটি পুরো অকেজো হয়ে পড়ে।

সরেজমিনে দেখা গেছে-চন্দনপুর কলেজ মোড়  ৩কিলো মিটার দুরত্ব চান্দুড়িয়া বাজার। রাস্তাটি কার্পেটিং উঠে খানা খন্দরে পরিনত হয়ে মরণফাঁদে পরিণত হয়ে রয়েছে। ঝুঁকিপূর্ণ এ রাস্তাটি ধরে শিশু থেকে বৃদ্ধ এবং সাইকেল-মটর সাইকেল নানা যানবাহন চলাচল করে থাকে। বর্ষা মৌসুমে বৃষ্টির পানিতে ভাঙ্গনে আরো নানান দুর্ভোগ পোহাতে হয়। তারপরও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দিয়ে চলাচল করতে হয় পথচারীদের।

দীর্ঘদিন যাবৎ এই রাস্তাটি কার্পেটিং উঠে জরাজীর্ণ হয়ে পড়লেও সংস্কারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কোন নজর নেই।

চন্দনপুর  ইউপি চেয়ারম্যান মনিরুল ইসলাম জানান- রাস্তাটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। হাজার হাজার মানুষ এ রাস্তা দিয়ে চলাচল করে থাকে।  অথচ কার্পেটিং উঠে হ-য-ব-র-ল অবস্হা। সামান্য বৃষ্টি হলেই জনসাধারন এই রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে পরছেনা।

সচেতনমহল রাস্তাটি দ্রুত সংস্কারের জন্য  যথাযথ কর্মকর্তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here